অনলাইন ডেস্ক

newফুটবল যে কতো অনিশ্চয়তার খেলা, কতো রঙ ছড়ানো খেলা তার অনন্য এক উদাহরণ সৃষ্টি করল নেদারল্যান্ডস। আর ৪/৫ মিনিট পরে যেখানে তাদের বিদায় নেয়ার কথা। সেখানে উল্টো জয়ই তুলে নিল ডাচরা। সেই সঙ্গে জয়ের দ্বারপ্রান্তে এসেও বিদায় নিতে হলো মেক্সিকোকে।

রবিবার রাতে নাটকীয়ভাবে বিদায়ের হাত থেকে বেঁচে গেছেন রোবেন, ফন পার্সি ও স্নাইডাররা। খেলার ৮৮ ও ৯০ মিনিটে পরপর দুটি গোল করে মেক্সিকোকে ২-১ গোলে হারিয়েছে তারা।

প্রথমার্ধে কোনো দলই গোলের দেখা পায়নি। তবে দ্বিতীয়ার্ধে মেক্সিকোকে বেশিক্ষণ অপেক্ষা করতে হয়নি। দোস সান্তস গোল করে এগিয়ে দেন দলকে। পরে গোলের জন্য মরিয়া হয়ে ওঠে রোবেন ও ফন পার্সিরা। কিন্তু তাদের সব প্রচেষ্টায় যেন ছোট হয়ে গেল ওচোয়ার কাছে। একের পর এক রুখে দিলেন রোবেন ভালো ভালো সব আক্রমণ। ডাচ কোচ ৭৬ মিনিটে ফন পার্সিকে তুলে মাঠে নামালেন হান্টেলারকে। আর এতেই বদলে গেল চিত্র। তার সহায়তায় ৮৮ মিনিটে গোল করে নেদারল্যান্ডসকে সমতায় ফেরান স্নাইডার। এর ২ মিনিট পর গোল করে দলকে এগিয়ে দেন সেই হান্টেলারই। নির্ধারিত সময় শেষে গোল ব্যবধানে এগিয়ে থাকলো ডাচরা।

ট্রাইব্রেকারে গ্রিসকে হারিয়ে শেষ আটে কোস্টারিকা

 

গ্রিসকে ট্রাইব্রেকারে হারিয়ে শেষ আটে জায়গা করে নিল কোস্টারিকা। অব্যাহত থাকল তাদের চমক। খেলার ৬৬ মিনিটে ১০ জনের দলে পরিণত হওয়া কোস্টারিকাকেও আটকাতে পারল না গ্রিকরা।

রবিবারের দ্বিতীয় পর্বের খেলায় নির্ধারিত ৯০ মিনিট শেষে ১-১ গোলে সমতায় থাকে কোস্টারিকা ও গ্রিস। পরে অতিরিক্ত ৩০ মিনিটেও গোলের দেখা পায়নি কোনো দলই। জয়-পরাজয় নির্ধারণের শেষ অস্ত্রের আঘাতে ছিটকে পড়ল গ্রিকরা।

প্রথমার্ধে সমানে সমানেই লড়ে উভয়দলই। দ্বিতীয়ার্ধে ৫২ মিনিটের মাথায় রুইজের গোলে এগিয়ে যায় কোস্টারিকা। ৬৬ মিনিটের মাথায় পরপর দুইটি হলুদ কার্ডের সুবাদে মাঠ ছাড়তে হয় কোস্টারিকার খেলোয়াড় দুর্তাকে। পরে ৯০+ অতিরিক্ত গোল করে গ্রিসকে সমতায় ফেরান পাপাস্টাথোপাওলাস।

শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here