ঘর গোছাতে বিএনপিকে পাঁচ বছর সময় দিয়েছে আওয়ামী লীগ :নাসিম

10

nasimআওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন জোরদার করার জন্য ‘ঘর গোছাতে’ বিএনপিকে পাঁচ বছর সময় দিয়েছে আওয়ামী লীগ। খালেদা জিয়া ও তার দল বিএনপি জনবিচ্ছিন্ন থাকায় এখন তাদের সঙ্গে সংলাপ করবো কিনা তা ভাবতে হবে। মঙ্গলবার সাংবাদিক সম্মেলনে দেয়া খালেদার বক্তব্যকে ‘লড়াইয়ের মাঠে পরাজিত সেনাপতির আর্তনাদ’ বলেও অভিহিত করেন তিনি।

গতকাল বুধবার বিকালে ধানমন্ডিস্থ আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের পক্ষে আয়োজিত এক সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। হা-হুতাশ ও আস্ফাালন বাদ দিয়ে বিএনপি নেত্রীকে সঠিক পথে আসার আহ্বান জানিয়ে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, উস্কানি-আস্ফাালন আর দেখাবেন না। মাথা ঠাণ্ডা করুন, হন। সুস্থ রাজনীতি করুন, যেন মানুষ মনে করে আপনি সঠিক পথে এসেছেন। পাঁচ বছর অপেক্ষা করুন। সংবিধান অনুযায়ী শেখ হাসিনার অধীনে নির্বাচন হবে। সেই নির্বাচনে অংশ নেবেন। খালেদা জিয়া বক্তব্যের সমালোচনা করে তিনি আরো বলেন, উনি মিথ্যাচার, চর্বিত চর্বন ও পুরনো কথামালার পুনরাবৃত্তি করেছেন। খালেদা জিয়া স্বীকার করুন আর না করুন উনি রাজনীতির মাঠে মার খেয়েছেন। জনগণের ভাষা উনি বোঝেননি। শেষ পর্যন্ত বিরোধী দলীয় নেতার পদটিও হারিয়েছেন। তিনি বলেন, বাংলাদেশের জনগণ বিজয়ী বীরের সঙ্গেই থাকে, পরাজিতদের সঙ্গে থাকে না। তিনি বলেন, যুদ্ধাপরাধী জামায়াতকে রক্ষা করতে পারেননি খালেদা জিয়া। এ জ্বালা মিটাতে না পেরে তিনি সাংবাদিক সম্মেলনে মিথ্যাচার ও বিষোদগার করেছেন।

দেশে পরিচালিত যৌথ বাহিনীর অভিযান প্রসঙ্গে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, নির্বাচনের পূর্বে যে ধরনের নাশকতা ঘটেছে, কে না চেয়েছে যৌথ বাহিনীর অভিযান। আমরা পত্র-পত্রিকায় দেখেছি। তিনি বলেন, যারা যৌথবাহিনীর অভিযানে শাস্তি পেয়েছে, গ্রেফতার হয়েছে তারা সবাই অপরাধী, সন্ত্রাসী।

মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ১০ ট্রাক অস্ত্র মামলার রায় নিয়ে সাংবাদিক সম্মেলনে খালেদা জিয়া কোনো কথা না বলায় রায়ে তার বিষয়ে বলা বক্তব্য ‘মেনে নেয়ার লক্ষণে’র শামিল। তাই খালেদা জিয়ারও এ ঘটনার জন্য বিচার করা উচিত।

একই অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগের অপর আরেক প্রেসিডিয়াম সদস্য ও কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী বলেন, উনি (খালেদা) সংসদ হারিয়েছেন, বিরোধী দলীয় নেতার আসন হারিয়েছেন। জনগণের দৃষ্টি আকষর্ণের জায়গা উনার নেই। তাই মাঝে মাঝে দৃষ্টি আকর্ষণের উপায় হিসেবে তিনি সাংবাদিক সম্মেলন করেন এবং আগামীতেও করবেন। খালেদাকে শিবিরের জননী উল্লেখ করে মতিয়া চৌধুরী আরো বলেন, বিএনপির নেত্রী কখনো জামায়াতকে ছাড়তে পারবেন না।

সাংবাদিক সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য নূহ-উল-আলম লেনিন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ, ডা. দীপু মনি, সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাসিম, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, আবু আঈদ আল মাহমুদ স্বপন, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্য সুজিত রায় নন্দী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here