সোহেলের স্ত্রী আটক, আরও আড়াই লাখ টাকা উদ্ধার

22

kisorgonj2সুড়ঙ্গপথে কিশোরগঞ্জে সোনালী ব্যাংকের টাকা চুরির ঘটনায় জড়িত ইউসুফ মুন্সি ওরফে হাবিব ওরফে সোহেল রানার দ্বিতীয় স্ত্রী মাহিমা বেগমকে আটক করেছে পুলিশ। মাহিমা বেগমের কাছ থেকে আরও দুই লাখ ৫০ হাজার টাকা পুলিশ উদ্ধার করেছে।

কিশোরগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা (আইও) আবদুল মালেক জানান, টাকা দিয়ে স্ত্রীর সঙ্গে সম্পর্কচ্ছেদ করার পরিকল্পনা করেছিলেন ইউসুফ মুন্সি।  শুক্রবার রাতে সোহেল রানার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে  শনিবার পুলিশ ঢাকায় আসে। বিকেলে ঢাকার জুরাইন এলাকার একটি বাসা থেকে টাকাসহ তাঁর স্ত্রীকে আটক করা হয়।

পুলিশের একটি সূত্র জানায়, কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়ার চিলাকারা এলাকার হেলাল উদ্দিনের মেয়ে মহিমা বেগমকে ২০০৮ সালে সোহেল রানা বিয়ে করেন। সম্প্রতি স্ত্রীর সঙ্গে তাঁর মনোমালিন্য চলছিল।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আবদুল মালেক  জানান, সোহেল রানার দেওয়া তথ্যমতে, দুই লাখ ৫০ হাজার টাকা শনিবার বিকেলে উদ্ধার করা হয়েছে। সেই সঙ্গে তাঁর স্ত্রী মহিমাকেও গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তিনি আরও জানান, সোহেল অত্যন্ত ধূর্তপ্রকৃতির। জিজ্ঞাসাবাদে তিনি কোনো উত্কণ্ঠা প্রকাশ না করেই সবকিছু বলে দেন। তাঁর সব কথার কিছু অংশের সত্যতা পাওয়া গেছে। তিনি আরও কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছেন। তদন্তের স্বার্থে সবকিছু বলা সম্ভব হচ্ছে না। কিশোরগঞ্জে সোনালী ব্যাংকের প্রধান শাখায় সুড়ঙ্গ খুঁড়ে চোরের দল ব্যাংকের স্ট্রং রুমের ভল্টে ঢুকে ১৬ কোটি ৪০ লাখ টাকা লুটে নিয়ে যায়। কর্মকর্তা-কর্মচারীরা গত রোববার ব্যাংকে গিয়ে অর্থ লুটের ঘটনাটি বুঝতে পারে। গত মঙ্গলবার র্যাব ঢাকার শ্যামপুরের নিলয় ভবনের ছয়তলার একটি ফ্ল্যাট থেকে পাঁচ বস্তা টাকাসহ সোহেল রানা, তাঁর সহযোগী ও ছোট ভাই ইদ্রিস মুন্সিকে গ্রেপ্তার করে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here