অবরোধের বলি শিশু

17

সহিংসতার আগুন রেহাই দিল না প্রতিবন্ধীকেও, আহত শতাধিক

image_92188

অবরোধে দেশ জুড়ে সহিংসতা চলছেই। এবার সহিংসতায় প্রাণ গেল পথচারী এক শিশুর। বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮ দলীয় জোটের ডাকা তৃতীয় দফা অবরোধের তৃতীয় দিন গতকাল সোমবার সিরাজগঞ্জে অবরোধকারীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষে সুমন ওরফে হূদয় নামের ওই শিশু নিহত হয়েছে। এ ঘটনার প্রতিবাদে আজ মঙ্গলবার জেলায় সকাল-সন্ধ্যা হরতাল ডেকেছে স্থানীয় জামায়াত।

কুমিল্লায় অবরোধকারীদের দেয়া আগুনে পুড়ে গেছে ট্রাক চালকসহ প্রতিবন্ধী এক হেলপার এর শরীর। সিলেটে জেলা পরিষদ প্রশাসক ও ধামরাইয়ে এসি ল্যান্ডের বাসায় এবং রংপুরে হরতাল বিরোধী মিছিলে, রাজশাহী ও লোহাগড়ায় পুলিশকে লক্ষ্য করে বোমা হামলা চালিয়েছে অবরোধ সমর্থকরা। এছাড়া বগুড়ার ধুনটে নির্বাচন কর্মকর্তা, শিক্ষকসহ বিভিন্ন স্থানে সংঘর্ষ-হামলায় শতাধিক ব্যক্তি আহত হয়েছেন। পুলিশ ১৮ দলের অর্ধশতাধিক নেতাকর্মীকে আটক করেছে।

সিরাজগঞ্জ: জেলায় পুলিশ, জামায়াত ও বিএনপি নেতাকর্মীদের সংঘর্ষে এক শিশু নিহত ও পুলিশসহ অন্তত অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী আহত হয়েছে। নিহত সুমন ওরফে হূদয় (১২) বহুলী এলাকার আনোয়ার হোসেন বাবুলের পুত্র। গতকাল সোমবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে সিরাজগঞ্জ-রায়গঞ্জ সড়কের সদর উপজেলার বহুলী বাজারে হরতাল ও অবরোধের সমর্থনে পিকেটিং করে বিএনপি-জামায়াতের নেতাকর্মীরা। এসময় পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছলে অবরোধকারীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ও ককটেল নিক্ষেপ করে। পুলিশও পাল্টা টিয়ারসেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করলে সংঘর্ষ বাধে। এতে শিশু হূদয় নিহত ও সিরাজগঞ্জ সদর থানার এসআই নুরুল ইসলামসহ অন্তত ৩০ জন আহত হয়। স্থানীয় বিএনপি নেতারা দাবি করেছেন এই সংঘর্ষে বিএনপি-জামায়াতের অন্তত ১০ নেতাকর্মী গুলিবিদ্ধ হয়েছেন।

তবে সিরাজগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হাবিবুল ইসলাম পুলিশের গুলিতে হূদয় নিহত হয়নি দাবি করে বলেন, সংঘর্ষ চলাকালে চাইনিজ রাইফেলের গুলি নিক্ষেপের ঘটনা ঘটেনি। পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে সিরাজগঞ্জ সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেছে। ঘটনাস্থল থেকে এক জামায়াত কর্মীকে আটক করা হয়েছে।

অপরদিকে সিরাজগঞ্জ-কাজিপুর আঞ্চলিক সড়কের খোকশাবাড়ি ইউভাটা ও রহমতগঞ্জ এলাকায় ২০ জন আহত হয়েছে। এসময় অবরোধকারীরা অন্তত ১০টি বোমার বিস্ফোরণ ঘটায়।

