খুনীরা যে অবস্থানের হোক না কেন রেহাই পাবে না :প্রধানমন্ত্রী, না’গঞ্জে নিহত ৫ জনের পরিবারের সাক্ষাত্

14
pm n

 

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে কাছে পেয়েই কান্নায় ভেঙ্গে পড়া নারায়ণগঞ্জে অপহরণের পর নিহত পাঁচ জনের পরিবারের সদস্যরা হত্যার বিচার চাইলেন। জবাবে আবেগাপ্লুত প্রধানমন্ত্রী খুনীদের বিচার নিশ্চিত করতে তার সরকারের কঠোর অবস্থানের কথা তুলে ধরে তাদের আশ্বস্ত করে বলেন, অমানবিক এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িতদের অবশ্যই খুঁজে বের করে বিচারের মাধ্যমে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করা হবে। খুনীরা যে অবস্থানের হোক, যে দলেরই হোক কাউকে ছাড়া হবে না। কেউ রেহাই পাবে না। তিনি বলেন, আমি সব হারিয়েছি, স্বজন হারানোর বেদনা বুঝি।

সোমবার রাত আটটার দিকে গণভবনে পৌঁছান অপহরণের পর নিহত নারায়ণগঞ্জ সিটি করপো-রেশনের প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলাম, মনিরুজ্জামান খান, তাজুল ইসলাম, ড্রাইভার জাহাঙ্গীর ও লিটনের পরিবারের সদস্যরা। প্রধানমন্ত্রীকে সামনে পেয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন পরিবারের সদস্যরা। প্রধানমন্ত্রীও আবেগ-আপ্লুত হয়ে পড়েন, নিহতদের পরিবারের নারী সদস্যদের জড়িয়ে ধরেন। এ সময় গণভবনে এক আবেগঘন পরিবেশের সৃষ্টি হয়। সাক্ষাত্ শেষে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী (মিডিয়া) মাহবুবুল হক শাকিল ব্রিফিং করেন।

নিহতদের পরিবারের সদস্যদের সান্ত্বনা দিতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এই ঘটনার সঙ্গে যারা জড়িত তাদের গ্রেফতার করতে সর্বাত্মক চেষ্টা চলছে। ঘটনার পর পরই আমি ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত করে প্রকৃত অপরাধীদের সনাক্ত করে গ্রেফতারের নির্দেশ দিয়েছি। ঘটনার পর সরকার বসে থাকেনি, সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে নারায়ণগঞ্জে দায়িত্বপ্রাপ্ত পুলিশ, র্যাবসহ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের বদলী করা হয়েছে। এ সময় কান্নায় ভেঙ্গে পড়া নিহতদের পরিবারের সদস্যরা বলেন, তাদের প্রিয়জনের হত্যাকারীদের বিচার একমাত্র প্রধানমন্ত্রীই করতে পারেন। অপহরণ ও হত্যাকাণ্ডের পর সরকারের কঠোর পদক্ষেপ ও কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে তারা কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।

নিহতদের পরিবারের সদস্যরা প্রধানমন্ত্রীকে বলেন, স্বজন-হারানোর বেদনা যে কী ভয়াবহ তা আপনি জানেন। আপনি বাবা-মা-ভাইসহ সবাইকে হারিয়েছেন। তাই আপনিই পারবেন এই হত্যাকাণ্ডের বিচার করতে। এ সময় প্রধানমন্ত্রী কঠোর ভাষায় বলেন, খুনীদের অবশ্যই খুঁজে বের করে উপযুক্ত শাস্তি নিশ্চিত করা হবে।

নারায়ণগঞ্জে হত্যাকাণ্ডের শিকার সাতজনের মধ্যে গত রবিবার চন্দন সরকারের পরিবারের সদস্যরা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাত্ করলেন। 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here