নিখোঁজ তরুণীর লাশ সেপটিক ট্যাংকে

29

toruniতিন মাস আগে ঢাকা থেকে নিখোঁজ তরুণী সুবর্ণার লাশ জয়পুরহাটের একটি সেপটিক ট্যাংক থেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। রাজধানীর মিরপুর থানায় দায়ের করা মামলার সূত্র ধরে আটক আসামিদের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী গতকাল শুক্রবার দুপুরে ডিএমপি পুলিশ জেলার আদর্শপাড়ায় নিহতের শ্বশুরবাড়ির সেপটিক ট্যাংক থেকে লাশটি উদ্ধার করে। সুবর্ণা ঢাকার মিরপুর-১২ এর মৃত হান্নান শেখের মেয়ে ও জয়পুরহাট আদর্শপাড়ার আলী হাসান পলাশের স্ত্রী ছিলেন।

পুলিশ ও নিহতের পরিবারের সদস্যরা জানান, সম্প্রতি সুবর্ণাকে তার খালাতো ভাই পলাশ গোপনে ‘কোর্ট ম্যারেজ’ এর মাধ্যমে বিয়ে করেন। বিয়ের বিষয়টি জানাজানির পর গত ৩০ জানুয়ারি ঢাকার পীরেরবাগ ৭৫/১ বাড়ি থেকে বিয়ের অনুষ্ঠানে যাওয়ার কথা বলে পলাশ স?ুবর্ণাকে জয়পুরহাটে নিয়ে যান। এরপর থেকেই সুবর্ণার কোন খোঁজ পাচ্ছিল না তার পরিবার।

দীর্ঘদিন খোঁজাখুঁজির পর মেয়েকে না পেয়ে সুবর্ণার মা সালমা ইসলাম গত ২৫ ফেব্রুয়ারি পলাশ ও তার পরিবারের ৮ জনকে আসামি করে ঢাকার মিরপুর থানায় অপহরণ মামলা করেন। ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারের সহযোগিতায় মামলাটি তদন্ত করেন গোয়েন্দা পুলিশের উপ-পরিদর্শক সেলিনা পারভীন। তদন্তের এক পর্যায়ে গত ৫ মে পলাশের বোন শিউলিকে জয়পুরহাট থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এরপর পলাশের মা রহিমা বেগম, বাবা আরমান আলী ও শিউলীর স্বামী বকুলকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতদের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী গতকাল শ্বশুরবাড়ির সেপটিক ট্যাংক থেকে সুবর্ণার লাশ উদ্ধার করা হয়।

নিহত সুবর্ণার বোন তানিয়া জানান, সুবর্ণাকে তার স্বামী ঢাকা থেকে নিয়ে যাওয়ার পর থেকে সে নিখোঁজ ছিল। মামলার আসামি নিহতের শাশুড়ি রহিমা বেগম ও ননদ শিউলী পুলিশের কাছে স্বীকার করেন যে পলাশই সুবর্ণাকে মেরে ফেলেছে ।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ডিএমপির সিনিয়র সহকারী কমিশনার মুক্তা ধর জানান, ৯ আসামির মধ্যে ৪ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। পলাশসহ বাকি আসামিদেরও দ্রুত গ্রেফতার করা হবে। তবে কি কারণে এই হত্যার ঘটনা ঘটেছে সে ব্যাপারে তিনি কিছু জানাতে পারেননি।

ঠাকুরগাঁওয়ে অটোচালক ‘অপহরণ’

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি জানান, আকতারুল ইসলাম (২৮) নামে এক অটোচালক অপহরণ হয়েছে বলে দাবি করেছে তার পরিবার। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার রাতে অপহূত ব্যক্তির স্ত্রী ময়না আখতার ৪ জনকে আসামি করে সদর থানায় একটি অপহরণ মামলা করেছেন। পুলিশ তাত্ক্ষণিক ভাবে রেজাউল করিম (২৮) ও ফিরোজ (২০) নামে ২ জনকে গ্রেফতার করেছে।

জানা গেছে, প্রতিদিনের মত গত মঙ্গলবার আকতারুল ইসলাম ভাড়ার অটোরিক্সা নিয়ে বের হন। কিন্তু রাতে তিনি অটোরিক্সাটি মালিককে জমা দেননি। অনেক খোঁজাখুঁজির পর অটোমালিক বেলাল হোসেন সদর উপজেলার সালন্দর পাঞ্জীয়ার পাড়ার এক ভুট্টা ক্ষেতের পাশ থেকে অটোরিক্সাটি উদ্ধার করেন। কিন্তু অটোচালক আকতারুলকে সেখানে পাওয়া যায়নি।

