পুলিশ আমায় সালাম দেয় ডিবির হাতে গ্রেফতারকৃত মাদক ব্যবসায়ী শফিকুল

23

shafiqulআওয়ামী লীগ নেতা আমার ভাই, তাই পুলিশ আমাকে সালাম দেয়। এ কারণে এলাকায় আমার বিরুদ্ধে কেউ টু শব্দ করে না। আর এই দাপটের জন্য বালু ব্যবসার আড়ালে চুটিয়ে মাদক ব্যবসা চালিয়েছি।’

ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) জিজ্ঞাসাবাদে এ কথা বলেছেন কুষ্টিয়ার ভেড়ামারার বাসিন্দা মাদক ব্যবসায়ী হাজী শফিকুল ইসলাম। ডিবি পুলিশের একটি টিম গত সোমবার গভীর রাতে ভেড়ামারা লালন শাহ সেতুর পশ্চিম প্রান্ত থেকে তাকে ফেনসিডিলসহ গ্রেফতার করে। আর গ্রেফতারের পরপর তার সহযোগীরা অপহরণের অভিযোগ তুলে তার প্রতিপক্ষ বারোদাগ গ্রামের মন্টু সরদারের ছেলে মাহাবুল ইসলামের বাড়িতে আগুন দেয়। পরবর্তীতে ভেড়ামারা থানার মাধ্যমে এলাকাবাসী জানতে পারে ডিবি পুলিশ তাকে ফেনসিডিলসহ গ্রেফতার করেছে।

শফিকুলের বাড়ি কুষ্টিয়া ভেড়ামারা উপজেলার বাহিরচরের বারদাগ। তার চাচাতো ভাই আবু বক্কর সিদ্দিক ভেড়ামারা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি। শফিকুল নিজেও আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত।

ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের অপরাধ তথ্য বিভাগের ক্রাইম এনালাইসিস টিমের ( উত্তর) পরিদর্শক দুলাল হোসেন বলেন, সোমবার রাজধানীর তুরাগ এলাকার কামারপাড়া ব্রীজ এলাকায় অভিযান চালিয়ে গ্রেফতার করা হয় শফিকুল ইসলামের সহযোগী আল আমিনকে। তার কাছ থেকে উদ্ধার করা হয় ৩০৫ বোতল ফেনসিডিল। এরপর তার দেয়া তথ্য মতে রাতে ভেড়ামারার লালনশাহ সেতুর কাছ থেকে ২৫৫ বোতল ফেনসিডিলসহ গ্রেফতার করা হয় শফিকুল ইসলামকে। পরে সংশ্লিষ্ট থানাকে অবহিত করে তাকে মাইক্রোবাসে করে ঢাকায় নিয়ে আসা হয়।

মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ শফিকুল ইসলাম ও তার সহযোগী আল আমিনকে গতকাল বুধবার দুই দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছে। ডিবি সূত্র জানায়, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে শফিকুল ইসলাম জানায়, বালু ব্যবসার আড়ালে গত কয়েক বছর ধরে সে মাদক ব্যবসার সঙ্গে জড়িত ।

তার ভাইয়ের ( আওয়ামী লীগ নেতা) কারণে পুলিশ তার বিরুদ্ধে কখনোই টু শব্দটি করেনি। বরং পুলিশ তাকে সালাম দিত। সে আরও জানায়, সীমান্ত এলাকা থেকে ফেনসিডিল সংগ্রহ করে সে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করে থাকে।

ডিবি পরিদর্শক দুলাল হোসেন বলেন, দীর্ঘদিন মাদক ব্যবসার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে শফিকুল ইসলাম জানিয়েছে, সে কখনও ভাবতে পারেনি পুলিশের হাতে তাকে গ্রেফতার হতে হবে। তবে ধরা পড়ার পর সে বুঝতে পেরেছে তার এ ধারণা ভুল ছিল। ডিবি পরিদর্শক আরও বলেন, তার অপর সহযোগীদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

ভেড়ামারা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) বলেন, শফিকুল ইসলামকে গোয়েন্দা পুলিশ গ্রেফতার করার পর তার সহযোগীরা ধরে নিয়েছিল তার প্রতিপক্ষরা তাকে অপহরণ করেছে। আর এ অভিযোগে প্রতিপক্ষ বালু ব্যবসায়ীর বাড়িতে তারা হামলা চালায়। তিনি আরও বলেন, শফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে থানায় অস্ত্র, মাদক ও হত্যা মামলা রয়েছে। এদিকে শফিকুল ইসলামের দেয়া তথ্য অনুযায়ী গত মঙ্গলবার মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ রাজধানীর নিউমার্কেট ও বড় মগবাজার এলাকা থেকে ৬৭০ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার করেছে। গ্রেফতার করেছে খোরশেদ আলম ওরফে শরীফ, জসিম ও মাসুদ নামে তিন মাদক ব্যবসায়ীকে। আটক করেছে একটি পিক-আপ ভ্যান। তাদেরকে গতকাল রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছে ডিবি পুলিশ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here