১৮ দলীয় জোটের ৭২ ঘণ্টার অবরোধের প্রথম দিনে সহিংসতায় নিহত ২ যানবাহনে আগুন, ভাংচুর, রেহাই পাচ্ছে না খাদ্য ও ওষুধবাহী যান

35

oborodhবিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮ দলীয় জোটের ৭২ ঘণ্টার অবরোধের প্রথম দিন গতকাল শনিবার রাজধানীসহ সারাদেশে ব্যাপক সহিংসতা হয়েছে। এতে নিহত হয়েছে দুই জন। রাত ৮টার দিকে সদরঘাট থেকে রামপুরাগামী সুপ্রভাত পরিবহনের একটি বাসে রাজধানীর মালিবাগ চৌধুরীপাড়ায় অবরোধকারীরা পেট্রোলবোমা ছুঁড়ে মারলে বাসটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পাশের রিকশাসহ পথচারীদের চাপা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই পথচারী হাবিবুর রহমান (৩১) মারা যান। এছাড়া পথচারী এডভোকেট গোলাম কিবরিয়ার (৪৫) বাম হাত বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। অপর পথচারী মহিউদ্দিনের বাম পা ভেঙে গেছে। এছাড়া বাসের যাত্রী রেজাউল করিম ও বাসের হেলপার মনির হোসেন আগুনে দগ্ধ হয়ে ঢাকা মেডিক্যালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি হয়েছেন।

ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুরে পুলিশের সঙ্গে জোটের নেতাকর্মীদের সংঘর্ষে ইসরাইল নামে একজন নিহত হয়েছে। জামায়াত দাবি করেছে নিহত ইসরাইল শিবির কর্মী ও পুলিশের গুলিতে তার মৃত্যু হয়েছে।

এদিকে রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে যানবাহন ভাংচুর, অগ্নিসংযোগ ও ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। তবে প্রধান সড়কে যান চলাচল করেছে কম। মানুষের চোখেমুখে ছিল ভীতি, আতংক। জরুরি প্রয়োজনে যারা ঘর থেকে বের হয়েছেন, তারা গণপরিবহনে না উঠে রিকশায় গেছেন গন্তব্যস্থলে। এদিকে, গতকালও সারাদেশে নির্বিচারে যানবাহন ভাংচুর ও আগুন দিয়েছে অবরোধকারীরা। তাদের হাত থেকে রেহাই পায়নি খাদ্য ও ওষুধবাহী গাড়ি। রাজশাহীতে ধানবোঝাই চারটি ট্রাক ও ওষুধবাহী একটি মাইক্রোবাসে শিবির কর্মীরা আগুন দিয়েছে। হামলার শিকার হচ্ছে সংবাদপত্রবাহী গাড়ি ও অ্যাম্বুলেন্স। বগুড়ার শাহজাহানপুরে সংবাদপত্রবাহী কয়েকটি গাড়ি ভাংচুর করে অবরোধকারীরা। এর ফলে গতকাল উত্তরের কোন জেলায় সংবাদপত্র পৌঁঁছেনি। বরিশাল, লক্ষ্মীপুর ও চাঁদপুরে অ্যাম্বুলেন্সে হামলার খবরও পাওয়া গেছে। যশোরের মনিরামপুরে অবরোধকারীদের হাতে লাঞ্ছিত হয়েছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শরীফ নজরুল ইসলাম।

গতকাল অবরোধে রাজধানীতে ট্রেন ও লঞ্চ চলাচল করেছে। তবে দূরপাল্লার বাস চলাচল ছিল প্রায় বন্ধ। অবরোধের আওতার বাইরে থাকলেও বন্ধ ছিল নগরীর অনেক দোকানপাট।

রাজধানীর পান্থপথ, বাড্ডার নতুন বাজার, যাত্রাবাড়ী, কাজলাসহ বিভিন্ন স্থানে অবরোধের চেষ্টা চালায় অবরোধকারীরা। এ সময় দুই শিবির কর্মীকে আটক করে পুলিশ। অপর দিকে রাজপথ অবরোধের চেষ্টাকালে রাজধানীর বেশ কয়েকটি এলাকায় পুলিশ ও ছাত্রলীগের কর্মীদের সঙ্গে ১৮ দলীয় জোটে নেতাকর্মীদের সংঘর্ষ হয়েছে। বাড্ডায় দুই ছাত্রলীগ কর্মীকে কুপিয়ে জখম করেছে অবরোধকারীরা। রাজধানীর বিভিন্ন মোড়ে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের অবস্থান দেখা গেছে।

