ছিনতাই হওয়া রাকিব ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত

17

Rakib Deadপুলিশের প্রিজনভ্যান থেকে ছিনতাই হওয়া রাকিব হাসান বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন। আজ সোমবার ভোর চারটার দিকে টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে এই বন্দুকযুদ্ধ সংগঠিত হয়।

এর আগে গতকাল সকালে পুলিশের প্রিজনভ্যানে হামলা চালিয়ে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত তিন জেএমবি জঙ্গি রাকিব হাসান ওরফে হাফেজ মাহমুদ, সালাউদ্দিন সালেহীন ও বোমা মিজানকে ছিনিয়ে নেয় তাদের সঙ্গীরা। এই সংঘর্ষে পুলিশের এক সদস্য নিহত হন। পরে বিকালে টাঙ্গাইল থেকে রাকিব হাসানকে আটক করা হয়।

ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার হাসিবুল আলম সংবাদিকদের জানান, আজ ভোর চারটার দিকে রাকিব হাসানকে নিয়ে তার পলাতক সঙ্গীদের গ্রেফতারে অভিযানে বের হয় পুলিশ। তারা মির্জাপুর উপজেলার বেলতৈল এলাকায় পৌঁছালে দুর্বৃত্তরা হামলা চালায়। পুলিশও পাল্টা গুলি চালালে শুরু হয় বন্দুকযুদ্ধ। এতে রাকিব হাসান গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হন। সংঘর্ষে আহত হয়েছেন পুলিশের তিন কন্সটেবল। পরে রাকিব হাসানের লাশ উদ্ধার করে কুমুদিনী হাসপাতালে নেয়া হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে দুর্বৃত্তদের ফেলে যাওয়া একটি সাটারগান উদ্ধার করা হয়েছে।

ময়মনসিংহ পুলিশ কোর্ট ইন্সপ্যাক্টর শহীদ ফোরকান সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, রাকিবুল হাসান রাকিব এর বিরুদ্ধে ৩০টি মামলা রয়েছে। তিনি জামালপুরের মেলান্দহ থানার বংশীবাড়ী গ্রামে আব্দুস ছোবহানের ছেলে।

এদিকে তিন আসামি ছিনিয়ে নেয়া ও পুলিশ হত্যার বিষয়ে গতকাল রবিবার রাতেই দুইটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

ত্রিশাল থানার ওসি ফিরোজ তালুকদার জানান, পুলিশের এস আই মোকলেসুর রহমান বাদী হয়ে এই দুটি মামলা করেন। পুলিশ হত্যা ও বিস্ফোরক আইনে দায়ের করা মামলা দুইটিতে ছয়জনকে এজাহারভুক্ত ছাড়াও অজ্ঞাতনামা আরো ১০/১৫ জনকে আসামি করা হয়েছে। এই মামলায় এজাহারভুক্ত আসামিরা হলেন-জেএমবি সদস্য সালাউদ্দিন, বোমা মিজান, রাকিব, জাকারিয়া, রাসেল ও তাওহিদ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here