পুলিশ কর্মকর্তা হত্যা চেষ্টা মামলায় মিনুর জামিন

11

minuরাজশাহীর বোয়ালিয়া মডেল থানা পুলিশের সাবেক পরিদর্শক (তদন্ত) খান মোহাম্মদ শাহরিয়ারকে গুলি করে হত্যা চেষ্টা মামলায় বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব মিজানুর রহমান মিনুকে জামিন দিয়েছে আদালত। আজ বৃহষ্পতিবার দুপুর ১২টার দিকে রাজশাহী মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক আশরাফুল ইসলাম তাকে অন্তর্বর্তীকালীন জামিন দেন।

মিজানুর রহমান মিনুর আইনজীবী অ্যাডভোকেট আলী আশরাফ মাসুম জানান, আইনগত প্রক্রিয়া শেষে আজ সন্ধ্যা নাগাদ রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে তিনি মুক্তি পেতে পারেন।

গত মঙ্গলবার এই মামলায় আইনজীবীর মাধ্যমে রাজশাহীর প্রথম মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির হয়ে জামিন আবেদন করেন। শুনানি শেষে বিচারক তা নামঞ্জুর করে তাকে জেলহাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

এই মামলায় পুলিশ গত ৪ ফেব্রুয়ারি বিএনপি নেতা মিজানুর রহমান মিনু ও রাজশাহী সিটি মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলসহ ১৩৩ জন বিএনপি নেতা-কর্মীর বিরুদ্ধে রাজশাহীর চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন।

চার্জশীটে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা বোয়ালিয়া মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) নজরুল ইসলাম উল্লেখ করেন, ২০১১ সালের ৪ জুন বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব মিজানুর রহমান মিনুর নেতৃত্বে ভুবন মোহন পার্ক থেকে ২৫০-৩০০ বিএনপি ও জামায়াত-শিবিরকর্মী জঙ্গি মিছিল করে। এ সময় মিছিলকারীরা পুলিশের ওপর বিক্ষিপ্তভাবে হামলা ও গুলিবর্ষণ করে। তাদের হামলায় পুলিশের পরিদর্শক খান মোহাম্মদ শাহরিয়ার, নায়েক খলিলুর রহমান, কনস্টেবল নুরুজ্জামান ও মাহবুবুর রহমান আহত হন। গুলিবিদ্ধ পুলিশ কর্মকর্তা খান মোহাম্মদ শাহরিয়ারকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এছাড়া বিএনপি ও জামায়াত-শিবিরকর্মীরা সাহেব বাজার এলাকায় ভাঙচুর চালায়। এ ঘটনায় এসআই জাহাঙ্গীর আলম বাদী হয়ে ১১৯ জনের নামে মামলা দায়ের করেন। পরে তদন্তে আরো ১৪ জনের সম্পৃক্ততা পাওয়া যায়। তাদের সবার বিরুদ্ধেই চার্জশিট দাখিল করা হয়েছে।

চার্জশীটে আরও উল্লেখ করা হয়েছে— হামলা, ভাঙচুর ও গুলির ঘটনা তদন্তে প্রমাণিত হওয়ায় রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের বর্তমান মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল, সাবেক মেয়র বিএনপির কেন্দ্রীয় যুগ্ম-মহাসচিব মিজানুর রহমান মিনু, মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শফিকুল হক মিলন, সহ-সভাপতি নজরুল হুদা, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান শরীফ ও সাইদুর রহমান, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি শফিকুল আলম সমাপ্তসহ ১৩৩ জনকে অভিযুক্ত করা হয়।

প্রসঙ্গত, রাজশাহী নগরীতে পুলিশ কনস্টেবল সিদ্ধার্থ হত্যা ও বিস্ফোরক মামলায় গত ২৪ ফেব্রুয়ারি আদালত মিনুসহ বিএনপির ৩৪ নেতাকর্মীকে কারাগারে পাঠায়। হাইকোর্টের ছয় মাসের অন্তর্বর্তীকালীন জামিন পেয়ে ১৪ দিন কারাভোগের পর মিজানুর রহমান মিনু, রাসিক মেয়র ও বিএনপির কেন্দ্রীয় সদস্য মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল ও মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শফিকুল হক মিলন ৯ মার্চ মুক্তি পান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here