গতকাল সকাল থেকে সরেজমিনে দেখা গেছে, নগরীর মধ্যে কিছু গাড়ি চলাচল করেছে। তবে যাত্রীর সংখ্যা ছিল অন্যান্য দিনের তুলনায় কম। গাড়িতে উঠা নিয়ে অনেকের মধ্যে আতঙ্ক দেখা গেছে। সকালে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে ছেড়ে আসা ট্রেন নির্ধারিত সময়ের চেয়ে দুই থেকে তিন ঘণ্টা দেরিতে কমলাপুর পৌঁছে।

সকাল সাড়ে ৭টায় যাত্রাবাড়ীর কাজলা ও নয়াবাজারে অবরোধ, অগ্নিসংযোগ ও মিছিল করেছে ১৮ দলীয় নেতাকর্মীরা। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ঝটিকা মিছিলটি ডেমরার রাণীমহল থেকে শুরু হয়ে বড়ভাঙ্গা ব্রিজে গিয়ে শেষ হয়। এ সময় কর্মীরা রাস্তায় অগ্নিসংযোগ ও সড়ক অবরোধ করেন। সকাল ৮টায় নয়াবাজার মোড়ে একটি মিছিল বের করে। এ সময় তারা রাস্তায় টায়ারে আগুন দিয়ে অবরোধ করার চেষ্টা করে।

সকাল সাড়ে ১০টায় মগবাজারে রেলগেট এলাকায় জামায়াত কর্মীরা সড়কে আগুন দিয়ে অবরোধ করেন। এছাড়া ভোর থেকে মগবাজারের ওয়্যারলেস রেলগেইট, মগবাজার চৌরাস্তা ও হাতিরঝিল এলাকায় পিকেটিং করে।

বিআইডব্লিউটিএ’র কর্মকর্তারা জানান, সদরঘাটে লঞ্চ চলাচল স্বাভাবিক ছিল। কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। বিকাল ৫টা পর্যন্ত ১৬টা লঞ্চ ছাড়ার কথা ছিলো, এর মধ্যে ১৪টি ঘাট ছেড়ে গেছে।

রাজধানীর মতিঝিল, পল্টন, মিরপুর, গুলশান, বনানী, ধানমন্ডিসহ বিভিন্ন এলাকায় ছিল স্বাভাবিক অবস্থা।

সকালে ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুর বাসস্ট্যান্ডে অবরোধকারীদের সাথে পুলিশের সংঘর্ষে ইসরাইল হোসেন ( ২২ ) নামে একজন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে অন্তত আরো ১০ জন। ইসরাইল হরিণদিয়া গ্রামের শহিদুল ইসলামের ছেলে। কোটচাঁদপুর উপজেলা শিবিরের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল্লাহ তারেক দাবি করেন, নিহত ইসরাইল শিবিরের কর্মী ও পুলিশের গুলিতে সে নিহত হয়েছে। এ ঘটনার প্রতিবাদে আজ রবিবার ঝিনাইদহে সকাল-সন্ধ্যা হরতাল ডেকেছে ১৮ দল।

কোটচাঁদপুর থানার ওসি শাহাজাহান আলি জানান, সকালে ১৮ দলের একটি মিছিল মেইন বাস স্ট্যান্ডে এসে কালীগঞ্জ-চুয়াডাঙ্গা মহাসড়ক অবরোধ করে। এসময় পুলিশ বাধা দিলে পুলিশকে লক্ষ্য করে ৮-১০টি ককটেল নিক্ষেপ করে তারা।

চট্টগ্রাম:চট্টগ্রামে অবরোধের প্রথম দিনে পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ও ককটেল নিক্ষেপের ঘটনায় তিন পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে আনিসুর রহমান ও অঞ্জন চৌধুরী নামে দুই কনস্টেবলকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সুমন চাকমা নামে আহত আরেক কনস্টেবলকে প্রাথমিক চিকিত্সা দেয়া হয়েছে। পুলিশ জানায়, নগরীর পাহাড়তলি থানাধীন জাকির হোসেন রোডে অবরোধকারীদের সাথে সংঘর্ষ চলাকালে আনিসুর রহমানের ঘাড়ে গুলি লাগে। অন্যদিকে নগরীর চাঁন্দগাও থানাধীন পুরাতন থানার সামনে অবরোধকারীদের নিক্ষিপ্ত ককটেলে গুরুতর আহত হন অঞ্জন চৌধুরী।

