অবশেষে প্রত্যাশিত বৈঠকে আশরাফ ও ফখরুল; তবে মির্জা ফকরুলের অস্বীকার।

18

image_24025.asraf+fakhrul
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম ও বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর আজ শনিবার রাতে বৈঠক করেছেন। রাত সাড়ে ৯টার দিকে এ বৈঠক শুরু হয়। সৈয়দ আশরাফের ঘনষ্টি একটি সূত্র বৈঠকের কথা নিশ্চিত করেছেন।

তবে জানা গেছে, এটি অনানুষ্ঠানিক বৈঠক। দুই দলের মধ্যে আনুষ্ঠানিক সংলাপের আগে তাঁরা এ বৈঠকে বসেন। রাত সোয় ১০টায় এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত দুই নেতার বৈঠকে আলোচনার বিষয়বস্তু সম্পর্কে বিস্তারিত কিছু জানা যায়নি। বৈঠকের আগে অনেক গোপনীয়তা রক্ষা করেন তারা। এর আগে দুই জনের মধ্যে সংলাপের বসার জন্য টেলিফোনে কথা হয়েছে বলে জানা গেছে।

এর আগে গত ২১ নভেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সশস্ত্র বাহিনী দিবস উপলক্ষে সেনাকুঞ্জের অনুষ্ঠানে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে নির্বাচনে আসা এবং আলোচনায় বসার আহ্বান জানান। এর মধ্যে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদও সাধারণ সম্পাদক পর্যায়ে বৈঠক করার জন্য সৈয়দ আশরাফকে অনুরোধ করেন।

এর আগে সরকারকে সংলাপে বসতে ৪৮ ঘণ্টার আলটিমেটাম দিয়ে বিরোধীদলীয় নেতা খালেদা জিয়া গত ২৫ অক্টোবর হরতাল কর্মসূচি ঘোষণা করেছিলেন। ওই আল্টিমেটাম শেষ হওয়ার আগেই প্রধানমন্ত্রী ফোন করে বিরোধীদলীয় নেতাকে গণভবনে সংলাপের আমন্ত্রণ জানান। কিন্তু হরতালের অজুহাতে খালেদা জিয়া ওই আমন্ত্রণ রক্ষা করেননি। এ কারণে সংলাপের পরিবেশ নষ্ট হয়ে যায় বলে দাবি করে আওয়ামী লীগ।

এর আগে কূটনীতিকদের তত্পরতায় মাঝে মধ্যে সংলাপের সম্ভাবনা জাগলেও শেষ পর্যন্ত তা সফল হয়নি। এক পর্যায়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম ফোন করেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে। বিরোধীদলীয় চিফ হুইপ জয়নুল আবদিন ফারুকের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল চিঠি দেয় সৈয়দ আশরাফুল ইসলামকে। সরকারি দলের নেতারা বার বার সংসদে গিয়ে তাদের প্রস্তাব তুলে ধরার কথা বলেন। বিরোধীদলীয় নেতা খালেদা জিয়ার পক্ষে দলের জ্যেষ্ঠ নেতা জমিরউদ্দিন সরকার একটি প্রস্তাব সংসদে তুলে ধরেন। সরকারি দলের সংসদ সদস্যরা তা উড়িয়ে দেন। বিরোধী দলের প্রস্তাবকে তারা অবান্তর-অবাস্তব বলে অভিহিত করেন। কয়েকদিন আগে মির্জা ফখরুল সাংবাদিকদের কাছে দাবি করেন, তিনি সৈয়দ আশরাফের ফোনে বারবার চষ্টো করেও তাঁকে পাচ্ছেন না। এর পরিপ্রেক্ষিতে আশরাফ বলেন, তিনি ফখরুলের কোনো ফোন কল পাননি।

তবে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বৈঠকের কথা সম্পুর্ণ অস্বিকার করেন। তিনি বলেন এই ধরনের কোন গঠনা ঘটে নাই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here