দলীয় প্রতীকে প্রথম ইউপি নির্বাচন শঙ্কা-উত্কণ্ঠায় আজ ভোট ৭৩২ ইউপিতে ভোট প্রথম ধাপে; ৭১৯ টিতে ভোট আজ; ৩০৪৩ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী; ৩৬৪৬২ তিনটি পদে মোট প্রার্থী

39

জনতার নিউজ

শঙ্কা-উত্কণ্ঠায় আজ ভোট

‘আমার ভোট আমি দেবো, যাকে খুশি তাকে দেবো’-শ্লোগানের আকাঙ্ক্ষা অনুযায়ী ভোটাররা ভোট দিতে পারবেন কিনা-এই উত্কণ্ঠার মধ্যে আজ মঙ্গলবার প্রথমবারের মতো দলীয় প্রতীকে ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনের ভোট গ্রহণ শুরু হচ্ছে। প্রথমধাপে ৭৩২টি  ইউপিতে ভোট গ্রহণের জন্য সব প্রস্তুতি চূড়ান্ত করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। আজ সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত একটানা ৭১৯টি ইউপির ভোটগ্রহণ করা হবে। নির্বাচনী মালামালসহ অন্যান্য সামগ্রী ইতিমধ্যে কেন্দ্রে পাঠানো হয়েছে।

 নির্বাচনে মারামারি-হানাহানি দুঃখজনক আখ্যা দিয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী রকিবউদ্দীন আহমদ বলেছেন, ইউপি নির্বাচনে রাষ্ট্রের অন্যবিভাগের কাছ থেকে কাঙ্ক্ষিত সহযোগিতা পাচ্ছি না। তাই এটি নিয়ন্ত্রণ করতে পারছি না। তবে নির্বাচনে সহিংসতা চরিত্রগত। এটি নতুন কিছু নয়।

প্রথম দফায় আজ ৩৬ জেলার ১০১ উপজেলায় ভোট হচ্ছে। ভোটের দিনে সবচেয়ে বেশি সংঘাত ও সংঘর্ষের আশংকা করা হচ্ছে বিভিন্ন নির্বাচনী এলাকায়। ২০১১ সালে ৭২ ধাপের ইউপি নির্বাচন যেখানে ৩ জনের প্রাণহানি হয়েছিল, সেখানে এবার প্রথমধাপের ভোট শুরুর আগেই ১০জন নিহত হয়েছেন। যদি প্রতি ভোটকেন্দ্রে ২০ জনের মতো আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। এর মধ্যে প্রতিটি কেন্দ্রে ৩ জন পুলিশ, ৪ জন আনসার, ১৩ জন অঙ্গীভূত আনসার/ভিডিপি মোতায়েন থাকবে। ভোটের দুইদিন আগে থেকে এবং ভোটের দিন ও পরের দিন তারা কেন্দ্রে থাকবে। এসময়ে প্রতি উপজেলায় ৩ জন করে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও একজন করে জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট থাকবে। প্রতি উপজেলায় র্যাব ও বিজিবির পৃথকভাবে ২টি মোবাইল টিম, ১টি স্ট্রাইকিং ফোর্স মাঠে রয়েছে।

বিপুলসংখ্যক আইন-শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনী মোতায়েনের পরও প্রার্থী কিংবা ভোটারদের মনে স্বস্তি আসছে না অধিকাংশ ইউনিয়নে। বিশেষ করে অনেক স্থানে সরকারি দল সমর্থিত প্রার্থী এবং প্রশাসনের কতিপয় কর্মকর্তার আচরণ নির্বাচনী উত্সবকে অনেকটাই শংকায় পরিনত করে দিচ্ছে। এসব কারণে অনেক স্থানেই ভোটার উপস্থিতির হার কমে যেতে পারে বলে আশংকা করছেন নির্বাচন সংশ্লিষ্টরা।

