মুক্তিযুদ্ধের শুরু আছে, শেষ নেই, ওই অর্বাচীন ছেলে যা বলছে সেটি তার মা অনুমোদন দিচ্ছে : আসাদুজ্জামান নূর

13

nilphamariতারেক রহমানের সমালোচনা করে সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদজ্জামান নূর এমপি বলেছেন, দেশের স্বাভাবিক পরিস্থিতিকে আবারও বিপদগ্রস্ত করার অপচেষ্টা চলছে। ওই অর্বাচীন ছেলে যা বলছে, একটি রাজনৈতিক দলের প্রধান তাঁর মা বেগম খালেদা জিয়া সেটিকে অনুমোদন দিচ্ছেন। আজ শনিবার বিকেলে নীলফামারী শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে জেলা ছাত্রলীগের সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ কথা বলেন।
মন্ত্রী বলেন, ওই ছেলে যা বলছে, সেটিকে সাধারণভাবে পাকালো কথা বলে ধরা যেতে পারে। কিন্তু এখানে সেটিও বলা যাচ্ছে না। কারণ একটি রাজনৈতিক দল সে কথাকে অনুমোদ দিচ্ছে। গত নির্বাচনের আগে বোমা মেরে ছিন্নভিন্ন করে মানুষ হত্যা করেও তারা ক্ষান্ত হয়নি। জ্বালাও পোড়াও, দেশের সম্পদ ধ্বংসের ওই আন্দোলনে জনগণের সম্পৃক্ততা না থাকায় ব্যর্থ হয়েছে তারা। এখন দেশে ট্রেন চলছে, বাস চলছে, সচল হয়েছে অর্থনীতির চাকা। কিন্তু বিএনপি-জামায়াতের ওই অপচেষ্টা থামেনি আজও। মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তিকে বিপদগ্রস্ত করে আবারও অস্থিতিশীল করতে চায় দেশ।
এ সময় ছাত্রদের উদ্দেশে তিনি বলেন, মুক্তিযুদ্ধের শুরু আছে, শেষ নেই। প্রকৃত অর্থে মুক্তি পেতে হলে লেখাপড়া করতে হবে। আর আদর্শের রাজনীতি করতে জ্ঞানের প্রয়োজন। মূর্খ থাকলে রাজনীতি করা যায় না। লেখাপড়া শিখে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের প্রকৃত সৈনিক হয়ে ওই অপরাজনীতি প্রতিহত করার আহ্বান জানান।
নীলফামারী জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি দীপক চক্রবর্তীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সম্মেলনের উদ্বোধন করেন ছাত্রলীগের সভাপতি বদিউজ্জামান সোহাগ। এ সময় বক্তৃতা করেন নীলফামারী-১ (ডোমার-ডিমলা) আসনের সংসদ সদস্য আফতাব উদ্দীন সরকার, নীলফামারী-৩ (জলঢাকা-কিশোরগঞ্জ আংশিক) আসনের সংসদ সদস্য গোলাম মোস্তফা, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মমতাজুল হক, ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকী নাজমুল আলম নীলফামারী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মমতাজুল হক, আওয়ামী লীগের সহসম্পাদক কামরুল হাসান খোকন, সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুজার রহমান প্রমুখ। সভা পরিচালনা করেন জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নাঈম ইসলাম জীবন।
সন্ধ্যায় মন্ত্রী সাত কোটি সাড়ে ১১ লাখ টাকা ব্যয়ে সাড়ে ১১ কিলোমিটার নীলফামারী-ভবানীগঞ্জ জিসি সড়কের নির্মাণকাজ উদ্বোধন করেন শহরের কৃষি ফার্ম মোড়ে। স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের তত্ত্বাবধনে ওই সড়কটি নির্মাণ হচ্ছে বলে জানান সদর উপজেলা প্রকৌশলী মতিয়ার রহমান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here