ডিসেম্বরের আগেই কাদের মোল্লার ফাঁসির রায় কার্যকর

16

কাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি আবদুল কাদের মোল্লার ফাঁসির রায় কার্যকরে সরকার বদ্ধপরিকর। ট্রাইব্যুনাল ও আপিল বিভাগ সংশ্লিষ্ট প্রসিকিউটর ও আইনজীবীরা মনে করছেন আগামী ডিসেম্বরের আগেই কাদের মোল্লার রায় কার্যকর করা হবে। জানা যায়, এই সরকারের মেয়াদে কাদের মোল্লা ছাড়াও আরো বেশ ক’টা রায় কার্যকর করা হবে। এ ব্যাপারে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের সমন্বয়ক ও অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল এমকে রহমানabdul-quader বলেন, ডিসেম্বরের আগেই কাদের মোল্লার রায় কার্যকর করা হবে। এছাড়াও এই সরকারের মেয়াদে আরো দু’একটি রায় কার্যকর হতে পারে।
আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল থেকে এখন পর্যন্ত আটটি মামলার রায় ঘোষণা করা হয়েছে। তাদের মধ্যে আবুল কালাম আযাদ ওরফে বাচ্চু রাজাকারকে মৃত্যুদণ্ড, জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল আবদুল কাদের মোল্লার যাবজ্জীবন, মোহাম্মদ কামারুজ্জামানকে মৃত্যুদণ্ড, জামায়তের নায়েবে আমির দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীকে মৃত্যুদণ্ড, গোলাম আযমের ৯০ বছরের কারাদণ্ড ও জামায়াতের সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদকে মৃত্যুদণ্ড, বিএনপি নেতা সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরীকে মৃত্যুদণ্ড ও আবদুল আলীমকে আমৃত্যু কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে আবদুল কাদের মোল্লার মামলায় সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ ট্রাইব্যুনালের দেয়া যাবজ্জীবন দণ্ড থেকে বাড়িয়ে মৃত্যুদণ্ড ঘোষণা করেছে।
বিশ্লেষকরা বলছেন, নিয়ম অনুযায়ী মামলা নিষ্পত্তি হতে সময় লাগবে কমপক্ষে এক মাস। এর মধ্যে আপিলের রায়ের বিরুদ্ধে আসামিপক্ষ রিভিউ করলেও করতে পারেন যদিও আইনে নেই। আসামিপক্ষের প্রধান আইনজীবী ব্যারিস্টার আবদুর রাজ্জাক বলেন, কাদের মোল্লার বিরুদ্ধে রায় ঘোষণার পরে পূর্ণাঙ্গ রায় এখনো আমাদের হাতে এসে পৌঁছায়নি। পূর্ণাঙ্গ রায়ের কপি হাতে পেলে আমরা পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেব। বিশ্লেষকরা মনে করছেন, বর্তমান সরকারের মেয়াদে কমপক্ষে একটি রায় কার্যকর হচ্ছে। আর তা হচ্ছে আবদুল কাদের মোল্লার রায়। তবে মামলা সংশ্লিষ্ট প্রসিকিউটরদের কারো মতে কমপক্ষে দুটি আবার কারো মতে তিনটি আপিল নিষ্পত্তি হয়ে রায় কার্যকর হতে পারে। তবে ইতিমধ্যে একটি নিষ্পত্তি হয়ে গেছে, এখন শুধু কার্যকর করার পালা। তদন্ত সংস্থার প্রধান কর্মকর্তা আবদুল হান্নান খান বলেন, ডিসেম্বরের মধ্যে গোটা দুয়েক রায় কার্যকর হওয়া উচিত। দুটি মিনিমাম, তিনটি মেক্সিমাম। তবে দুটোর বেশি আশা করা যায় না। তিনি বলেন, এখনো আবদুল কাদের মোল্লার মামলায় আপিল নিষ্পত্তির সার্টিফাইড কপি বের হয়নি। এখনো যদি সার্টিফাইড কপি বের না হয়ে থাকে তাহলে কিভাবে কার্যকর হবে? তবে আদালত কি করে সেটা মহামান্য আদালতের বিষয়।
প্রসিকিউটর রানা দাস গুপ্ত বলেন, সরকারের মেয়াদ জানুয়ারি মাস পর্যন্ত হলে ট্রাইব্যুনালে সাজাপ্রাপ্ত মামলায় আপিল বিভাগে নিষ্পত্তির পর দুটি রায় কার্যকর হতে পরে। প্রসিকিউটর মোহাম্মদ আলী বলেন, ধারণা করা হচ্ছে, সরকারের মেয়াদে নভেম্বরের মধ্যে আরো পাঁচটি মামলা নিষ্পত্তি হবে। তবে রায় কয়টি কার্যকর করা হবে তা অথরিটি বলতে পারবেন। এ সরকারের আমলে যে রায়গুলো নিষ্পত্তি হওয়ার কথা বলা হচ্ছে তার মধ্যে দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর মামলায় আপিল শুনানি চলছে। মো. কামারুজ্জামানের বিরুদ্ধে আপিল শুনানির তারিখ নির্ধারিত রয়েছে। পরের ধাপে শুনানির জন্য আসতে পারে আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ এবং গোলাম আযমের আপিল আবেদন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here