কুমিল্লা: অবরোধের পাশাপাশি জেলায় চলছে জামায়াত ও কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রদলের ডাকা সকাল-সন্ধ্যা হরতাল। অবরোধ ও হরতালের প্রথম প্রহরে গতকাল দেবিদ্বার উপজেলার বানিয়াপাড়ায় একটি পণ্যবাহী ট্রাকে আগুন দেয় জামায়াত কর্মীরা। এ ঘটনায় চালক আবদুর রহমান (৪৭) ও হেলপার মজিবুর রহমান (৩০) অগ্নিদগ্ধ হন। অগ্নিদগ্ধ ট্রাক চালক আবদুর রহমান বরিশাল জেলার বাকেরগঞ্জ উপজেলার শ্যামপুর গ্রামের আবদুল গনি হায়দারের পুত্র এবং হেলপার মজিবুর রহমান একই গ্রামের জসিম উদ্দিনের পুত্র। হেলপার মজিবুর রহমান একজন বাক্প্রতিবন্ধী। স্থানীয় লোকজন তাদের উদ্ধার করে কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসে।

হাসপাতালের পরিচালক ডা. হাবিব আবদুল্লাহ সোহেল জানান, পেট্রোল বোমায় হেলপার মজিবুরের মুখ এবং হাত-পাসহ শরীরের ৩০ ভাগের বেশি মারাত্মকভাবে অগ্নিদগ্ধ হয়েছে। আগুনে তার শ্বাসনালী পুড়ে গেছে। তাদের কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিত্সা শেষে অবস্থার অবনতি দেখে উন্নত চিকিত্সার জন্য ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ঘটনায় জড়িত সন্দেহে ঘটনাস্থল থেকে ২ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

দিনাজপুর: রেল লাইনের ফিস প্লেটে আগুন দেয়ায় জেলায় ট্রেন চলাচল বিঘ্নিত হয়। সামনের ৩টি ট্রেন দিনাজপুর রেল স্টেশনে প্রবেশ করতে পারেনি।

জীবননগর (চুয়াডাঙ্গা): সোমবার আগের রাতে ঢাকা থেকে খুলনাগামী রেল লাইনের জীবননগর উপজেলার উথলী-সেনেরহুদা রেল গেটের মাঝামাঝি স্থানে দুর্বৃত্তদের রামদার কোপে রেলের ৫ নিরাপত্তা রক্ষী আনসার সদস্য আহত হয়েছেন। আহতরা হলেন আলীবদ্দি (৩৫), শওকত আলী (৫৫), মঞ্জুর আলী (৩০), আবু তাহের (২৪) ও মংলা মিয়া (৪৫)। তাদের জীবননগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

চট্টগ্রাম : হরতাল চলাকালে নগরীর বিভিন্ন স্থানে পুলিশকে লক্ষ্য করে ককটেল নিক্ষেপ ও বিক্ষিপ্তভাবে যানবাহন ভাংচুর, পুলিশের সাথে সংঘর্ষ ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। পুলিশ নগরীর বিভিন্ন স্থান থেকে ১১ শিবির কর্মীকে আটক করেছে। এছাড়া চট্টেশ্বরী মোড়ে পুলিশের সাথে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ায় নগর মহিলা দলের ৬ নেতাকর্মী আহত হন বলে দলের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে।

সিলেট : জেলায় হরতাল চলাকালে গাড়ি ভাংচুর, বোমাবাজি ও পুলিশের সাথে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। নগরীর মিরাবাজারে একটি সিএনজি অটোরিকশায় আগুন দেয়া হয়। সকালে শাহী ঈদগায়ে ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটে। পুলিশ নগরী থেকে জামায়াত-শিবিরের ৬ জনসহ ২৬ জনকে আটক করেছে।

রাজশাহী অফিস : জেলায় পুলিশের সঙ্গে ছাত্রশিবির ও ছাত্রদলের বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এসময় ছাত্রশিবির পুলিশকে লক্ষ্য করে বেশ কয়েকটি পেট্রোল বোমা, সাউন্ড গ্রেনেড ও ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায়। এসব ঘটনায় পুলিশসহ অন্তত ২০ জন আহত হয়। আহতদের মধ্যে রয়েছেন- ছাত্রদল নেতা ইসমাইল, রাসেল, রবিন, পাপন, সামিউল, দেলোয়ার, তূর্য ও আরিফ।