পাহাড়তলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আজিজুর রহমান ইত্তেফাককে বলেন, সকাল সাড়ে ৯টার দিকে জাকির হোসেন রোডের আল আমীন হাসপাতালের সামনে অবরোধকারীরা যানবাহন ভাংচুর, অগ্নিসংযোগ ও ককটেল বিস্ফোরণ করছিল। পুলিশ বাধা দিতে গেলে অবরোধকারীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ও ককটেল নিক্ষেপ করে। এতে আনিসুর রহমান নামে এক কনস্টেবলসহ তিন পুলিশ আহত হন। ঘটনাস্থল থেকে ১৩ জনকে আটক করা হয়েছে।

সীতাকুণ্ড (চট্টগ্রাম) : ঢাকা-চট্টগ্রাম রেল লাইনে গতকাল শনিবার রাত সাড়ে সাতটার সময় উপজেলার বারবকুণ্ড ও শুকলালহাট স্থানে অরোধকারীরা আগুন দিয়েছে। এছাড়া সন্ধ্যায় পাথর নিক্ষেপের ফলে গুরুতর আহত হয়েছে চাঁদপুরগামী মেঘনা এক্সপ্রেস ট্রেনের চালক মোহাম্মদ জালাল। তাকে মুমূর্ষু অবস্থায় চট্টগ্রাম রেলওয়ে হাসপাতালে চিকিত্সার জন্য প্রেরণ করা হয়েছে।

এদিকে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব চত্বরে সন্ধ্যায় একটি পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করে দুষ্কৃতকারীরা। এসময় বিকট শব্দে পুরো এলাকায় আতংক ছড়িয়ে পড়ে। অন্যদিকে ভাটিয়ারী এলাকায় ১৫টি সিএনজি চালিত অটোরিক্সা ও ৩টি ট্রাক ভাংচুর করেছে অবরোধকারীরা।

এসময় বিএমএ গেইট, বানুর বাজার, জলিল গেইট এলাকায় শিবির কর্মীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট পাটকেল নিক্ষেপ করলে দফায় দফায় পুলিশের সাথে সংঘর্ষ হয়। এসময় অর্ধশত রাউন্ড টিয়ার শেল নিক্ষেপ করে পুলিশ শিবির কর্মীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়।

এসময় পিকেটারদের ইটের আঘাতে এক সিএনজি অটোরিক্সা চালক, শিশু, দুই নারীসহ ৫ জন আহত হয়েছেন। সিএনজি অটোরিক্সা চালক ইয়ামিনকে মুমূর্ষু অবস্থায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

রাজশাহী: রাজশাহীতে শিবিরের পেট্রোল বোমা হামলায় পুড়ল ৪টি ধানবোঝাই ট্রাক ও একটি ওষুধ বহনকারী পিকআপ ভ্যান। শনিবার ভোর ৪টার দিকে রাজশাহী মহানগরীর মতিহার থানার দেওয়ানপাড়ার রাজশাহী-ঢাকা মহাসড়কে এই ঘটনা ঘটে। ধান বোঝাই ট্রাকগুলো নওগাঁ থেকে রাজশাহী হয়ে কুষ্টিয়ায় যাচ্ছিল। পরে রাজশাহী সদর দমকল বাহিনী গিয়ে আগুন নেভায়। তবে, এ ঘটনায় কোনো হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি। অপরদিকে, শনিবার দুপুর ১২টার দিকে মহানগরীর লোকনাথ স্কুল এলাকায় ছাত্রদল ও পুলিশের মধ্যে সংঘর্ষে ১০ জন আহত হয়েছে।

এদিকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের পার্শ্ববর্তী বিনোদপুরে শনিবার সন্ধ্যায় পুলিশের সাথে শিবির ক্যাডারদের সংঘর্ষে অন্তত ৫০ জন আহত হয়েছে। শিবির কর্মীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক থেকে মিছিল বের করে। বিনোদপুর বাজারের দিকে যাওয়ার সময় শিবির ক্যাডাররা মিছিল থেকে পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে ও ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটায়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ শতাধিক রাউন্ড টিয়ারশেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে।

