নোয়াখালীতে শিবিরের অপকর্মের বিরুদ্ধে রিপোর্ট করায়, জনতার নিউজের রিপোর্টাকে পুলিশের সহযোগিতায় নাজেহাল।

21

nk 1nk3nk4nk5

 

শিবিরের ট্রেনিং এর নামে বিভিন্ন অপকর্মের

ফটো, তারা মূলত কোমলমতি ছেলে মেয়েদের

 

জংগী ট্রেনিং দিচ্ছেন।

গত কয়েক সপ্তাহ ধরে নোয়াখালীতে জামাত-শিবিরের বিভিন্ন অপকর্ম সম্পর্কে জনতার নিউজে রিপোর্ট করার কারনে নোয়াখালীর শিবিরে সন্ত্রাসীরা পুলিশের সহযোগিতায় জনতার নিউজের রিপোর্টার কে পুলিশের হেনস্থা করার চেস্টা করেন, উল্লেখ যে সুধারাম থানার কর্মকর্তাদের সাথে নোয়াখালীর শিবিরের আন্তরিক সম্পর্ক রয়েছে যা আওয়ামীলীগের নেতা কর্মিদের সাথে নাই, শিবির চাইলে পুলিশের মাধ্যমে যখন তখন যে কোন আওয়ামীগ করর্মিদের হেনস্থা করার ক্ষমতা রাখেন যার প্রমান হচ্ছে জনতার নিউজে শিবিরের অপকর্মের বিরুদ্ধে
নিয়মিত রিপোর্ট করায় জনতার নিউজের রিপোর্টার নাছির ধ্রুবতারা, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় প্রচার সেলের সদস্য (অনলাইন ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মুখপত্র “উত্তরণ”), বঙ্গবন্ধু গবেষণা ও স্মৃতি পরিষদের কেন্দ্রীয় সদস্য ও নোয়াখালী জেলার সহ-সভাপতিকে অপদস্থ করার পরিকল্পিত অপচেষ্টা করেন। কয়েক জন সন্ত্রাসী সহ শিবির ক্যাডার জনতার নিউজ প্রতিনিধির উপর চড়াও হবার চেষ্টা করেন কিন্ত পুলিশ তাদের না ধরে উলটা এসআই ইকবাল জনতার নিউজের রিপোর্টার কে পুলিশের গাড়িতে তুলে থানায় নিয়ে যান কিন্ত ইউসুফকে ঐ এলাকার জনৈক সন্ত্রাসীর হোন্ডায় থানায় আনতে বলেন । থানায় পৌছার পর মিনিট পাঁচেক পার হলে ও ঐ ব্যাক্তি আসছেনা এবং দারোগাকে প্রশ্ন করে উত্তর না পেয়ে জনতার নিউজ প্রতিনিধি এএসপি সার্কেলের মোবাইলে ফোন দিয়ে পরিস্থিতি বললে তিনি বলে দিচ্ছেন বলে জানন । বিষয়টা জনতার নিউজ পত্রিকার সম্পাদক ও বঙ্গবন্ধু গবেষণা ও স্মৃতি পরিষদের কেন্দ্রীয় সভাপতি জনাব আবুল খায়ের শাহাজান অবগত হয়ে প্রতিনিধির মোবাইল থেকে এসআই ইকবালের সাথে কথা বলতে চাইলে তিনি মোবাইল হাতে নিয়ে কেটে দেন । এর মিনিট খানেক পর একটি সাদা কাগজে সই করে জনতার নিউজ প্রতিনিধিকে চলে যেতে বলেন কিন্তু প্রতিনিধি সাদা কাগজে স্বাক্ষরে অস্বীকার করে তাকে কি গ্রেফতার করা হয়েছে কিনা প্রশ্ন করেন । উত্তরে তাকে সেইফ করা হয়েছে এবং নাম, ঠিকানা লিখে দিতে বলেন । থানা থেকে আসার পূবে তার মোবাইল নং নিয়ে উক্ত ইউসুফ কোথায় প্রশ্ন করলে তিনি বলেন তাকে আনা হচ্ছে । তার দেওয়া মোবাইল নং ০১৮৩০৬৬৩৪৫ এ অনেকবার ফোন করে বদ্ধ পেয়ে থানার টেলিফোন নং ০৩২১-৬২০৬৭ এ ফোন করলে জনৈক ডিউটি অফিসার রাত সাড়ে নয়টায় ফোন করে তার মোবাইল নং=০১৮১৭০৬৬৩৪৫ বলেন । পরে ঐ মোবাইলে তাকে ফোন করলে তাকে পাওয়া যায় । ইউসুফকে ধরা হয়েছে কিনা প্রশ্নে তিনি ওসি মোশারফ হোসেন তরফদার জানেন, তার কথায় সব হয়েছে এবং তিনি ব্যাস্ত বলে লাইন কেটে দেন । মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা ও মাননীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী সহ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার নিকট প্রশ্ন নোয়াখালী সুধারাম থানা কি জামাতি ইশারায় পরিচালিত হয়? জামাত শিবিরের অপকর্মের বিরুদ্ধে পত্রিকায় লিখলে কি এভাবেই অপদস্থ করার চেষ্টা করা হবে?
আমরা সত্য প্রকাশের সার্থে শিবিরের অপকর্মের বিরুদ্ধে নিয়মিত ও বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশ করে যাব এতে যত বাঁধাই আসুক না কেন সত্য প্রকাশে জনতার নিউজ পিছ পা হবে না, আমরা জনতার নিউজের পক্ষ থেকে সরকারকে অনুরোধ করছি উক্ত বিষয়ে সঠিক তদন্ত করে দুষি পুলিশ কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের আহবান জানাচ্ছি। পুলিশের সহযোগিতায় জামাত-শিবির যদি নোয়াখালীতে সন্ত্রাসী কর্ম কান্ড করে যায় তাহলে সাধারন জনগন কি সেখানে শান্তিতে বসবাস করতে পারবেন ? নোয়াখালীতে শিবির বিভিন্ন প্রশিক্ষনের নামে সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের ট্রেনিং দিয়ে সাধারন ছাত্রদের জংগিতে পরিনত করছে,আমরা এর বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশের আশা রাখি। আমরা ওসি মোশারফ হোসেনে কে প্রত্যাহার করার আহবান জানাচ্ছি।

nk2nk6nk7

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here