ফালাইয়া মাদ্রাসার শিবির ক্যাডাররা জ্বালিয়ে দিল পশ্চিম বিজয় সিংহ উচ্চ বিদ্যালয়

95

feni2

নাসির দ্রুবতারাঃ জনতার নিউজ

 

শিবিরি ক্যাডারদের অভয়ারণ্য হিসেবে পরিচিত ফেনি পৌরসভা রোডে অবস্থিতও আল-জামিয়াতুল ফালাইয়া মাদ্রাসায় অবস্থানরত শিবিরি ক্যাডাররা জ্বালিয়ে দিল পশ্চিম বিজয় সিংহ উচ্চ বিদ্যালয়। এই মাদ্রাসাটির প্রতিষ্ঠাতা চৌদ্দগ্রাম আসনের সাবেক এমপি রাজাকার জামাতি এমপি আবদুল্লা আবু তাহের । আর মাদ্রাসাটরি অধ্যক্ষ তারই বিশ্বস্ত অনুচর মহাজোট সরকারের সময় চৌদ্দগ্রাম সরকারি কলেজের বহিষ্কৃত অধ্যক্ষ লিয়াকত আলী । বিগত জামাত-জোট সরকারের সময় অধ্যক্ষ লিয়াকত আলী জামাতি তৎকালীন এমপি আবদুল্লা আবু তাহরের নির্দেশে চৌদ্দগ্রাম সরকারি কলেজটিকে জামাতের ঘাঁটি ও নির্যাতন কেন্দ্রে পরিণত করেন । মূলত ফেনি চট্টগ্রাম, ঢাকা, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর ও চাঁদপুর এর ট্রানজটি পয়ন্টে হওয়ায় আল-জামিয়াতুল ফালাইয়া মাদ্রাসাটিকে তাদের দ্বিতীয় হেড-কোয়ার্টার হিসেবে নির্বাচিত করেন জামাতি তৎকালীন এমপি আবদুল্লা আবু তাহের এবং তাঁরই ইচ্ছা অনুসারে উক্ত মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল হিসেবে নিয়োগ পান অধ্যক্ষ লিয়াকত আলী । এখানে বিভিন্ন জেলার জামাত ক্যাডাররা অবস্থান করে বলে ভুরিভুরি অভিযোগ আছে । জাতীয় নির্বাচনের পূর্বে সাধারণ মানুষ অতিষ্ঠ হয়ে মাদ্রাসাতে অগ্নিসংযোগ করে । পশ্চিম বিজয় সিংহ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জানান, গত ৩১ র্মাচ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী ইমন ও আল-জামিয়াতুল ফালাইয়া মাদ্রাসার দাখিল পরীক্ষার্থী রাহী স্কুলে ছাত্র ভর্তি ও শিবিরের কার্যক্রম চালানো বিষয়ে গণ্ডগোল করলে তাদেরকে পুলিশে দেয়া হয়। এসময় তারা শিবিরের বিভিন্ন সরকার বিদ্বেষী লিফলেট বিলি করছিলেন। তবে অভিভাবকরা এসে অনুরোধ করলে পরদিন বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি তাদের থানা থেকে ছাড়িয়ে নিয়ে আসে।
আর এই ঘটনার জের ধরেই শিবির ক্যাডররা ফেনি সদরে পশ্চিম বিজয় সিংহ উচ্চ বিদ্যালয় জ্বালিয়ে দেয় বলে অনুসন্ধানে জানা যায় । আল-জামিয়াতুল ফালাইয়া মাদ্রাসাটিতে অবস্থান করে সারাদেশে নাশকতার অভিযোগ রয়েছে । কিন্তু অদ্যাবধি ব্লক রেইড করে এই মাদ্রাসায় যৌথ বাহিনীর বড় কোন অভিযান ও তল্লাশি পরিচালিত হয়নি । মাদ্রাসাটির চারপাশে কিছু বাসা ভাড়া নিয়ে গড়ে তোলা হয়ছেে শিবির ছাত্রাবাস। বুধবার ভোরে পাঁচগাছিয়া ইউনিয়নে অবস্থিত এ বিদ্দালয়ে পেট্রোল ঢেলে আগুন দেয়া হয়। পরে ফায়ার সার্ভিস গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।পুরো বিদ্যালয় পুড়ে যাওয়ায় ক্লাস ও র্অধ-বার্ষিক পরীক্ষা নিয়ে শংকায় রয়েছে বিদ্যালয়ের চারশ’ শিক্ষার্থী। জেলা প্রশাসক, উপজেলা চেয়ারম্যান, উপজেলা নির্বাহী র্কমকর্তা, পৌর মেয়র, স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানসহ পুলিশ ও রাব কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরদর্শন করেছেনে। ফেনি জেলা ছাত্র শিবিরের সভাপতি জাহিদ হোসেন এ ঘটনার সঙ্গে তাদের নেতাকর্মীদের সংশ্লষ্টিতার কথা অস্বীকার করেছেন। তিনি জানান, রাহী পশ্চিম বিজয় সিংহ ওয়ার্ডের শিবিরি সভাপতি এবং ইমন পশ্চিম বিজয় সিংহ উচ্চ বিদ্যালয় শাখা শিবিরের সভাপতি।feni 1
ফেনি সদরের ইউএনও এনামুল করিম জানান, জেলা প্রশাসক ও উপজলা চেয়ারম্যানসহ স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সহযোগিতায় বিদ্যালয়ের মাঠে একটি অস্থায়ী স্থাপনা নির্মাণ করা হবে।এ অস্থায়ী স্থাপনাতেই আপাতত ক্লাস শুরু করা হবে বলে জানান তিনি।ফেনি মদেল থানার ওসি মাহবুব মরশেদ জানান, স্কুলের প্রধান শিক্ষক লিখিত অভযোগ দিয়েছেন। তদন্ত করে দ্রুত আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চালানো হবে।পশ্চিম বিজয় সিংহ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বেলাল হোসেন জানান, পুরো বিদ্যালয়ের পাঁচটি শ্রেণীকক্ষ, একটি লাইব্রেরি ও একটি অফিস কক্ষ ভস্মীভূত হয়ছে।এতে বিদ্যালয়ের ১২০ জোড়া বেঞ্চ, দুই হাজার দুইশ’ বই, তিনটি ল্যাপটপ, দুটি কম্পিউটার, তিনটি আলমারি, পাঁচটি ভিডিওি প্রজক্টের, সাউন্ড সিস্টেমসহ সব আসবাবপত্র পুড়ে যায়। অনেকদিন চুপ থাকার পর রাজাকার নিজামি,সাঈদীর রায় আসন্ন বিধায় তাদের শক্তি জানান দিতে এবং তাদের র্কাযক্রমে বাধা দেয়ায় স্কুলটি জ্বালয়িে দওেয়া হয় ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here