!!! গ্রিল ও শর্মায় সয়লাব ঢাকার ফাষ্টফুড হোটেল রেষটুরেন্ট !!! তবে সেটা মরা মুরগীর………………………………..

46

!!! গ্রিল ও শর্মায় সয়লাব ঢাকার ফাষ্টফুড হোটেল রেষটুরেন্ট !!!
তবে সেটা মরা মুরগীর………………………………..

গ্রিল চিকেন ও শর্মাতে দেদারসে ব্যবহার হচ্ছে মরা মুরগী,রাজধানী ঢাকার বিভি্ন্ন ফাষ্টফুড,হোটেল এবং রেস্তোরায়
এসব মরা মুরগীর গ্রীল এবং শর্মা নূন্যতম ৮০টাকা থেকে ৩৫০টাকায় বিক্রি করা হচ্ছে।

প্রতিদিন এসব মরা মুরগীর গ্রিল চিকেন খাচ্ছেন হাজার হাজার মানুষ।
রাজধানীর ধানমন্ডির একটি স্বনামধন্য রেষ্টুরেন্ট থেকে ৩০০ পিস মরা পচা মুরগী সহ হাতেনাতে ২ জনকে আটক করে RAB।

এ সময় রেষ্টুরেন্টের মালিক পালিয়ে যায়।জানা যায় দীর্ঘদিন থেকেই মরামুরগীর গ্রীল এবং শর্মা বিক্রি করে আসছিলো তারা,
সাধারনত প্রতিটি মরা মুরগী ৫০-৬০ টাকায় নিউমার্কেট ও কারওয়ানবাজাড়ের অসাধু মুরগী ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে কিনে তা গ্রিল এবং শর্মা বানিয়ে বিক্রয় করে আসছে।

এসব মুরগীর অধিকাংশই ভাইরাস এ আক্রান্ত হয়ে মারা যায় এছারাও ক্ষেত্রবিশেষে পচেও যায়।

জানা গেছে…
মুরগী বিক্রেতাদের কাছে একশ্রেণীর অসাধু হোটেল বা মেস কারবারির মোবাইল ফোন নম্বর থাকে।
মুরগী মারা গেলে বিক্রেতারা ওইসব হোটেল বা মেস কারবারিকে খবর দেয়।
তারা এসে মরা মুরগীগুলো কিনে নিয়ে যায়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কারওয়ান বাজারের এক মুরগী বিক্রেতার কাছ থেকে জানা গেছে……
বর্তমানে যেখানে জীবিত ব্রয়লার মুরগীর কেজি ১‘শ ৮০ টাকা সেখানে মৃত ব্রয়লারের কেজি ৫০ টাকা থেকে ৮০ টাকা।

প্রতিদিন ঢাকার বিভিন্ন হোটেল রেষ্টুরেন্টে গ্রিল ও শর্মার জন্য তিনি নিয়মিত সাপ্লাই দিয়ে থাকেন।
আমাদের সবাইকে সচেতন হতে হবে,এই সব হোটেলের খাওয়া পরিহার করতে হবে অন্যথা আমাদের
জীবন রক্ষা করাও কঠিন হয়ে পড়বে। সব চাইতে বড় কাজ হবে, যদি আমরা সবাই প্রতিরোধ গড়ে
তুলে এই সব অমানুষদেরকে সামাজিক ভাবে বয়কট করা।murgi

শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here