সোমালীয় জলদস্যুদের হাত থেকে মুক্তি পেলেন ৭ বাংলাদেশি নাবিক

23
বিশেষ প্রতিনিধি

 

সোমালিয়ার জল দস্যুদের কবল থেকে সাড়ে তিন বছর পর মুক্তি পেলেন সাত বাংলাদেশি নাবিক। মুক্তি পাওয়া নাবিকরা হলেন গোলাম মোস্তফা, আমিনুল ইসলাম, হাবিবুর রহমান, জাকির হোসেন, আবুল কাশেম সরদার, লিমন সরকার ও নূরুল হক।

২০১০ সালের ২৬ নভেম্বর সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে কেনিয়া যাওয়ার পথে মালয়েশিয়ার পতাকাবাহী এমভি আলবেডো ভারত মহাসাগরে ছিনতাই হয়। এই সাত বাংলাদেশি নাবিক ওই জাহাজে ছিলেন । ছিনতাইয়ের পর জাহাজটি ডুবে গেলে নাবিকদের অন্য একটি জাহাজে তুলেছিল জলদস্যুরা। এতদিন ধরে জলদস্যুদের হাতেই আটক ছিলেন তারা। গতকাল শনিবার তাদের মুক্তি পাওয়ার খবর পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় নিশ্চিত করেছে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, মক্তি পাওয়া নাবিকরা সুস্থ রয়েছেন এবং তাদের কেনিয়ার রাজধানী নাইরোবি নেয়া হচ্ছে। নাইরোবি পৌঁছানোর পর তারা হোটেলে থাকবেন, সেখানে বাংলাদেশ দূতাবাস তাদের দেখভাল করবে। সেখানে আগা খান হাসপাতালে তাদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা হবে। গত সাড়ে তিন বছর ধরে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় আটক সাত নাবিককে উদ্ধারের জোর প্রচেষ্টা চালায়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাদের উদ্ধারের জন্য সর্বাত্মক নির্দেশ দেন। শিগগিরই তাদের বাংলাদেশে ফিরিয়ে আনার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী এএইচ মাহমুদ আলী ব্যক্তিগতভাবে এ বিষয় তদারকি করেন। মন্ত্রণালয়ের পক্ষে সচিব ( মেরি টাইম ইউনিট) নাবিকরা নিখোঁজ হওয়ার প্রথমদিন থেকেই দেশে-বিদেশে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখেন।

ইরানের এক ব্যক্তির মালিকানাধীন আলবেডো ছিনতাই হওয়ার সময় এতে ২২ জন নাবিক ছিলেন, তাদের মধ্যে ৭ বাংলাদেশি ছাড়া ৭ জন পাকিস্তানের, ৬ জন শ্রীলঙ্কার, ১ জন ভারতের এবং ১ জন ইরানের।

২০১০ সালে ছিনতাই হওয়ার পর জলদস্যুদের নিয়ন্ত্রণে থাকা অবস্থায় ২০১৩ সালের ৭ জুলাই আলবেডো ডুবে যায়। এই নাবিকদের তখন ছিনতাই করা আরেকটি জাহাজ নাহাম-৩ এ তোলা হয় বলে ইইউ নেভাল ফোর্স জানিয়েছিল। সোমালিয়ার জলদস্যুদের হাত থেকে সাধারণত মুক্তিপণ দিয়েই নাবিকদের উদ্ধার করতে হয়। তবে নীতিগতভাবে কোনো দেশের সরকারই জলদস্যুদের মুক্তিপণ দিতে পারে না। তাই স্বদেশী এই নাবিকদের উদ্ধারে এমপিএইচআরপি’র দ্বারস্থ হয় বাংলাদেশ সরকার। সংস্থার কর্মকর্তারা বাংলাদেশে এসে চট্টগ্রামে গিয়ে জিম্মি নাবিকদের পরিবারের সঙ্গে কথাও বলেন। এদিকে মুক্তি পাওয়ার পর পাকিস্তানি নাবিক তার দেশের পথে রয়েছেন বলে দেশটির টেলিভিশন চ্যানেল জিও নিউজ জানিয়েছেন। ভারতের নাবিক জলদস্যুদের নিয়ন্ত্রণে থাকা অবস্থায় মারা যান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here