সাভার : সাভার ও আশুলিয়ায় মহাসড়কে গাড়ি ভাংচুর, ককটেল বিস্ফোরণ ও গাড়িতে আগুন দিয়েছে অবরোধ সমর্থনকারীরা। এর মধ্যে সকালে সাভার বাজার বাসস্ট্যান্ডে বাসে আগুন ও ৫টি ককটেল বিস্ফোরণ এবং আশুলিয়ায় পলাশবাড়ীতে সড়কে আগুন ও ৫টি গাড়ি ভাংচুর করা হয়।

নারায়ণগঞ্জ: শহরের বঙ্গবন্ধু সড়কে যুবদলের নেতাকর্মীদের সঙ্গে সকালে পুলিশের ব্যাপক সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে ৩ জন গুলিবিদ্ধ হয়েছে বলে দাবি করেছে যুবদল নেতারা। তাছাড়া সংঘর্ষে আহত হয়েছে আরো ১০ জন। এ সময় টিয়ারসেলের গ্যাসে কয়েকজন সাংবাদিক অসুস্থ হয়ে পড়েন। পুলিশ ২ জনকে আটক করেছে। মহানগর যুবদলের আহবায়ক মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ জানান, পুলিশের ছোঁড়া গুলিতে ১২ নং ওয়ার্ড যুবদলের সাধারণ সম্পাদক মাহাবুব হাসান জুলহাস, মহিউদ্দিন, ও আল আমিন খান গুলিবিদ্ধ হন।

মঠবাড়িয়া (পিরোজপুর) : সকালে অবরোধের পক্ষে বিপক্ষে মিছিলকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির সংঘর্ষে ৫ পুলিশসহ ২০ নেতাকর্মী আহত হয়েছে। আহত পুলিশ সদস্য এএসআই মোরতাজুল (৩২), কনেস্টবল মোঃ সোহরাব হোসেন (৪৫), হারুন অর রশিদ (৪২), রেজাউল করিম (৩৫) ও আনোয়ার হোসেনকে (৫৩) মঠবাড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিত্সা দেওয়া হয়েছে। এছাড়া গুরুতর আহত আওয়ামী লীগ নেতা নুরুল ইসলাম, যুবলীগ কর্মী লিটন, ফেরদৌস মৃধা, ছাত্রলীগ কর্মী জয়নাল আবেদীন সোহেল, ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি হেমায়েত উদ্দিন, যুবদল কর্মী কালাম মোল্ল¬াসহ ১০ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সংঘর্ষের সময় ছাত্রলীগ যুবলীগের নেতাকর্মীরা বিএনপি অফিস ও কয়েকটি মটরসাইকেল ভাংচুর করে। পুলিশ ২০ নেতাকর্মীকে আটক করেছে।

ধুনট (বগুড়া): সকাল ১০টার দিকে উপজেলা সহকারী নির্বাচন কর্মকর্তা জাহিদুল রহমান ও চৌকিবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সোহরাব হোসেন শেরপুর থেকে একটি মোটরসাইকেলযোগে ধুনটে আসার সময় পশ্চিভরশাহী এলাকায় অবরোধকারীরা তাদের পথরোধ করে এবং দুইজনকে পিটিয়ে আহত করে। তাছাড়া তাদের ব্যবহূত মোটারসাইকেলটি ভাংচুর করে। আহত জাহিদুর রহমানকে ধুনট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

গাজীপুর :জেলা শহরের বাসস্ট্যান্ড এলাকায় সোমবার সকালে বিএনপি ও ছাত্রদল নেতাকর্মীদের সাথে পুলিশের সংঘর্ষে নেতাকর্মী আহত হয়েছে।

এদিকে সকাল সোয়া ৮টার দিকে একই সড়কের রওশন সড়ক এলাকায় অবরোধকারীরা রাস্তায় ব্যারিকেট দিয়ে একটি লেগুনাতে অগ্নি সংযোগ করে। এসময় ৮/১০টি যানবাহন ভাংচুর করে হরতাল সমর্থকরা। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে।

