গোপীবাগে ৬ খুনের মামলা দায়ের, জঙ্গিগোষ্ঠীকে সন্দেহ

16

রাজধানীর গোপীবাগে একই বাসায় বাবা-ছেলেসহ ৬ জনকে গলা কেটে হত্যার ঘটনায় মামলা করা হয়েছে।ঘটনার দিন শনিবার রাত ১১টায় ওয়ারী থানায় মামলাটি লিপিবদ্ধ করা হয় ।রোববার ভোরের দিকে মামলার দায়েরের কার্যক্রম শেষ হয়েছে। মামলা নম্বর ১৪। নিহত লুৎফার রহমানের ছোট ছেলে আবদুল্লাহ আল ফারুক বাদী হয়ে এ মামলা করেন।অজ্ঞাতনামা ১০/১১ জনের বিরুদ্ধে মামলাটি হয়েছে বলে জানিয়েছে ওয়ারী থানা পুলিশ।মামলাটি তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ-ডিবিকে।ওয়ারী থানা পুলিশ জানায়,শনিবার রাত ১১টায় মামলাটি থানায় লিপিবদ্ধ করা হয়েছে। অজ্ঞাতনামা ১০/১১ জনের বিরুদ্ধে মামলাটি হয়েছে।লাশের আলামত সংগ্রহ ও ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠাতে গতকাল দিবাগত রাত ২টা পর্যন্ত সময় লেগে যায় পুলিশের।মামলার কার্যক্রম শেষ করতে আজ রোববার ভোর পর্যন্ত সময় লেগে যায়। এই ঘটনায় প্রাথমিকভাবে সন্দেহজনক আটক ৯ জনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। ঘটনাটি পূর্বপরিকল্পিত বলে পুলিশের ধারণা।নিহত লুৎফর রহমান ফারুকের ছোট ছেলে ব্যাংক কর্মকর্তা আবদুল্লাহ আল ফারুক অভিযোগে বলেন, আমার বাবা নিজেকে ইমাম মাহদীর সেনাপতি দাবি করে জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে কথা বলতেন। লেখালেখি করতেন। এর আগেও বিভিন্ন সময় জঙ্গিগোষ্ঠী তাঁর ও পরিবারের ওপর হামলা চালিয়েছিল। তারই ধারাবাহিকতায় কোনো জঙ্গিগোষ্ঠী এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়ে থাকতে পারে।হত্যাকারীরা বাসা থেকে স্বর্ণালংকার ও টাকা-পয়সা নিয়ে গেছে। তবে হত্যা ও হত্যাকারীদের কথাবার্তায় মনে হচ্ছে এটি ডাকাতি নয়, এটি একটি পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড, দাবি লুৎফরের স্ত্রী সালমা বেগম।শনিবার সন্ধ্যায় গোপীবাগের রামকৃষ্ণ মিশন রোডে চারতলা একটি বাড়ির দোতলায় ৬ জনকে জবাই করে হত্যা করা হয়। নিহত ৬ জন হলেন লুত্ফর রহমান (৬০), তাঁর ছেলে সরোয়ার ইসলাম (৩০)। লুৎফরের খাদেম মনজুর আলম এবং ভক্ত মজিবুল সরকার, মোহাম্মদ শাহিন ও মোহাম্মদ রাসেল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here