newsউচ্চ ক্ষমতার অনুসন্ধানী জাহাজ জরিপ-১০ আজ শুক্রবার সকাল ছয়টার দিকে মাওয়ার দুর্ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে। অনুসন্ধানী জাহাজ কান্ডারীর-২ এবং সাইড স্কেন ছোনার ব্যবহার করে তিস্তা, সন্ধানী, আইটি ৯৭ ও ব দ্বীপ শুক্রবার সকাল থেকে ডুবে যাওয়া লঞ্চ ‘পিনাক-৬’ সন্ধান করে চলছে।

এসব তথ্য জানিয়ে নৌ বাহিনীর সদর দপ্তরের উপ পরিচালক কমান্ডার হাবিবুল আলম জানান, দুর্ঘটনাস্থলের আশপাশের ৫০ বর্গ কিলোমিটার এলাকা অনুসন্ধান করার পর এখন নতুন করে আবার অভিযান চলাচ্ছে তারা। জরিপ-১০ পৌঁছায় অনুসন্ধান আরো জোরদার হয়েছে। লঞ্চটি শনাক্ত করা সম্ভব হবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

লঞ্চের অবস্থান নিশ্চিত করতে না পারায় উদ্ধারকারী জাহাজ ‘নির্ভীক’ ও ‘রুস্তম’ মাঝ পদ্মায় অলস বসে আছে। দীর্ঘ পাঁচ দিনে লঞ্চের অবস্থান নিশ্চিত করতে না পারায় ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে স্বজনহারা পরিবারগুলো। স্বজনহারাদের বুকফাটা আর্তনাত ও দীর্ঘ পাঁচ দিনের অপেক্ষায় এক শোকাবহ অবস্থা বিরাজ করছে মাওয়ার পদ্মার চরে।

মাওয়া পদ্মায় ডুবে যাওয়ায় লঞ্চ যাত্রীর লাশ ভেসে উঠছে ভাটির বিভিন্ন নদীতে তীরে। বৃহস্পতিবার আরো ১৪টি লাশ উদ্ধার উদ্ধার হয়েছে। এ নিয়ে উদ্ধারকৃত লাশের সংখ্যা ৩৬। এর মধ্যে ভোলা থেকে ১০, শরীয়তপুর থেকে ৮, বরিশাল থেকে ৮, চাঁদপুরে ৫, লক্ষীপুরে ১, মাদারীপুরে ১ ও ঘটনাস্থল মুন্সীগঞ্জের মাওয়া থেকে তিনজনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

৩৭টি লাশের মধ্যে পরিচয় নিশ্চিত হওয়া ১৮ জনের লাশ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। বাকি ১৮টি লাশ মাদারীপুর জেলার শিবচরের পাঁচ্চর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে রাখা হয়েছে। দীর্ঘ সময় পানিতে পড়ে থাকা লাশগুলো শনাক্ত করাও কঠিন হয়ে পড়েছে। জামা কাপড় দেখে কোনক্রমে শনাক্ত করা হচ্ছে। তাই উদ্ধারকৃত লাশের অর্ধেকই রয়েছে শনাক্তহীন। স্বজনরা লাশ সনাক্তের জন্য ডিএনএ টেস্টের দাবি করেছেন।

মুন্সীগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. সাইফুল হাসান বাদল জানান, তাদের তালিকায় এখন পর্যন্ত ১৩৩ নিখোঁজ রয়েছে। তারা লঞ্চ উদ্ধারের সর্বাত্মক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। লঞ্চ উদ্ধারে বিলম্বের কারণ সম্পর্কে বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যান ড. শামসুদ্দোহা খন্দকার জানান, দুর্ঘটনাস্থলে প্রবল ঘুর্নিস্রোত এবং পানির গভীরতা প্রায় ৮০/৯০ ফুট। ঘুর্নিস্রোতের কারণে সেখানে গর্ত হচ্ছে আবার বালু জমা হচ্ছে। তাই লঞ্চটি পানির স্রোতে দূরে সরে গিয়ে বালুর নিচে চাপা পড়ে থাকতে পারে।

শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here