শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের গ্যারান্টি দেয়া যাচ্ছে না তবে অবরোধ ভেঙে ভোটাররা স্বতস্ফূর্তভাবে ভোট-কেন্দ্রে উপস্থিত হবেন।: এইচ টি ইমাম

13

HT Imamপ্রধানমন্ত্রীর সাবেক জনপ্রশাসন-বিষয়ক উপদেষ্টা ও আওয়ামী লীগের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির কো-চেয়ারম্যান এইচ টি ইমাম বলেছেন, ‘বর্তমান পরিস্থিতিতে সংসদ নির্বাচন পুরোপুরি শান্তিপূর্ণ হওয়ার ব্যাপারে গ্যারান্টি দেয়া যাচ্ছে না। তবে আমরা চেষ্টা করব নির্বাচন যাতে শান্তিপূর্ণ হয় এবং ভোটাররা নির্ভয়ে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারে।’ আজ মঙ্গলবার প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী রকিবউদ্দীন আহমদের সঙ্গে সাক্ষাত্ শেষে তিনি এ সব কথা বলেন।

ভোটারদের উদ্দেশ্যে এইচ টি ইমাম বলেন, ‘বিরোধী জোট বিভিন্নভাবে সহিংসতা করে যাচ্ছে। এখন আবার টানা অবরোধ ডেকেছে। শতভাগ নিরাপত্তা দিয়ে ভোট-কেন্দ্রে আনা হবে। আশা করছি—বিরোধীদলের অবরোধ ভেঙে ভোটাররা স্বতস্ফূর্তভাবে ভোট-কেন্দ্রে উপস্থিত হবেন।’

আগামী ২ জানুয়ারি রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আওয়ামী লীগের নির্বাচনী জনসভার বিষয়ে অনুমতির বিষয়ে বিকাল সোয়া ৪টা থেকে এক ঘণ্টা প্রধান নির্বাচন কমিশনারের (সিইসি) সঙ্গে দেখা করেন এইচ টি ইমাম এবং প্রধানমন্ত্রীর সাবেক উপদেষ্টা ড. মশিউর রহমান।

জনসভার বিষয়ে এইচ টি ইমাম বলেন, ‘জনসভার বিষয়ে অনুমতি প্রসঙ্গে নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে আলোচনা করতে এসেছি। আমরাও নিজেদের মধ্যে আলোচনা করে বিষয়টি নিয়ে কনফিউজড ছিলাম। কেননা, নির্বাচনী আচরণ-বিধি অনুযায়ী, ৪০০ বর্গফুটের জায়গা ও তিনটির বেশি মাইক ব্যবহারের সুযোগ নেই। সে কারণে কমিশন আমাদের এ জনসভা না করার পরামর্শ দিয়েছে।’

রাজনৈতিক সহিংসতার জন্য জামায়াত দায়ী উল্লেখ করে এইচ টি ইমাম বলেন, ‘দেশের বর্তমান সহিংসতা বিরোধীদল করছে না, করছে জামায়াত-শিবির ও অন্যরা। এরা দেশে একটা অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরি করতে চায়। তাদের মূল উদ্দেশ্য নির্বাচন বানচাল নয়, যুদ্ধাপরাধীদের বাঁচানো। তবে বিএনপি যেহেতু জামায়াতের স্বার্থ দেখছে এবং তাদের চাহিদা অনুযায়ী অবরোধ দিচ্ছে সুতরাং তারাও জড়িত। এরা মূলত রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে যুদ্ধ শুরু করেছে।’

৫ জানুয়ারি নির্বাচন হয়ে গেলে বিরোধীদলের সঙ্গে সমঝোতা হবে কি না, জানতে চাইলে এইচ টি ইমাম বলেন, ‘আলোচনা-সমঝোতার পথ সব সময় খোলা। আমাদের সভানেত্রী শেখ হাসিনা তো এই বিষয়ে আগেই বলেছেন। তারা সহিংসতার পথ পরিহার করলে—সবই সম্ভব।’

নির্বাচন প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ হবে উল্লেখ করে এইচ টি ইমাম বলেন, ‘দেশের ৫৯টি জেলার ১৪৭টি আসনে নির্বাচন হবে। বিরাট এলাকাজুড়ে নির্বাচন হবে। সারা দেশে ব্যাপক উত্সাহ-উদ্দীপনা লক্ষ করা যাচ্ছে। আমাদের কাছে তথ্য আছে—এই নির্বাচনগুলো প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ হবে। দেশি-বিদেশি পর্যবেক্ষকরাও উপস্থিত থাকবেন।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here