মোদির প্রথম সফর ‘ঢাকায়’, হতে পারে তিস্তা চুক্তি

17

 

শপথ গ্রহণের পর নরেন্দ্র মোদির প্রথম সফর ঢাকা হতে পারে। এই সফরে বহুপ্রতীক্ষিত তিস্তার পানি বন্টন চুক্তি স্বাক্ষরিত হতে পারে। আজ বৃহস্পতিবার ভারতের শীর্ষস্থানীয় ব্যবসা বিষয়ক সংবাদপত্র ‘বিজনেস স্ট্যান্ডার্ড’ এর প্রতিবেদনে এ কথা জানানো হয়।

কূটনৈতিক সূত্রের বরাত দিয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, তিস্তা চুক্তির বিষয়ে মোদির সাথে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ফোনালাপ হয়েছে। ফোনালাপে শেখ হাসিনা মোদিকে তার প্রথম সফর হিসেবে বাংলাদেশ বেছে নেয়ার অনুরোধ জানান। একই সঙ্গে একই সঙ্গে ঢাকাকে তার ‘দ্বিতীয় বাড়ি’ হিসেবে বিবেচনার অনুরোধ জানান তিনি।

সূত্র জানায়, নরেন্দ্র মোদি ও শেখ হাসিনরা ফোনালাপের একটি বড় অংশ জুড়ে ছিল তিস্তার পানি বন্টন বিষয়টি।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মোদি হাসিনাকে জানিয়েছেন, শক্তিশালী দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক স্থাপনে তিনি ‘বাস্তবানুগ ও অর্থপূর্ণ’ সিদ্ধান্ত নেবেন।

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপ্যাধ্যায়ের বিপরীতে যেয়ে ইউপিএ (ইউনাইটেড প্রোগ্রেস অ্যালাইন্স) পানি বন্টন চুক্তি বাস্তাবায়ন করতে পারেনি। কিন্তু মোদির বিজেপি (ভারতীয় জনতা পার্টি) লোকসভায় বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করেছেন। তিনি পানি যে ভারতের রাষ্ট্রীয় ইস্যু এটি মমতাকে বোঝাতে পারবেন।

সূত্র জানিয়েছে, রাজ্যের উন্নয়নে অর্থনৈতিক প্যাকেজ নিয়ে তিস্তা চুক্তি বিষয়ে মমতা বন্দোপাধ্যায়কে রাজি করাতে পারেন। চুক্তির বিষয়ে সিকিমের মুখ্যমন্ত্রী পাওয়ান কুমার চামলিংকেও রাজি করাতে পারেন।

প্রতিবেশী দেশগুলো সঙ্গে বাণিজ্যিক ও সুসম্পর্ক স্থাপনে তিস্তা চুক্তি হবে নরেন্দ্র মোদির প্রথম পদক্ষেপ বলে দাবি করেছে বিজনেস স্ট্যান্ডার্ড পত্রিকাটি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here