চারঘাট (রাজশাহী): সরদহ রেল স্টেশন সংলগ্ন রেললাইনে গতকাল অবরোধকারীরা আগুন দেয়।

বগুড়া : শনিবার অবরোধ সমর্থকরা বগুড়ার শাজাহানপুরে জাতীয় সংবাদপত্রবাহী কয়েকটি গাড়ি ভাংচুর করেছে। ফলে জাতীয় দৈনিকগুলো উত্তরের কোন জেলায় পৌঁছেনি।

শেরপুরে অবরোধ সমর্থকরা প্রায় ৮০ গাড়ি ভাংচুর করে। এতে আটকা পড়ে শতাধিক যানবাহন। পরে পুলিশ, র্যাব ও বিজিবির প্রহরায় সেগুলো নিরাপদে সরিয়ে নেয়া হয়। এসময় শাজাহানপুরে ফটকি ব্রীজ এলাকায় র্যাব-১২ এর পরিচালকের গাড়ির সামনে ৩টি ককটেল বিস্ফোরিত হয়। সেখান থেকে ৫ জনকে আটক করেছে পুলিশ। দুপুরে জেলা নির্বাচন অফিসের সামনে ৩টি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটে। এছাড়াও শহরের বিভিন্ন স্থানে ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে।

সোনাতলা (বগুড়া) : শনিবার সোনাতলায় আওয়ামী লীগ-বিএনপির মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, ২টি ককটেল বিস্ফোরণ ও পুলিশের ৭ রাউন্ড ফাঁকা গুলিবর্ষণের ঘটনা ঘটেছে।

শুক্রবার দিবাগত রাত আনুমানিক সাড়ে ১০টায় স্থানীয় ঘোড়াপীর মোড়ে পৌর ৪নম্বর আওয়ামী লীগের সভাপতির ভাই আব্দুর রেজ্জাক ও বিএনপির কতিপয় কর্মীর মধ্যে মারপিটের ঘটনা ঘটে। এর জের ধরে পরদিন সকালে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে দুপুরে উভয় দলের মধ্যে চরম উত্তেজনা দেখা দিলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে পুলিশ ৭ রাউন্ড ফাঁকা গুলিবর্ষণ করেছে।

নারায়ণগঞ্জ : দুপুরে শহরের উকিলপাড়া এলাকাতে ব্যাপক বোমাবাজির ঘটনা ঘটে। এছাড়া কিল্লারপুল এলাকাতে একটি মোটরসাইকেলে আগুন ধরিয়ে দেয় অবরোধকারীরা। শহরে বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে। সকাল সাড়ে ৬টায় শহরের দেওভোগে মর্গ্যান স্কুলের সামনে সড়কে পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয় শিবির।

লক্ষ্মীপুর : সদর উপজেলার যাদৈয়া এলাকায় নগর হাসপাতাল ও মাদারল্যান্ড হাসপাতালের এ্যাম্বুলেন্সসহ ৪টি এ্যাম্বুলেন্স ও স্থানীয় এক সাংবাদিকের মোটরসাইকেল ভাংচুর করে অবরোধকারীরা। সকালে জেলা শহরের বিসিক নগরী এলাকায় গাছ কেটে লক্ষ্মীপুর-রায়পুর মহাসড়ক অবরোধ করা হয়। অবরোধের সমর্থনে বিভিন্ন পয়েন্টে খণ্ড খণ্ড মিছিল বের করে ১৮ দলীয় জোটের নেতা-কর্মীরা। এসময় সড়কের বিভিন্ন স্থানে টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে ও ১০/১৫টি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে সড়ক অবরোধ করে অবরোধ সমর্থকরা।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া : শহরের টিএ রোডে পুলিশ-বিজিবি’র সাথে ১৮ দলীয় নেতা-কর্মীদের ব্যাপক সংঘর্ষ হয়েছে। সংঘর্ষের সময় শতাধিক ককটেল বিস্ফোরণ ঘটে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ শতাধিক রাউন্ড টিয়ারসেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে। এসময় পুরো এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। এসময় টিএ রোডে যান চলাচল ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে যায়। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, সংঘর্ষকালে পুলিশের গুলিতে কমপক্ষে ১৫জন গুলিবিদ্ধ হয়। পুলিশ কান্দিপাড়া আবাসিক মহল্লায় প্রবেশ করে তাণ্ডব চালায়। এসময় জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক ইয়াছিন মাহমুদের অফিস ও বাসভবনে ব্যাপক ভাংচুর করে পুলিশ। ‘শহরের টিএ রোডে পুলিশের এক কনস্টেবল অস্ত্র নিয়ে নাড়াচাড়া করার সময় নিজ গুলিতে আহত হন। ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেলস্টেশনে চট্টগ্রামগামী একটি মালবাহী ট্রেনের ইঞ্জিনে ৪/৫টি ককটেল নিক্ষেপ করে। শহরের কলেজ রোড, কাউতলী মোড়ে দফায় দফায় ককটেল বিস্ফোরণ ও টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে অবরোধ সৃষ্টি করে অবরোধকারীরা। অবরোধের ফলে আখাউড়া স্থলবন্দর দিয়ে আমদানি-রফতানি বন্ধ রয়েছে।

