৮ ফেব্রুয়ারি ঘিরে উত্তেজনা ওই দিন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলার রায় নেতিবাচক ধরে নিয়ে বিএনপি ব্যাপক প্রস্তুতি নিচ্ছে। রায় বিপক্ষে গেলে সর্বস্তরের নেতা-কর্মীরা রাস্তায় নেবে আসবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছে বিএনপি। জবাবে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, নৈরাজ্য সৃষ্টির চেষ্টা করা হলে কঠোর হাতে দমন করা হবে। অন্যদিকে পরিস্থিতি মোকাবিলায় সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থানে থাকার কথা জানিয়েছে পুলিশ।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিএনপির সিনিয়র নেতাদের প্ররোচনায় পুলিশের ওপর হামলা করা হয়। এটা তাদের পূর্ব পরিকল্পনার অংশ। রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে ওয়েস্টার্ন ব্রীজ ইমপ্রুভমেন্ট প্রকল্পের আওতায় সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের এক চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি আরো বলেন, ‘হাইকোর্টের সামনে পুলিশের প্রিজন ভ্যানে বিএনপির নেতা-কর্মীদের হামলা দলের শীর্ষ নেতাদের মস্তিষ্কপ্রসূত।

‘অনুপ্রবেশকারীরা হামলা করেছে’ মর্মে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের এমন বক্তব্যের সমালোচনা করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘এটা অনুপ্রবেশ নয়, এটা পূর্ব পরিকল্পিত জঙ্গি স্টাইলে হামলা। কারা কারা ওখানে ছিল, ভিডিও ফুটেজ দেখে গ্রেফতার করা হয়েছে।

আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়ার রায়ের দিন আওয়ামী লীগ কোনো কর্মসূচি দেবে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার রায় আদালতের বিষয়। আদালতের রায়ে সরকারের কোন হাত নেই। তাই এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের কোন কর্মসূচির প্রয়োজন নেই। আমাদের পক্ষ থেকে উস্কানিমূলক কিছুই হবে না। আমরা সতর্ক থাকব, যদি কোন বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করা হয়, স্যাবোটেজ জাতীয় কিছু করা হয় তা হলে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে প্রতিহত করা হবে।

কথায় কথায় সিঙ্গাপুর মালয়েশিয়ার সঙ্গে তুলনা হীনমন্যতা

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, কথায় কথায় বাংলাদেশকে সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, হংকং বানানোর তুলনা করাটা হীনমন্যতা। গতকাল বৃহস্পতিবার সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য রহিম উল্লাহর এক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এই মন্তব্য করেন। প্রশ্নকারী তার নির্বাচনী এলাকায় কয়েকটি ব্রিজ তৈরির দাবি জানিয়ে বলেন, এগুলো হলে আমার এলাকা সিঙ্গাপুর হয়ে যাবে।

রায়ে সাজা হলেই রাজপথে কঠোর কর্মসূচি :ফখরুল

৮ ফেব্রুয়ারি রায় ঘোষণার দিন ঢাকাসহ সারাদেশে নেতা-কর্মীরা যেন সড়কে অবস্থান নেন সেজন্য বিএনপির হাইকমান্ড থেকে ইতোমধ্যে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। বিশেষ করে ওইদিন খালেদা জিয়া তার গুলশানের বাসা থেকে বকশি বাজার এলাকায় আদালতে যাওয়ার পথে এবং নয়াপল্টনে দলীয় কার্যালয়ের সামনেসহ আদালতের চারপাশের এলাকায় বিপুলসংখ্যক নেতা-কর্মী-সমর্থককে জড়ো করার প্রস্তুতি নিচ্ছে বিএনপি। আগামীকাল শনিবার অনুষ্ঠেয় দলের জাতীয় নির্বাহী কমিটির সভায় এ ব্যাপারে বিস্তারিত বলতে পারেন দলের কেন্দ্রীয় ও তৃণমূল নেতারা। জানা গেছে, রায়ে সাজা হলেই তাত্ক্ষণিক রাজপথে কঠোর কর্মসূচি নিয়ে মাঠে থাকবে বিএনপি।

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‘মিথ্যা’ মামলায় খালেদা জিয়াকে সাজা দেওয়া হলে জনগণ তা মেনে নেবে না, জনগণকে সঙ্গে নিয়ে সারাদেশে বিএনপির নেতা-কর্মীরা রাস্তায় নেমে আসবে। এছাড়া অন্যায়ভাবে সাজা দিয়ে খালেদা জিয়া ও বিএনপিকে নির্বাচনের বাইরে রাখার ষড়যন্ত্র চলছে অভিযোগ করে ফখরুল বলেছেন, এবার আর ৫ জানুয়ারির মতো নির্বাচন হতে দেওয়া হবে না। আন্দোলনের মাধ্যমে দাবি আদায় করে খালেদা জিয়ার নেতৃত্বেই বিএনপি নির্বাচনে অংশ নেবে।