গত ১১ ফেব্রুয়ারি ইউপি নির্বাচনের প্রথমধাপের তফসিল ঘোষণার পর থেকে এ পর্যন্ত ১০ জনের প্রাণহানি ঘটেছে। সহিংসতায় এ পর্যন্ত দুই হাজারের বেশি মানুষ আহত হয়েছে। সংঘাত-সংঘর্ষের ঘটনায় অনেক নির্বাচনী এলাকায় এক ধরনের আতংক বিরাজ করছে। ভোট ডাকাতির আশংকা, হানাহানি, সংঘর্ষ ও প্রভাব বিস্তারকে কেন্দ্র করে নির্বাচন কমিশনে এ পর্যন্ত পাঁচ শতাধিক অভিযোগ জমা পড়েছে। এজন্য নির্বাচন কমিশনও ভোটের রাতে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে নিবিড় পর্যবেক্ষণের নির্দেশ দিয়েছে। কোন নির্বাচনী কর্মকর্তা ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যর দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগ পেলে তাত্ক্ষণিক শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের ঘোষণা দিয়েছেন সিইসি। তবে এখনো পর্যন্ত সংঘাত-সহিংসতা প্রবণ এলাকাগুলোয় আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকে কার্যকর কোন উদ্যোগ  নেয়া হয়নি।

আজ ৭১৯টি ইউপির পাশাপাশি ২৩ মার্চ টাঙ্গাইলের নাগরপুরে ১১টি এবং ২৭ মার্চ টেকনাফে দুটি ইউপিতে প্রথমধাপে ভোট হবে। গতকাল কক্সবাজারের মহেশখালীর কালারমারছড়া ও বগুড়ার সারিয়াকান্দির কাজলা ইউপির ভোট স্থগিত করা হয়। ৭৩২টি ইউপিতে ভোটার সংখ্যা ১ কোটি ১৯ লাখ ৪০ হাজার ৭৪১জন। এরমধ্যে পুরুষ ভোটার ৫৯ লাখ ৯৫ হাজার ২৬৯ এবং পুরুষ ৫৯লাখ ৪২ হাজার ৬৯৪ জন। ভোটকেন্দ্র ৬ হাজার ৯৮৭টি, যার অধিকাংশই ঝুঁকিপূর্ণ। চেয়ারম্যান প্রার্থী ৩ হাজার ৪৩জন, সংরক্ষিত সাধারণ সদস্য ৭ হাজার ৫৭৫জন এবং সাধারণ সদস্য পদে প্রার্থী আছে ২৫ হাজার ৮৫৭জন। তিনটি পদে ৩৬ হাজার ৪৬২জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

ভোটের আগেই এ পর্যন্ত ৫৪জন আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। এর মধ্যে বাগেরহাট জেলায় ৩২জন, মাদারীপুরের শিবচরে ১০জন, গোপালগঞ্জের টুঙ্গীপাড়ায় ৩জন, ব্রা?হ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুরে ২জন, ভোলা সদর, দৌলতখান, খুলনার তেরখাদা, ঝালকাঠির নলছিটি, সাতক্ষীরার কলারোয়া, মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান, বরিশালের বানারীপাড়ায় একজন করে নির্বাচিত হয়েছেন। এছাড়াও সংরক্ষিত সদস্য ৫৪ জন এবং সাধারণ সদস্য ১৭৯জন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিজয়ী হয়েছেন। একমাত্র পিরোজপুরের কাউখালী উপজেলার শিয়ালকাঠি ইউপিতে আওয়ামী লীগের কোনো প্রার্থী নেই। বিএনপির প্রার্থী নেই ১২১টি ইউপিতে। ১৪টি রাজনৈতিক দল প্রথমধাপের নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে।

গত ১১ ফেব্রুয়ারি ছয় ধাপে ৪ হাজার ২৭৫টি ইউপির তফসিল চূড়ান্ত করে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। এরমধ্যে প্রথমধাপে ৭৫২ ইউপির তফসিল ঘোষণা করা হয়। আদালতের নির্দেশ ও সীমানা সংক্রান্ত জটিলতার কারণে এ পর্যন্ত ২০টির ভোট স্থগিত রয়েছে। ইসির ঘোষণা অনুযায়ী দ্বিতীয় ধাপে ৩১ মার্চ, তৃতীয় ধাপে ২৩ এপ্রিল, চতুর্থ ধাপে ৭ মে, পঞ্চম ধাপে ২৮ মে ও ষষ্ঠ ধাপে ৪ জুন ভোট হওয়ার কথা রয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here