সাতক্ষীরা : সকালে সাতক্ষীরা-যশোর মহাসড়কের কদমতলা থেকে কলারোয়া পর্যন্ত, বাঁকাল, রামচন্দ্রপুর, বিনেরপোতা, পাটকেলঘাটা, তালা, ভোমরা স্থলবন্দর সড়কসহ জেলার বিভিন্ন উপজেলায় টায়ার জ্বালিয়ে গাছের গুড়ি ফেলে সড়ক অবরোধ করেছে ১৮ দলের নেতা-কর্মীরা। শহরের মিল বাজার এলাকায় সাতক্ষীরা-খুলনা মহাসড়কে টায়ার জ্বালিয়ে ১০টি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায় ও বিক্ষোভ মিছিল করে অবরোধ সমর্থকরা। অবরোধের কারণে সাতক্ষীরার কেন্দ্রীয় বাসটার্মিনাল থেকে দূরপাল্লার কোন পরিবহন ছেড়ে যায়নি।

এদিকে, তালা উপজেলা ওলামা লীগের সভাপতি শেখ আনছার আলীর ব্যবহূত মোটরসাইকেলটি জ্বালিয়ে দিয়েছে অবরোধ সমর্থকরা। দেবনগরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও দৈনিক মানবজমিনের জেলা প্রতিনিধি ইয়ারব হোসেনকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে মারাত্মক আহত করেছে জামায়াত-শিবির কর্মীরা।

কলারোয়া (সাতক্ষীরা) : জামায়াত-শিবির ও বিএনপির পিকেটাররা গতকাল শনিবার সকাল ৯টার দিকে কলারোয়ার ওফাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তালা ঝুলিয়ে দিয়েছে।

বরিশাল : নগরীর চৌমাথা ও লাকুটিয়া সড়কে গাছ ফেলে সড়ক অবরোধ করে ১৮ দল। পুলিশ ধাওয়া করলে অবরোধকারীরা ৩টি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে পালিয়ে যায়। বিকালে অবরোধকারীরা নগরীর সদর রোডে একটি অ্যাম্বুলেন্স ও কয়েকটি রিক্সা ভাংচুর করে।

মনোহরগঞ্জ (কুমিল্লা) :কুমিল্লার মনোহরগঞ্জে লালমাই-নোয়াখালী আঞ্চলিক মহাসড়কের বিপুলাসার ও নাথেরপেটুয়ায় গাছের গুঁড়ি ফেলে সড়ক অবরোধ করে ১৮ দলীয় জোট কর্মীরা। এ সময় তারা ২টি পিকআপ ভ্যানে আগুন দেয়।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ :সকালে শহরের আরামবাগ-পিটিআই এলাকা ও টোলঘর এলাকায় আগুন জ্বালিয়ে ও ইটের টুকরো ফেলে সড়ক অবরোধ করে রাখে শিবির কর্মীরা। এ সময় ৩টি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। টোলঘর এলাকায় আরো ২টি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায় শিবির কর্মীরা। বেলা ১১টায় জেলা জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত আমির লতিফুর রহমানের জামাই কালামকে বাসা থেকে আটক করে আইন-শৃংখলা বাহিনীর সদস্যরা।

যশোর:যশোরের মনিরামপুর উপজেলার চালকিডাঙ্গায় অবরোধকারীদের ব্যবহূত কাঠ জব্দ করতে গিয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শরীফ নজরুল ইসলাম, ওসি মীর রেজাউল ইসলামসহ ১৫ জন আহত হয়েছে। এসময় অবরোধকারীরা উপজেলা নির্বাহী অফিসারের গাড়ি, পুলিশের পিকআপ ভ্যান ভাংচুর ও একটি ট্রাকে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয়।

