প্রধানমন্ত্রী জাপান যাচ্ছেন আজ, ৬ জুন চীন

17

pm

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ শনিবার চার দিনের এক সরকারি সফরে জাপান যাচ্ছেন। জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো অ্যাবের আমন্ত্রণে এই সফর। তৃতীয় দফায় প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর শেখ হাসিনা এই প্রথম দ্বিপাক্ষিক সফরে জাপান যাচ্ছেন। তার এই সফরের মধ্য দিয়ে ঢাকা-টোকিও দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কে নতুন মাত্রা যুক্ত হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

এই সফরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাপানের কাছ থেকে বাংলাদেশের অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্পের জন্য কয়েকশ’ কোটি ডলারের সহায়তা চাইবেন। এসব প্রকল্পের মধ্যে রয়েছে দেশের দক্ষিণভাগে দ্বিতীয় পারমাণবিক বিদ্যুত্ প্রকল্প, যমুনার ওপর বঙ্গবন্ধু সেতুর সমান্তরালে একটি রেল সেতু, ফুলছড়ি এবং বাহাদুরবাদ ঘাট বরাবর একটি টানেল অথবা সেতু, জাপানি বিনিয়োগকারীদের জন্য এক্সক্লুসিভ ইকনমিক জোন এবং কালনা সেতু নির্মাণসহ মাওয়া-খুলনা-নড়াইল-যশোর সড়কের উন্নয়ন।

প্রধানমন্ত্রীর অফিস নথির সূত্র অনুযায়ী, তিনি গঙ্গা ব্যারেজ প্রকল্প ছাড়াও কয়েকটি বহুমুখী প্রকল্পে জাপানের সহায়তা কামনা করতে পারেন। গত ১৫ জানুয়ারি চীনের কাছ থেকে সরকার যমুনা এবং গঙ্গা ব্যারেজ প্রকল্পে রেল সেতু নির্মাণের জন্য ১০০ কোটি ডলার আর্থিক সহায়তা চেয়েছে।

সূত্র জানায়, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো অ্যাবের সঙ্গে ২৬ মে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করবেন। জাপানে এটি প্রধানমন্ত্রীর তৃতীয় সফর এবং বর্তমান মেয়াদে প্রথম। এর আগে তিনি ১৯৯৭ এবং ২০১০ সালে জাপান সফর করেছিলেন। জাপান থেকে ফেরার সপ্তাহখানেক পর তিনি চীন সফরে যাবেন। কয়েকটি প্রকল্প বাস্তবায়নে জাপানি সহায়তার জন্য এই সফরে একাধিক চুক্তি স্বাক্ষর হবে।

প্রধানমন্ত্রী জাপান সফর থেকে দেশে ফিরবেন ২৯ মে। তার চীন সফরের মেয়াদকাল হবে ৬ থেকে ১১ জুন। চীন সরকারের সঙ্গেও অবকাঠামো প্রকল্প উন্নয়ন সংক্রান্ত বেশ কিছু চুক্তি স্বাক্ষর করবেন তিনি।

বাংলাদেশে নিযুক্ত জাপানের রাষ্ট্রদূত শিরো সাদোশিমা বুধবার সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এই সফরে ঢাকা-টোকিও দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক নতুন মাত্রা পাবে। বাংলাদেশের অন্যতম উন্নয়ন সহযোগী জাপান। দেশটি বাংলাদেশের দারিদ্র্য বিমোচন, ভৌত অবকাঠামো, বিদ্যুত্ উত্পাদন, মানব সম্পদ উন্নয়নসহ বিভিন্ন খাতে আর্থিক সহযোগিতা দিয়ে আসছে।

আজ রাত ১২টার দিকে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি বিশেষ ফ্লাইটে তিনি টোকিওর উদ্দেশে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ত্যাগ করবেন। টোকিও যাওয়ার পথে প্রধানমন্ত্রীকে বহনকারী ভিভিআইপি ফ্লাইট হংকং আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে প্রায় দেড় ঘণ্টা যাত্রাবিরতি করবে। আগামীকাল রবিবার স্থানীয় সময় বেলা একটায় প্রধানমন্ত্রী টোকিও হানেদা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছবেন। বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানাবেন জাপানে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন এবং জাপানের পররাষ্ট্র বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রটোকল প্রধান শিজেউকি হিরোকি। বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে উষ্ণ অভ্যর্থনা জানানো হবে। তাকে মোটর শোভাযাত্রা সহকারে টোকিওর রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন আকাসাকা প্যালেসে নিয়ে যাওয়া হবে। জাপান সফরকালে তিনি এই প্যালেসে অবস্থান করবেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here