ঠাকুরগাঁও থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) একেএম মেহেদি হাসান জানান, অটোচালককে উদ্ধার জন্য পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। আসলে অপহরণ হয়েছে কি না পুলিশ তা-ও তদন্ত করছে।

ঝিনাইদহ থেকে অপহূত দুই স্কুল ছাত্রী তালায় উদ্ধার

তালা (সাতক্ষীরা) সংবাদদাতা জানান, ঝিনাইদহ জেলার কালিগঞ্জের বারোবাজার থেকে আত্মীয় পরিচয়ে ভারতে পাচারের উদ্দেশ্যে নিয়ে যাওয়ার সময় সাতক্ষীরার তালা উপজেলার শাকদহ গ্রাম থেকে স্কুল পড়ুয়া দুই ছাত্রীকে জনতার সহযোগিতায় উদ্ধার করেছে পুলিশ। তবে পাচারকারী মহিলা সদস্যকে ধরা সম্ভব হয়নি। বৃহস্পতিবার বিকালে তাদের উদ্ধার করা হয়।

অপহূত স্কুলছাত্রীরা হলেন-ঝিনাইদহ জেলার কালিগঞ্জের মিঠাপুকুর হাইস্কুল পাড়ার পশু ডাক্তার মো. কালাম হোসেন জোয়ার্দ্দারের কন্যা উম্মে হাবিবা বেদানা (১১) এবং একই এলাকার জাহাঙ্গীর আলমের কন্যা ইয়াছমিন আক্তার (১১)।

পাটকেলঘাটা থানার ওসি মো. মামুন-উর-রশিদ জানান, খবর পেয়ে বৃহস্পতিবার রাতেই অভিভাবকরা এসে উদ্ধারকৃতদের থানা থেকে নিয়ে যান। তবে কথিত অপহরণকারী কৌশলে পালিয়ে যাওয়ায় তাকে আটক করা যায়নি।

কাউখালীতে ৫ মাসেও সন্ধান মেলেনি নিখোঁজ ফরহাদের

কাউখালী (পিরোজপুর) সংবাদদাতা জানান, মো. ফরহাদ রহমান (১৮) নামে এক কলেজ ছাত্র নিখোঁজ হওয়ার ৫ মাসেও তার সন্ধান মেলেনি। পরিবারের সদস্যরা তাকে পাগলের মত খুঁজে বেরাচ্ছেন। নিখোঁজ ফরহাদ কাউখালীর পারসাতুরিয়া ইউনিয়নের চিরাপাড়া গ্রামের পল্লী চিকিত্সক মো. সাইদুর রহমানের ছোট ছেলে। সে স্বরূপকাঠী শহীদ স্মৃতি কলেজের দ্বাদশ শ্রেণীর বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র। গত বছরের ২২ নভেম্বর স্বরূপকাঠীর ভাড়া বাসা থেকে বের হয়ে সে আর বাড়ি ফেরেনি। এ ঘটনায় ফরহাদের বাবা পরদিন নেছারাবাদ থানায় জিডি করেছেন। কেউ ফরহাদের সন্ধান পেলে যোগাযোগের জন্য (মোবাইল নম্বর ০১৭১৮৬২৪৩০৯) তার পরিবারের পক্ষ থেকে অনুরোধ জানানো হয়েছে।

ভাঙ্গুড়ায় মা, শিশু ও কিশোরী নিখোঁজ হয় নি!

ভাঙ্গুড়া (পাবনা) সংবাদদাতা জানান, পৌরসভার উত্তর মেন্দা গ্রাম থেকে ‘নিখোঁজ’ হবার ৫ দিন পর গৃহবধূ শান্তনা, তার শিশু পুত্র হাবীবুল্লাহ ও কিশোরী নাইমাকে গতকাল শুক্রবার ভাঙ্গুড়া উপজেলার নৌবাড়িয়া নতুনপাড়া গ্রামের জাহের আলীর বাড়ি থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। তবে পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে শান্তনা জানান, তাকে কেউ অপহরণ করেনি। স্বামীর উপর রাগ করে সে ছেলেকে নিয়ে তার পূর্বপরিচিত জাহের আলীর পুত্র সাহেব আলীর সাথে চাকরির খোঁজে ঢাকার সাভার গিয়েছিলেন। ভাঙ্গুড়া থানার ওসি মিজানুর রহমান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here