দিনাজপুর: পুলিশ ১০ জন অবরোধকারীকে আটক করেছে। ভোরে দিনাজপুর রেল স্টেশন থেকে আন্ত:নগর দ্রুতযান, দোলনচাপা এক্সপ্রেস ও তিস্তা এক্সপ্রেস ছেড়ে গেলেও পার্বতীপুর রেলওয়ে জংশনে ৩টি ট্রেন অবরোধকারীদের বাধার মুখে আটকে যায়।

কুমিল্লা:দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে মহাসড়কের কালাকচুয়া এলাকায় শিবিরকর্মীরা মহাসড়ক অবরোধ করার চেষ্টা করে। এসময় পুলিশ বাধা দিলে অবরোধকারীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ১৪/১৫টি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটায় এবং ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে। এতে শাহ আলম নামে পুলিশের এক কনস্টেবল আহত হয়। পুলিশ অবরোধকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে কয়েক রাউন্ড শর্টগানের গুলি ছুঁড়ে ও লাঠিচার্জ করে।

চাঁদপুর: ভোরে চাঁদপুর শহরের মঠখোলা এলাকায় অবরোধকারীদের হামলায় পুলিশের এসআই এবি রফিকুল ইসলাম (৫৫) আহত হয়েছে। পুলিশ লাইনের এসআই বাবুল মজুমদার জানান, লাইন থেকে অবরোধের ডিউটিতে যাওয়ার পথে একটি চলন্ত ভ্যান গাড়িতে অবরোধকারীরা ইটপাটকেল নিয়ে আকস্মিক হামলা চালায়। এ সময় অল্পের জন্য তাদের ২০/২৫ জন পুলিশ প্রাণে রক্ষা পায়। একই সময় হামলাকারীরা একটি অ্যাম্বুলেন্সও ভাংচুর চালায়। এছাড়াও শহরের কোর্ট স্টেশন ও মিশন রোড এলাকায় রেললাইনে গাছের গুঁড়ি ও টায়ারে আগুন দেয় অবরোধকারীরা।

জামালপুর: দুপুরে শহরের ফেরীঘাট এলাকায় অবরোধকারীরা বেশকয়েকটি যানবাহন ভাঙচুর করে। এসময় পুলিশ বাধা দিলে অবরোধকারীদের সঙ্গে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া শুরু হয়। এতে ৫ জন আহত হয়।

মাগুরা:শনিবার দুপুরে মাগুরা-ফরিদপুর সড়কের পৌর এলাকার পারনান্দুয়ালীতে পাট বোঝাই একটি নছিমনে আগুন দেয় অবরোধকারীরা।

নোয়াখালী: সকাল থেকে অবরোধকারীরা শহরের পৌর বাজার, রশিদ কলোনী, দত্তেরহাট, সোনাপুর, মাইজদী বাজার ও শহীদ ভুলু স্টেডিয়ামসহ বিভিন্ন এলাকায় প্রধান সড়কে গাছের গুড়ি ফেলে এবং টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে অবরোধ সৃষ্টি করে। জেলার পুলিশ সুপার মো. আনিসুর রহমানের নেতৃত্বে পুলিশ অবরোধ সরাতে গেলে পুলিশের সঙ্গে অবরোধকারীদের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এ সময় পুলিশ শটগান থেকে ২০ রাউন্ড ও চাইনিজ রাইফেলের ৫ রাউন্ড গুলি ছুঁড়েছে।

গাইবান্ধা: দুপুর ১টার দিকে ১৮ দলের নেতা-কর্মীদের সাথে র্যাব ও পুলিশের সংঘর্ষ হয়েছে। এতে কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে শট গানের ৯ রাউন্ড গুলি ছোঁড়ে র্যাব সদস্যরা।

এদিকে দুপুরে পলাশবাড়ী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক এমপি তোফাজ্জল হোসেনের বাড়িতে জামায়াত-শিবির হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাংচুর ও ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায়। তারা একটি মোটর সাইকেলও আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দিয়েছে। পরে উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি তৌহিদুল ইসলাম মণ্ডল ও উপজেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল মতিনের ব্যক্তিগত চেম্বারের আসবাবপত্র বের করে মহাসড়কে আগুন ধরিয়ে দেয় ১৮ দলের কর্মীরা।

