চট্টগ্রাম-১৫ লোহাগাড়া-সাতকানিয়া আসনে কে হচ্ছে নৌকার মাঝি ?

105

1477674_325121434293719_1878397877_n
কাইছার হামিদ, লোহাগাড়া :জনতার নিউজ
আসন্ন ১০ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফশীল ঘোষণার পর থেকেই লোহাগাড়া-সাতকানিয়ার প্রত্যন্ত অঞ্চলে চলছে নানা জল্পনা-কল্পনা। চায়ের দোকান থেকে শুরু করে মাঠে-ঘাটে আলোচনার ঝড় চলছে। চট্টগ্রাম- ১৫ লোহাগাড়া-সাতকানিয়া আসনে কে হচ্ছে নৌকার মাঝি। এমন আলোচন টক অব দ্যা ভিলেজ। আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করে জমা দিয়েছেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য আমিনুল ইসলাম আমিন, জেলা আওয়ামীলীগ নেতা ও রূপালী ব্যাংকের পরিচালক সাংবাদিক নেতা আবু সুফিয়ান, সাতকানিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান আবদুল মোনাফ, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি এ্যাডভোকেট আ.ক.ম. সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, সাবেক ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি মাঈনুদ্দিন হাসান চৌধুরী, আল্লামা ফজলুল্লাহ ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান ড. আবু রেজা মু. নিজাম উদ্দীন নদভী, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের কেন্দ্রীয় নেতা ডাঃ আ ম ম মিনহাজুর রহমান, বনফুল গ্র“পের চেয়ারম্যান ও সাতকানিয়া উপজেলা আ.লীগের সভাপতি এম.এ. মোতালেব সিআইপি, চট্টগ্রাম চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রিজের পরিচালক অহিদ সিরাজ চৌধুরী স্বপন, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামীলীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা এড. কামরুন্নাহার ও নারীনেত্রী জাতীয় সমাজকল্যাণ পরিষদের সদস্য ববিতা বড়–য়া। আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে ড. আবু রেজা মু. নিজাম উদ্দিন নদভী ছাড়া অন্যান্যরা দলের কেন্দ্রীয়, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের নেতা। কিন্তু একমাত্র ব্যতিক্রমী মনোনয়ন প্রত্যাশী নদভী। নদভী লোহাগাড়া-সাতকানিয়ায় বিভিন্ন মসজিদ-মাদ্রাসার উন্নয়ন কর্মকান্ডের সাথে জড়িত থাকলেও জনসমর্থন নেই। কেন্দ্রীয় নেতা আমিনুল ইসলাম আমিন গত ৫ বছরে লোহাগাড়া-সাতকানিয়ায় নিয়মিত বিভিন্ন অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করে জনগণের সাথে যোগাযোগ স্থাপন করেছেন। উন্নয়ন কর্মকান্ডেও ব্যাপক অংশগ্রহণ করেছেন। যার কারণে দলীয় নেতাকর্মী ছাড়াও সাধারণ মানুষের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছেন। কেন্দ্রীয় এ নেতাকে লোহাগাড়া-সাতকানিয়ার আওয়ামীলীগ অভিভাবক হিসেবে মনে করেন। তিনি মনোনয়ন ফেলে নির্বাচিত হবেন বলে মনে করেন স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা নেতৃবৃন্দরা। এবারের নির্বাচনে নতুন প্রজন্মের নেতাকর্মীরা নতুন মুখ প্রত্যাশা করছেন। কেননা চট্টগ্রাম- ১৫ আসনে ২০০৯ সালে অনুষ্ঠিত ৯ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এলডিপি’র পক্ষে ড. কর্ণেল (অব:) অলি আহমদ বীরবিক্রম, আওয়ামীলীগের পক্ষে এডভোকেট এ.কে.এম সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী ও জামায়াতের পক্ষে আনম শামশুল ইসলাম নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করেন। জয় লাভ করেন জামায়াত প্রার্থী আনম শামশুল ইসলাম। ১৯৯১ হতে ২০০৯ পর্যন্ত অনুষ্ঠিত চারবার জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনবার জামায়াত প্রার্থী ও একবার বিএনপি প্রার্থী জয়লাভ করেন। প্রতিবারেই নৌকা প্রতীক প্রার্থী পরাজিত হন। একাধিক সূত্রে জানা যায়, মনোনয়ন প্রত্যাশীরা টাকার খেলায় নেমেছে। দলীয় মনোনয়ন পেতে হাই কমান্ডে টাকার লেনদেন চলছে। নির্ভরযোগ্য সূত্রে প্রকাশ, এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত দলীয় মনোনয়নে বনফুল এন্ড কোং’র চেয়ারম্যান এম এ মোতালেব এগিয়ে রয়েছে। অন্যদিকে, এক মন্ত্রী আবু রেজা মুহাম্মদ নিজাম উদ্দিন নদভীকে দলীয় মনোনয়ন পাইয়ে দিতে মরিয়া। তবে কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগ নেতা আমিনুল ইসলাম আমিন স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় রয়েছেন। অন্যান্য প্রার্থীরা প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাত পেতে দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন বলে জানান রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। এখন দেখার বিষয় লোহাগাড়া-সাতকানিয়া আসনে নৌকার মাঝি কে হচ্ছেন। ##

এল- ৩৩৭ নং ছবির ক্যাপশন ঃ লোহাগাড়া-সাতকানিয়া আসনে নৌকার মাঝি হওয়ার প্রত্যাশায় কেন্দ্রীয় আ’লীগ নেতা আমিন, মোতালেব, মোনাফ, সুফিয়ান, নদভী, সিরাজ, মাঈনুদ্দিন, মিনহাজ, কামরুন্নাহার ও ববিতা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here