২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত দেশ জঙ্গিবাদ ও বোমা হামলার আস্তানায় পরিণত হয়। -প্রধানমন্ত্রী

28

pm1আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় না আসলে এ দেশের মানুষ মুক্তিযুদ্ধের চেতনাই ভুলে যেত । তিনি বলেন, এরপর ২০০১ সালে বিএনপি-জামায়াত জোট ক্ষমতায় আসে। ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত দেশ জঙ্গিবাদ ও বোমা হামলার আস্তানায় পরিণত হয়। তিনি বলেন, ২০০৯ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশে উন্নয়ন হয়েছে। উন্নয়নের রোল মডেলে পরিণত হয়েছে।
মঙ্গলবার বিকালে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুহিবুর রহমানের জন্মদিন উপলক্ষে এ আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। সংসদ উপনেতা ও দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য সৈয়দা সাজেদা চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় কেন্দ্রীয় নেতারা বক্তব্য দেন। তিনি বলেন, যারা সংসদে অংশ নেয় না তাদের জন্য মায়াকান্না দেখাচ্ছে একটি শ্রেণী। তারা বিভিন্ন রিপোর্ট দিচ্ছে। তারা দেশের উন্নয়ন চায় না। জঙ্গিবাদের জন্যই তাদের মায়াকান্না।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, জিয়াউর রহমান শুধু নামে মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন। তিনি বলেন, বাংলাদেশ যখন উন্নয়নের দিকে যাচ্ছিল তখনই জাতির পিতাকে সপরিবারে হত্যা করা হয়। শুধু জাতির পিতাকেই হত্যা করা হয়নি, জাতীয় চার নেতাকেও হত্যা করা হয়েছে। এরপর হানাদার বাহিনীর দোসরদের নিয়ে জিয়াউর রহমান সরকার গঠন করেন। জাতির পিতার হত্যাকারীদের বিদেশি দূতাবাসে চাকরির ব্যবস্থা করেন। বিদেশে রাজনৈতিক আশ্রয় দেওয়ার ব্যবস্থা করেছেন।
শেখ হাসিনা বলেন, অনেকে বলেন জিয়াউর রহমান গণতন্ত্র দিয়েছেন। আমরাও একসময় বলতাম। তাহলো কারফিউ গণতন্ত্র। ১৯৭৫ সাল থেকে ১৯৮৬ সাল পর্যন্ত প্রতি রাতেই কারফিউ থাকত। জিয়াউর রহমানের আমলে গরিব আরো গরিব হয়েছে। তিনি এক ধরনের ধনিক শ্রেণী সৃষ্টি করেছিলেন। যাতে দীর্ঘদিন ক্ষমতায় থাকা যায়।
শেখ হাসিনা বলেন, এরপর নির্বাচন এলো। দেখতে পেলাম একই ষড়যন্ত্র। ষড়যন্ত্র এখনো শেষ হয়নি। ২০০৯ থেকে ২০১৩ পর্যন্ত ৪১৮ দিন জাতীয় সংসদ চলেছে। তাতে বিএনপি মাত্র ১৭-১৮ দিন অংশ নিয়েছে। আর বিরোধীদলীয় নেত্রী মাত্র ৮-১০ দিন অংশ নিয়েছেন। যারা জাতীয় সংসদে অংশ নেয় না তাদের জন্য আজ মায়াকান্না দেখাচ্ছে একটা শ্রেণী। অথচ ২০০১ থেকে ২০০৬ পর্যন্ত তাদের মুখে কুলুপ ছিল। তাদের বুদ্ধি তখন লোপ পেয়েছিল। তাদের বুদ্ধি বাড়ে আমরা ক্ষমতায় এলেই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here