Vidya-1কয়েক দিন ধরেই বলিউডে জোর গুঞ্জন, ‘ডার্টি পিকচার’ তারকা বিদ্যা বালান ও ডিজনি ইন্ডিয়ার ব্যবস্থাপনা পরিচালক সিদ্ধার্থ রয় কাপুরের দাম্পত্য জীবনে টানাপোড়েন শুরু হয়েছে। অফিসের এক নারী কর্মচারীর সঙ্গে সিদ্ধার্থের সখ্যের কারণে বিদ্যার দেড় বছরের সাজানো সংসার ভাঙনের মুখে পড়েছে বলেই খবর চাউর হয়েছে। কিন্তু সম্প্রতি এসব খবরকে ভিত্তিহীন গুজব বলেই উড়িয়ে দিয়েছেন পদ্মশ্রী খেতাব পাওয়া ৩৬ বছর বয়সী এ তারকা অভিনেত্রী।

এ প্রসঙ্গে ‘হিন্দুস্তান টাইমস’কে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে বিদ্যা বলেছেন, ‘আমি ও সিদ্ধার্থ একে অন্যকে নিয়ে অনেক সুখে আছি। আমাদের মধ্যে কোনো দূরত্ব তৈরি হয়নি। আমার ধারণা, শারীরিক অসুস্থতার কারণে সুজয় ঘোষের নতুন ছবিতে অভিনয়ের প্রস্তাব ফিরিয়ে দেওয়ায় এবং আইফা অনুষ্ঠানে যোগ না দেওয়ায় এ ধরনের গুজব ছড়ানো শুরু হয়েছে। শারীরিক অসুস্থতার বিষয়টি আমি আগেই সবাইকে বলেছি। তার পরও এ ধরনের বানোয়াট খবর ছড়ানোর বিষয়টি খুবই দুঃখজনক।’

বিদ্যা আরও বলেন, ‘আমি বহুবার লক্ষ করেছি, কোনো অভিনেতা শেষ মুহূর্তে ছবির প্রস্তাব ফেরালেও শোরগোল ওঠে না। অথচ কোনো অভিনেত্রী ছবির প্রস্তাব ফেরালেই নানা ধরনের কেচ্ছা-কাহিনি ছড়াতে থাকে। আমার ক্ষেত্রেও তা-ই হয়েছে। প্রথমে বলা হলো আমি নাকি অন্তঃসত্ত্বা। তারপর অপেশাদার শিল্পীও বলা হলো আমাকে। আর এখন বলা হচ্ছে, আমার সংসার নাকি ভাঙনের মুখে। আমি বুঝি না, কোনো অভিনেত্রী কি ব্যক্তিগত কারণে কাজ থেকে সাময়িক বিরতি নিতে পারে না! অযথাই ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে এভাবে বানোয়াট খবর ছড়ানোর বিষয়টি কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না।

 
Vidya-2অফিসের এক নারী কর্মচারীর সঙ্গে সিদ্ধার্থের সখ্যের বিষয়ে জানতে চাইলে বিদ্যা বলেন, ‘সত্যিই আমি এ বিষয়ে কিছু জানি না। কিসের ভিত্তিতে এবং কারা এসব খবর রটাচ্ছে, সে সম্পর্কেও আমার কোনো ধারণা নেই। আমার মনে হয়, সম্পূর্ণ কল্পনাপ্রসূত বানোয়াট একটি গল্প ফাঁদা হয়েছে আমাকে আর সিদ্ধার্থকে ঘিরে।’

এদিকে বাবার বাড়িতে প্রচুর সময় কাটানোর পাশাপাশি এবার ভারতের লোকসভা নির্বাচনে ভোট দিতে স্বামীর সঙ্গে ভোটকেন্দ্রে না গিয়ে বাবা-মা ও বোনের সঙ্গে ভোট দিতে যাওয়ায় নানা কানাঘুষা উঠেছে বলিউডে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে একটু খেপেই যান বিদ্যা। তিনি বলেন, ‘এভাবে জবাবদিহি করতে আমি রীতিমতো ঘৃণা করি। তার পরও বলছি, সকাল সাতটায় বাবা-মা ও বোনের সঙ্গে আমি ভোট দিতে যাই। পরে সিদ্ধার্থ যে ভোটকেন্দ্রে ভোট দিয়েছে সেখানেও যাই আমি।’

বিদ্যা আরও বলেন, ‘আমার বাবার বাড়ি আর আমার বাড়ির দূরত্ব খুবই কম। মাত্র পাঁচ মিনিটের পথ। তাই শুটিং না থাকলে বা অবসর পেলে বাবার বাড়িতে যাই আমি। বাবা-মায়ের সঙ্গে সময় কাটাতে আমার ভালো লাগে।’

প্রসঙ্গত, সিদ্ধার্থকে বিয়ের আগে শহিদ কাপুরসহ একাধিক সহ-অভিনেতার সঙ্গে বিদ্যার প্রেমের খবর চাউর হলেও বরাবরই তা অস্বীকার করেছেন বিদ্যা। সিদ্ধার্থের সঙ্গে প্রেমের কথা বিদ্যা স্বীকার করেন ২০১২ সালের মে মাসে। একই বছরের ১৪ ডিসেম্বর ঘরোয়াভাবে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করেন বিদ্যা ও সিদ্ধার্থ। বিদ্যাকে বিয়ে করার আগে আরও দুবার বিয়ে করেছিলেন ৪০ বছর বয়সী সিদ্ধার্থ।

শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here