ভাঙ্গা (ফরিদপুর): বরিশাল থেকে মাগুরাগামী একটি ট্রাক সেবা ক্লিনিকের সামনে আসলে দুর্বৃত্তরা ট্রাকটির গতি রোধ করে ব্যাপক ভাংচুর করে। ভাংচুর শেষে ট্রাকটিতে পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয় তারা ।

জামালপুর: বিএনপি-জামায়াত ১৮ দলীয় জোটের নেতা-কর্মীদের শহরে সন্ধ্যায় শতাধিক সিএনজি অটোরিক্সাসহ গাড়ি ও দোকান ভাংচুরের প্রতিবাদে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা বিক্ষোভ মিছিল করেছেন।

ময়মনসিংহ:শনিবার বিকাল ৫টার দিকে শহরের মাসকান্দা বিসিক শিল্পনগরীর সামনে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে ঢাকাগামী একটি ট্রাককে অবরোধকারীরা ধাওয়া করলে চালক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পাশের মার্কেটের দোকানে উঠিয়ে দেয়। এসময় ট্রাক চালক মাসুম, দোকান কর্মচারী দিপু ও ট্রাকযাত্রী রোকেয়া বেগম আহত হয়।

কসবা (ব্রাহ্মণবাড়িয়া): অবরোধকারীরা ডিবি পুলিশের গাড়ী ভাংচুর করে। তারা কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়কে গাছ ফেলে যান চলাচল বন্ধ করে দেয়। গাছ সরিয়ে নিতে গেলে পুলিশ ও অবরোধকারীদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। পুলিশ ২০ রাউন্ড রাবার বুলেট ও কাঁদানে গ্যাস নিক্ষেপ করেছে। এতে ১০ জন নেতা-কর্মী আহত হয়েছে বলে দাবি করেছে বিএনপি।

মেহেরপুর: সদর উপজেলার পিরোজপুর গ্রামে বিএনপি-জামায়াত সমর্থকদের সাথে আওয়ামী লীগ সমর্থকদের সংঘর্ষে ১২ জন আহত হয়েছেন। এসময় বিএনপি-জামায়াত সমর্থকদের ৮টি বাড়ি এবং দোকান ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে। এছাড়া মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার পাড়া থেকে ২ টি বোমা উদ্ধার করেছে র্যা ব-৬ গাংনী ক্যাম্প সদস্যরা।শনিবার দুপুর ১২টার সময় গাংনী পাইলট মাধ্যমিক প্রাঙ্গন থেকে ২টি তাজা বোমা উদ্ধার করে র্যা ব।র্যা ব সদস্যরা বোমাগুলো পানি ভর্তি বালতিতে করে র্যা ব কাম্পে নিয়ে আসে ।র্যা ব জানিয়েছে কেউ নাশকতা সৃষ্টির জন্য বোমাগুলো এখানে রেখে যেতে পারে।

দাগনভূঞা (ফেনী) : শনিবার ভোরে দাগনভূঞা বাজারের উপজেলা গেটে হরতাল সমর্থনকারীরা একটি গাড়িতে অগ্নি সংযোগ করেছে। উপজেলার সিন্দুরপুরের দিলপুরে শুক্রবার রাতে মিজান মেম্বার ও সাবেক ছাত্রলীগ নেতা এমদাদের বাড়িতে ৪টি বোমার বিস্ফোরণ ঘটে।

গোবিন্দগঞ্জ (গাইবান্ধা) : গতকাল সন্ধ্যা ৭ টার দিকে গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে অবরোধকারীরা অন্তত ৫০ টি যানবাহন ভাংচুর ও দুটি বাস ও ট্রাকে অগ্নিসংযোগ করেছে। নিক্ষিপ্ত ইটপাটকেলের আঘাতে ১০ জন আহত হয়। র্যাব ও পুলিশ আটকেপড়া শতাধিক যানবাহন নিয়ে রংপুরের দিকে যাবার পথে অবরোধকারীরা রাজমতি মার্কেট মোড়ে হামলা চালিয়ে যানবাহনে গুলি ও ভাংচুর করে।

সিলেট:অবরোধের আগের দিন রাতে সিলেটে ১৮ দলের ১২ জন নেতা-কর্মীকে আটক করা হয়েছে। এর মধ্যে ৫ জন ওয়ারেন্টের আসামিও রয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here