বিশেষ প্রতিবেদকঃ শামীম এইচ চৌধুরী

 

newক্যারিবীয় ক্রিকেট লিগে (সিপিএল) খেলার অনুমতি না পেয়ে অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান দেশের হয়ে আর খেলবেন না বলে যে হুমকি দিয়েছেন তা সহজভাবে নেয়নি বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। এ জন্য তার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিতে আগামী সোমবার বোর্ড মিটিং ডেকেছে বিসিবি।

বৈঠকে সাকিবের বিষয়টি নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হবে বলে জানিয়েছেন বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন এমপি। তবে তার আগে সভাপতি নিজে সাকিবের সাথে কথা বলে নেবেন। এছাড়াও কোচ চান্দিকা হাথুরাসিংহের বক্তব্যও নেবে বোর্ড। সব মিলিয়েই সিদ্ধান্ত হবে বোর্ড সভায়। তবে এ দফায় সাকিবের ব্যাপারে বিসিবি কঠোর অবস্থান নেবে বলেই আভাস মিলেছে। তাছাড়া ভারতের বিরুদ্ধে প্রথম ওয়ানডের সময় সাকিবের দর্শকের সাথে সাথে ঝামেলা জড়ানো নিয়েও মিটিংয়ে আলোচনা হবে বলে বলে জানিয়েছেন তিনি।

আগামী আগস্ট-সেপ্টেম্বরে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দু’টি টেস্ট, তিনটি ওয়ানডে ও একটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। এই উপলক্ষে ১ জুলাই থেকে অনুশীলন শুরু করেছে বাংলাদেশ। এ উপলক্ষে ১ জুলাই থেকে অনুশীলন শুরু করেছে মুশফিক-মাশরাফি-মাহমুদউল্লাহরা। কিন্তু এই অনুশীলনে যোগ দেননি বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান।
সাকিব অনুশীলনে যোগ না দিয়ে ও বিসিবির কোন অনুমতি ছাড়াই ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (সিপিএল) খেলার উদ্দেশ্যে লন্ডন চলে যায়। এতে সাকিবের উপর অসন্তুষ্ট হয়েছেন বিসিবি প্রেসিডেন্ট নাজমুল হাসান পাপনসহ ক্রিকেট বোর্ড।
বিসিবি প্রেসিডেন্ট নাজমুল হাসান পাপন বলেন ক্রিকেটের ক্ষেত্রে কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলা কোনো ভাবেই মেনে নেওয়া হবে না। খেলোয়ার যত গুরুত্বপূর্ণই হোক না কেন, অন্যায় করলে তার বিষয়ে কোনো ধরনের আপোষ করা হবে না । বিসিবির নির্দেশ অনুযায়ী শনিবারই দেশে ফিরে আসতে হবে সাকিবকে, এবং সেই সঙ্গে চলমান অনুশীলন শিবিরে যোগ দিতে হবে তাকে।
এতে ক্ষিপ্ত হয়ে সাকিব আল হাসান হুমকি দিয়ে বলেছেন বাংলাদেশের হয়ে আর আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলবেন না। সাকিবের হুমকির কথা একটি টেক্সট ম্যাসেস পাঠিয়ে বিসিবি প্রেসিডেন্ট নাজমুল হাসানকে জানিয়েছেন জাতীয় দলে কোচ চন্দ্রিকা হাথুরুসিঙ্গে।
সিপিএল খেলতে যাওয়ার আগে সাকিব কোন অনুমতি নেয়নি, বিসিবি এমন অভিযোগ করলেও, সাকিব জানিয়েছে যে সে আকরাম খানের কাছ থেকে মৌখিক অনুমতি নিয়েছেন। এই বিষয়টি নিয়ে গত কয়েকদিন ধরেই বিসিবি ও সাকিব আল হাসানের মধ্যে টানাহেঁচরা চলছিল। এদিকে বিসিবির নো অবজেকশন সার্টিফিকেট ছাড়াই সিপিএল এ যোগ দেওয়ায় সাকিবকে শাস্তি পেতে হবে বলে জানিয়েছেন বিসিবি সভাপতি।
পাপন বলেন, দুটি বিষয় বাংলাদেশ দলের আকষ্মিক পতনের পেছনে দায়ী। এর একটি হলো নিয়ম না মানা এবং দুর্বল ব্যবস্থাপনা। আমি কঠোর ভাবেই বলছি, একজন বা দু’জন খেলোয়াড়ের কারণে বাংলাদেশের ক্রিকেটের এ অধঃপতন মেনে নেওয়া হবে না। তিনি আরো বলেন সাকিবের এ আচরণ ভবিষ্যতের খেলোয়াড়দের প্রভাবিত করতে পারে। তাই এখনই যদি এ বিষয়ে কঠোর সিদ্ধান্ত না নেওয়া হয় তবে ভবিষ্যতের খেলোয়াড়দের তা ধ্বংস করে দিতে পারে ।