দাউদকান্দি (কুমিল্লা): ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের দাউদকান্দির বিশ্বরোডে র্যাব-পুলিশের সাথে জামায়াত ও বিএনপির নেতাকর্মীদের সংঘর্ষে ১২জন আহত হয়।

সুন্দরগঞ্জ (গাইবান্ধা): উপজেলায় অবরোধ ও সকাল-সন্ধ্যা হরতাল চলাকালে পিকেটিং করতে গিয়ে এলাকাবাসীর ধাওয়া খেয়ে পালিয়ে গেছে পিকেটাররা। সকালে গাইবান্ধা-সুন্দরগঞ্জ মিনি বিশ্বরোডের হলহলিয়া নামক স্থানে এ ঘটনা ঘটে।

যশোর :জেলায় দু’একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া ঢিলেঢালা হরতাল পালিত হয়েছে। দুপুরে অভয়নগরের রাজঘাটে জামায়াতের বোমা হামলার পর আওয়ামী লীগের সঙ্গে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে অন্তত ৭ জন আহত হয়েছেন। একই সময়ে যশোর শহরের প্রাণকেন্দ্র দড়াটানায় জনতার ধাওয়ায় রাজপথ ছেড়ে পালিয়েছে জামায়াত-শিবির কর্মীরা। এর আগে ভোরে হরতাল সমর্থকরা জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের সামনে দুটি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে। পুলিশ জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে ১০ জামায়াত ও ৪ বিএনপি কর্মীকে আটক করেছে।

লোহাগাড়া (চট্টগ্রাম) :উপজেলার বটতলী মোটর স্টেশনের আরকান সড়কে পিকেটাররা পুলিশের গাড়ি লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করেছে। পুলিশ পিছু ধাওয়া করে জলদাশ পাড়ার নিকট হতে এক পিকেটারকে আটক করেছে।

রংপুর :দুপুরে নগরীর বেতপট্টিস্থ জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয় থেকে নেতাকর্মীরা হরতাল বিরোধী বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে সদর হাসপাতাল এলাকায় পৌঁছুলে মিছিল লক্ষ্য করে ২টি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটায় অবরোধকারীরা। এতে জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক তৌহিদুর রহমান টুটুল, আওয়ামী লীগ নেতা আবুল খায়ের, মিজানুর রহমান, রমজান আলী, তুহিন ও সোহেল রানাসহ ৮ জন আহত হয়। সকালে নগরীর বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে নাশকতার অভিযোগ জামায়াত-শিবিরের ৭ নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

নেত্রকোনা :শহরের কুড়পারে বিয়ে বাড়িতে আসা যাত্রীবাহী মিনিবাসে বিকালে অবরোধকারীরা আগুন দিলে বাসটি পুড়ে যায়। তবে এ সময় বাসে কোন যাত্রী ছিল না।

সেনবাগ (নোয়াখালী) :পৌর শহরে দুপুরে উপজেলার কাদরা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ শাহীন ভূঁইয়া (৪৫) ও আওয়ামী লীগ নেতা মো. হারুন (৩০) সন্ত্রাসী হামলায় গুরুতর আহত হয়েছেন।

কক্সবাজার :জেলা নির্বাচন অফিসারকে কাফনের কাপড় ও বুলেট পাঠিয়ে প্রাণনাশের হুমকি দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। ডাকযোগে পাঠানো একটি চিরকুটে এই হুমকি দেয়া হয়। গতকাল দুপুরে চিঠিটি তার কার্যালয়ে এসে পৌঁছায়।

গাইবান্ধা:ছাত্রদলের ডাকা সকাল-সন্ধ্যা হরতাল চলাকালে গাইবান্ধায় সকালে ছাত্রদলের সাথে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, ককটেল বিস্ফোরণ, টিয়ারসেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটেছে। এতে জেলা ছাত্রদলের আহ্বায়ক আতিক হাসান রনিসহ কমপক্ষে ৭ জন আহত হয়েছে।

