রাজধানীতে অবরোধে দুর্ভোগ, বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষ

9

image_88582.pngপ্রধান নির্বাচন কমিশনারের গতকাল সোমবার নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর তা প্রত্যাখ্যান করে বিরোধী দলের ডাকা ৪৮ ঘণ্টার অবরোধে আজ মঙ্গলবার রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে দুর্ভোগে পড়েছে সাধারণ মানুষ।

গাবতলী এলাকায় বিপুল সংখ্যক র‌্যাব, পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। অবরোধকারীরা সকাল ১০টা থেকে সেখানে অবস্থান নিয়ে মিছিল করেছে। বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষের ঘটনাও ঘটেছে। দুটি ককটেল বিস্ফোরণ করেছে অবরোধ সমর্থকরা। বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে সেখানে। এ ঘটনায় গাবতলী ও আমিনবাজার সংলগ্ন বিভিন্ন স্থানে পুলিশ তল্লাশি চালাচ্ছে বলে সূত্র জানিয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, বিএনপির নেতা-কর্মীরা গাবতলীর পশ্চিম পাশে আমিনবাজারে অবস্থান নিতে শুরু করে সকাল ১০টার আগে থেকেই। সাভার থেকে আসা বেশ কয়েকটি বাসের যাত্রীদের নামিয়ে দেন তারা। অবরোধকারীরা একটি মিছিল নিয়ে গাবতলীর দিকে যেতে চাইলে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) সদস্যরা তাদের বাধা দেয়। বিএনপি নেতা আমানউল্লাহর নেতৃত্বে একটি মিছিল সাভার থেকে আমিনবাজার এলাকায় এসে মহাসড়কের ওপর সমাবেশ করে। তিনি বলেন, আমরা কোনো গাড়ি ভাঙচুর করব না। শান্তিপূর্ণ সমাবেশ করব।

এর পরপরই হ্যান্ড মাইকে মিছিলকারীদের চলে যেতে বলে বিজিবি। সকাল সোয়া ১০টার দিকে মিছিলকারীরা আমিনবাজার এলাকার রাস্তার পাশে অবস্থান নেন। সেখানে পুলিশের সঙ্গে বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষ ঘটে। দুটি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায় তারা। নাশকতার আশঙ্কায় বিপুল পরিমাণ আইন শৃঙ্খলা বাহিনী অবস্থান করছে।

এদিকে, নগর পরিবহনের বাস বন্ধ থাকার পাশাপাশি আজ সকাল থেকেই রাজধানীর সায়দাবাদ, মহাখালী ও গাবতলী থেকে দূরপাল্লার বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। বাবুবাজার, পোস্তগোলা ব্রিজ দিয়ে বাস চলাচল না করলেও হিউম্যান হলার, অটোরিকশাসহ ছোট যানবাহন্ চলাচল করছে বলে জানা গেছে। সদরঘাটে লঞ্চও চলছে কম। মিরপুর, মহাখালী, ফার্মগেট, নয়াপল্টন, দিলকুশা এলাকায় উল্লেখ করার মতো অবরোধকারীদের ততত্পরতা এখনো দেখা যায় নি।

সকাল নয়টার দিকে বিএনপির নয়াপল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে নেতা-কর্মীরা ছিলেন না। কার্যালয়ে ভেতর থেকে তালা দেওয়া রয়েছে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা সেখানে অবস্থান করছেন।

পুলিশের মতিঝিল বিভাগের অতিরিক্ত উপকমিশনার আসাদুজ্জামান জানান, জননিরাপত্তা জন্য নয়াপল্টনসহ সংশ্লিষ্ট এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। শহরের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ মোড়েও অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা রাজপথে টহল দিচ্ছেন।

লালবাগ পুলিশের অতিরিক্ত উপ কমিশনার আবদুস সালাম জানান, আজ সকাল থেকে বিরোধী দলের কোনো মিছিল বা কোনো গোলযোগের খবর তিনি পাননি। বাস না চললেও ছোট ছোট বিভিন্ন পরিবহনে মানুষ চলাফেরা করছে।

বিআইডিব্লিউটিসি সূত্র জানায়, দেশের দক্ষিণাঞ্চল থেকে আগের রাতে ছেড়ে আসা ৩৩টি লঞ্চ ভোরে ঢাকার সদরঘাটে এসে পৌঁছেছে। আর সকাল ৮টা পর্যন্ত চাঁদপুরের উদ্দেশে ছেড়ে গেছে তিনটি লঞ্চ।

সকালে সদরঘাটে পৌঁছে যানবাহন না পেয়ে অনেক যাত্রী গন্তব্যে পৌঁছাতে সমস্যায় পড়েন।

বিভিন্ন সড়কে অটোরিকশা, হিউম্যান হলার ও রিকশা চলাচল করলেও বাস না পেয়ে বিভিন্ন মোড়ে অফিসগামী যাত্রীদের দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায়। বহু মানুষকে হেঁটেই গন্তব্যে পৌঁছানোর চেষ্টা করতে দেখা যায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here