কঠোর অবস্থানে থাকবে পুলিশ : আইজিপি

পুলিশের নতুন আইজি ড. জাবেদ পাটোয়ারী বলেছেন, পুলিশের প্রধান দায়িত্ব জনগণের জানমালের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা। এ কাজটি পুলিশ দৃঢ়তার সঙ্গে করে যাচ্ছে। সে জন্য আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি কঠোর অবস্থানে থাকবে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীর দায়িত্ব নেয়ার পর গতকাল বৃহস্পতিবার পুলিশ সদর দফতরে মিডিয়া সেন্টারে প্রথম সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, তার বাহিনী হবে নারীবান্ধব, জনবান্ধব, শিশুবান্ধব এবং প্রগতিবান্ধব। দরিদ্র অনগ্রসর শ্রেণির কাছে পুলিশি সেবা ও থানায় সেবার মান বৃদ্ধিতে তিনি পদক্ষেপ নেবেন।

এর আগে সকালে নতুন আইজিপি ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে গিয়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। পরে রাজারবাগ পুলিশ লাইন্স স্মৃতিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে মহান মুক্তিযুদ্ধে শহীদ পুলিশ সদস্যদের স্মৃতির প্রতি সম্মান জানান। এরপর উপস্থিত হন সংবাদ সম্মেলনে। পরে দুপুরে তিনি গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে তার প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এসময় অতিরিক্ত আইজিপিগণ এবং ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনের শুরুতে নতুন আইজিপি ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী বলেন, আমি প্রধানমন্ত্রীর প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানাচ্ছি। তিনি আমাকে বিশ্বাস করে দায়িত্ব দিয়েছেন। আমি সর্বাত্মকভাবে চেষ্টা করবো তার বিশ্বাস এবং আস্থা অর্জন করার। তিনি বলেন, আমরা সরকারের ভিশন ২০২১ ও ভিশন ২০৪১ বাস্তবায়নের উপযোগী আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিশ্চিতকল্পে সুনির্দিষ্ট কর্মপরিকল্পনা নিয়ে এগিয়ে যাব।

পুলিশের মান বৃদ্ধির অঙ্গীকার: আইজিপি বলেন, নিয়মনীতির মধ্য থেকে পুলিশের মানবৃদ্ধির জন্য আমরা কাজ করতে চেষ্টা করব। আমরা স্বচ্ছতা এবং জবাবদিহিতা নিশ্চিত করার চেষ্টা করব। দুই লাখ পুলিশ সদস্যের মধ্যে কতিপয় সদস্য অপরাধে জড়িত থাকলে তাদের বিরুদ্ধে পুলিশের আইনে এবং দেশের প্রচলিত আইনে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

থানার সেবা বৃদ্ধির বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সেবা দেওয়ার ক্ষেত্রে আমাদের মূল জায়গাটি হবে থানা। অফিসারদের সাথে মিটিং করেছি। কিভাবে সেবার মান বৃদ্ধি করা যায় তা নিয়ে আমরা একটি পরিকল্পনা করছি। সেটাও আপনাদের জানানো হবে। বাংলাদেশ পুলিশ আইনের মধ্যে থেকে সর্বোচ্চ কঠোর অবস্থানে থেকে মানুষের জানমালের নিরাপত্তার বিধান করবে। এছাড়া সাইবার অপরাধ দমনে পুলিশের সক্ষমতা বাড়াতে উদ্যোগ নেওয়ার কথাও তিনি বলেন।

বিশেষ নজর মাদক নির্মূলে: মাদক নির্মূলে পুলিশের ভূমিকা নিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ড. জাবেদ পাটোয়ারী বলেন, যতদিন পর্যন্ত মাদকের চাহিদা থাকবে ততদিন পর্যন্ত যোগান থাকবে। নতুন করে যাতে চাহিদা তৈরি না হয় সেজন্য যারা ইতোমধ্যে মাদকে আসক্ত তাদের কীভাবে ফিরিয়ে আনা যায় সেজন্য কাজ করতে হবে। তবে এটা পুলিশের একক দায়িত্ব নয়। তিনি বলেন, জঙ্গিবাদের মতই মাদক নির্মূলে কাজ করে যাব। এ ক্ষেত্রে আমরা থাকব জিরো টলারেন্সে।

গণমাধ্যমের সহায়তা কামনা: দায়িত্ব পালনে গণমাধ্যম কর্মীদের সঙ্গেও কাজ করতে চান নতুন আইজিপি। তিনি বলেন, পুলিশিং সারাবিশ্বে একটি চ্যালেঞ্জিং বিষয়। সাংবাদিকতাও সারাবিশ্বে চ্যালেঞ্জিং বিষয়। আপনারা এবং আমরা একে অপরের পরিপূরক হিসেবে কাজ করছি। সাংবাদিকদের উদ্দেশে তিনি বলেন, আপনারা আগেও যেভাবে পুলিশকে সহযোগিতা করেছেন, আমি সেইভাবেও আপনাদের কাছ থেকে সহযোগিতা চাইছি। আপনারাও সর্বাত্মক সহযোগিতা পাবেন।

শেয়ার করুন
  • 33
    Shares

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here