অভয়নগর (যশোর) :শিল্প শহর নওয়াপাড়ার রাজঘাট শিল্পাঞ্চলে সকালে জামায়াত-শিবির অতর্কিতভাবে ককটেল ফাটিয়ে আতংক সৃষ্টি করে। এ সময় আওয়ামী লীগের সাবেক ওয়ার্ড কমিটির সভাপতির ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসহ ৩টি দোকান ভাংচুর করা হয়। এ ঘটনায় ৭ জন আহত হয়।

জিয়ানগর (পিরোজপুর) :উপজেলায় ককটেল বিস্ফোরণ ও গাছের গুড়ি ফেলে সড়ক অবরোধ করে জামায়াত-বিএনপির সমর্থকরা। নাশকতার অভিযোগে পুলিশ রবিবার রাতে জামায়াত সমর্থক বালিপাড়ার ইউপি সদস্য নূর মোহাম্মদ ও ওবায়দুলকে আটক করে।

নাশকতা রোধে রাত জেগে পাহারা

মুন্সীগঞ্জ :মাওয়ায় নাশকতা প্রতিরোধে শ্রমিকরা রাত জেগে পাহারা দিচ্ছে। রবিবার রাত থেকে পুলিশের পাশাপাশি পরিবহন শ্রমিক, এলাকাবাসী ও ব্যবসায়ীরা পালাক্রমে পাহারা শুরু করেছে। যতদিন নাশকতার আশঙ্কা থাকবে ততদিন এই পাহারা চলবে বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।

এ ব্যাপারে লৌহজং থানার ওসি আবুল কালাম জানান, নাশকতা এড়াতে এলাকাবাসী, পরিবহন শ্রমিক ও দোকান মালিকরা আইন-শৃংঙ্খলা বাহিনীর পাশাপাশি পাহারায় নেমেছেন। এটা ভালো উদ্যোগ।

জেলা পরিষদ প্রশাসক

ও এসিল্যান্ডের

বাসায় বোমা হামলা

রাত ৯টার দিকে সিলেট অফিস জানায়, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের প্রশাসক আব্দুজ জহির চৌধুরী সুফিয়ানের বাসায় পেট্রোল বোমা হামলা চালিয়েছে অজ্ঞাত দুর্বৃত্তরা। গতকাল রাত সোয়া ৮টার দিকে মোটরসাইকেল আরোহী দুর্বৃত্তরা নগরীর বাগবাড়ি এলাকাস্থ তার বাসায় বোমা নিক্ষেপ করে। বোমার আগুনে বাসার বারান্দায় রাখা চেয়ার-টেবিল পুড়ে গেছে বলে কোতোয়ালি থানা পুলিশ জানায়। তবে কেউ আহত হননি।

ধামরাই (ঢাকা) সংবাদদাতা জানান, উপজেলা পরিষদের ভেতর সহকারী কমিশনার (ভূমি) এর সরকারি বাসভবন লক্ষ্য করে দুটি হাতবোমার বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে দৃর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় কেউ হতাহত না হলেও বোমার বিকট শব্দে মুহূর্তের মধ্যে পুরো এলাকায় আতংক ছড়িয়ে পড়ে। ধামরাই থানা পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে দুটি অবিস্ফোরিত হাতবোমা উদ্ধার করে। এসি ল্যান্ড রেহেনা আক্তার ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন। থানার ওসি আব্দুর রশিদ জানান, এ ঘটনায় জড়িতদের ধরতে অভিযান চলছে।

সীতাকুণ্ড সংবাদদাতা জানান, গতকাল উপজেলার মিরেরহাট বাজারে অবরোধকারীদের হামলায় স্থানীয় এমপি এবিএম আবুল কাশেমের গাড়িচালক এসএম মনির (৩৫) ও ছাত্রলীগ কর্মী রুবেল (২৮) গুরুতর আহত হয়েছেন। তাদের চট্টগ্রাম মেডিক্যালে ভর্তি করা হয়েছে।  এছাড়া সীতাকুন্ডে বোমা বানানোর সময় বোমার বিস্ফোরনে এক জামাত কর্মি নিহত হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here