প্রকাশ্যে তর্কে জড়িয়ে পড়া সাকিব আল হাসান কিছুদিন আগে বাংলাদেশ দলের হেড কোচ চন্দিকা হাতুরাসিংহের ওপর ঠিক এ ভাষায়ই চড়াও হয়েছিলেন ।“আপনি যেমন টাকার জন্য বাংলাদেশে এসেছেন, আমিও তেমনি টাকার জন্য সিপিএল (ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগ) খেলতে যাব।প্রয়োজনে আমি বাংলাদেশ দল থেকে অবসর নিয়ে হলেও টি-টোয়েন্টি খেলব”

সাকিবের এমন ঔদ্ধত্বপূর্ণ বক্তব্য এবং আচরণের কথা বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডকেও (বিসিবি) লিখিত আকারে জানিয়েছেন জাতীয় দলের কোচ চন্দিকা হাতুরাসিংহ। এছাড়াও শ্রীলঙ্কা সিরিজের সময় টিভিতে অশ্লীল অঙ্গভঙ্গি করার জন্য তিন ম্যাচের নিষেধাজ্ঞা ভোগ করার পরও এটি বিবেচনায় থাকছে, কারণ গত কয়েক মাসে একের পর এক বিতর্কে জড়িয়েছেন তিনি। গত মাসে ভারত-বাংলাদেশের একটি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলার সময় ড্রেসিংরুম ছেড়ে অন্যত্র যাওয়া এবং সেখানে তার স্ত্রীকে উত্ত্যক্ত করার কারণে এক যুবকের সঙ্গে ধ্বস্তাধস্তি হয়। যার ফলে শুনানির কাঠ গড়ায় দাঁড়াতে হয় তাকে। এবং ভারত সিরিজের সময় আরেক ঘটনায়ও হৈচৈ পড়ে গিয়েছিল। সংশ্লিষ্টদের কাউকে কিছু না জানিয়ে হোটেলের রুম পাল্টে অন্য ফ্লোরে চলে যাওয়া নিয়ে আকসুর জিজ্ঞাসাবাদের মুখেও পড়তে হয়েছে বিসিবিকে। এছাড়া বিসিবির ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটির ম্যানেজার তাঁকে দেশ ছাড়তে পারবেন না জানানোর পরও চলে যাওয়াটা সাকিবের অপরাধের গভীরতা আরো বাড়িয়েছে ।বিসিবি কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিং বিসিবির কাছে যে চিঠি দিয়েছিলেন তার বেশিরভাগ অংশ জুড়েই ছিলো তামিম ইকবাল ও সাকিব সম্পর্কিত অভিযোগ। এটাও বিসির বিরক্তির একটি কারণ। কিন্তু ওই চিঠিরর জন্য আমি প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেব। আগামী ৭ জুলাই ক্রিকেট বোর্ডের সভায় এ সংক্রান্ত বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে জানিয়ে তিনি বলেন, ক্রিকেট অপারেশন কমিটিসহ ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রেই সম্ভবত উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন আনা হবে। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড দলীয় শৃঙ্খলা রক্ষা ইস্যুতে শেষ পর্যন্ত নড়েচড়ে বসলো। আর একজন বড়মাপের খেলোয়রকে শিক্ষা দেওয়ার মাধ্যমেই কি এ কাজ শুরু করতে যাচ্ছে বিসিবি।

এ বিষয়ে বিসিবি সভাপতি বলেন, সাকিব আমার প্রিয় খেলোয়াড়, মোহাম্মদ আশরাফুলও তাই। কিন্তু ওই চিঠির জন্য আমি প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেব। সাকিবকে সম্মানের সঙ্গেই বলছি, বাংলাদেশ ক্রিকেটের জন্য ভালো হয় এমন কোন ধরনের সিদ্ধান্ত নিতে আমরা দ্বিধান্বিত হবো না।

শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here