হাসান রাহমান মারজান
সিলেট প্রতিনধিঃ জনতার নিউজlog

সরকারের শেষ এবং অন্তবর্তী সরকার গঠনের মাঝামাঝি সময়ে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) শাখা জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল ও ইসলামী ছাত্রশিবির ক্যাম্পাসে আধিপত্য বিস্তারের জাল বুনছে।তারা যে কোন সময় ক্যাম্পাস দখলে নিতে মরিয়া হয়ে ওঠেছে এমন সংবাদ এখন সবার মুখে মুখে ফিরছে।এর নমুনাও তারা দেখিয়ে চলছে প্রতিনিয়ত।ইতিমধ্যে শাখা ছাত্রদল ক্যাম্পাসে প্রকাশ্যে বহিরাগতদের নিয়ে শোডাউন, মিছিল, প্রচার মিছিলসহ নানা দলীয় কর্মসূচি পালন করে বেশ সুবিধাজনক অবস্থায় রয়েছে। তবে এদিক দিয়ে খানিকটা পিছিয়ে রয়েছে শিবির।বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, ২০০৮ থেকে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল ও শিবির ২০১১ সাল থেকে ক্যাম্পাস ছাড়া অবস্থায় রয়েছে। তারা বিভিন্ন সময় ক্ষমতাসীন দলের ছাত্রসংগঠন ছাত্রলীগের হামলার লক্ষ্যবস্তুতে ছিলো বলেও অভিযোগ রয়েছে। তবে সবকিছু ভুলে জাতীয় পর্যায়ে ক্ষমতার পালাবদলের সম্ভাবনা দেখা দেয়ায় এবার ২৫ অক্টোবরকে ঘিরে সক্রিয় হবার চেষ্টায় আছে ছাত্রদল ও শিবির। ইতিমধ্যে শারদীয় দুর্গেৎসব ও পবিত্র ঈদুল আযহার ১২ দিন ছুটি শেষে হলেও ক্যাম্পাস ও হলে উপস্থিতি অন্যান্য সময়ের চেয়ে তুলনামূলক হারে কম।তবে ২৫ অক্টোবরে জাতীয় রাজনীতির ছায়ায় ক্যাম্পাসে বড় ধরনের অস্থিতিশীলতার আশঙ্কায় শিক্ষার্থীরা চরম উৎকণ্ঠায় রয়েছেন। এ বিষয়ে শাবি ছাত্রলীগের সভাপতি সঞ্জীবন চক্রবর্তী পার্থ বলেন, ক্যাম্পাসে শিক্ষার পরিবেশ বিনষ্টে যারা জড়িত থাকবে তাদেরকে কঠোর হস্তে দমন করবে ছাত্রলীগ।এ বিষয়ে জানতে চাইলে শাবি শাখা ছাত্রলীগের নেতা উত্তম কুমার দাশ বলেন, ক্যাম্পাস অস্থিতিশীল করতে যে চক্র চেষ্টা করবে তাদেরকে তৃণমূল ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের নিয়ে প্রতিরোধ করা হবে।ক্যাম্পাস দখলের বিষয়ে জানতে চাইলে শাবি ছাত্রদল নেতা সুদীপ জ্যোতি এ্যাষ বলেন, আমাদের দাবি ছিলো ক্যাম্পাস এবং হলে ছাত্রসংগঠনগুলোর সহাবস্থান।কিন্তু প্রশাসন এতদিন বিষয়টি এড়িয়ে গেছে। আমরা আর সহ্য করব না এবার শিক্ষার্থীদের এবং ছাত্রসংগঠনগুলোর সহাবস্থান নিশ্চিত করতে প্রাণান্তকর চেষ্টা চালিয়ে যাব।শাবি ছাত্রদল নেতা ওবাইদুল্লাহ জানান, যে কোন মূল্যে ক্যাম্পাসে আমরা নিজেদের অবস্থানকে পাকাপোক্ত করবো।আমারা সহাবস্থানের রাজনীতিতে বিশ্বাসী, একক আধিপত্যে নয়। ইসলামী ছাত্রশিবিরের শাবি শাখা সভাপতি হোসাইন আহমদ বলেন, এটা দখলের বিষয় নয় বরং একজন শিক্ষার্থীর ক্যাম্পাসে এবং হলে যতটুকু অধিকার পাওয়ার বিধান রয়েছে তা আদায় করতে শিবির পিছু হঠবে না। কোন দিন কিংবা তারিখকে কেন্দ্র করে ক্যাম্পাসে যে কোন ধরনের অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে প্রশাসন সোচ্চার থাকবে বলে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সূত্রে জানা যায়।

শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here