বিশ্ববিদ্যালয় সংবাদাতা: জনতার নিউজঃ

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় দখলে যেকোনো সময় নাশকতা চালাতে পারে ছাত্রশিবিরে
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় দখলে যেকোনো সময় নাশকতা চালাতে পারে ছাত্রশিবিরে

তিন বছর নীরব থাকার পর সম্প্রতি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে আধিপত্য বিস্তারে মরিয়া হয়ে উঠেছে ছাত্রশিবির। ইতিমধ্যে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের উপর হামলা চালানো হয়েছে। বর্তমানে বড় ধরণের নাশকতার পরিকল্পনা নিয়ে প্রস্তুতি নিচ্ছে শিবির। উল্লেখ্য ছাত্রশিবির ১৯৮৪ সাল থেকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মকাণ্ড শুরু করে। এ পর্যন্ত ছাত্রশিবিরের বিরুদ্ধে ১৭ জন শিক্ষার্থী ও ২ জন শিক্ষক হত্যা, অগ্নিসংযোগ, লুটপাটসহ সহিংসতার অভিযোগ রয়েছে। রগকাটা ও আহতদের সঠিক পরিসংখ্যান নেই। ২০১০ সালে ছাত্রলীগ নেতা ফারুক হত্যার পর ছাত্র-শিক্ষকদের মাঝে ব্যাপক ক্ষোভের সঞ্চার হলে পুলিশী অভিযানের কারণে ছাত্রশিবিরের কর্মকাণ্ড স্তিমিত হয়ে পড়ে। সম্প্রতি সক্রিয় হয়ে গত ৩ মাসে শিবির ক্যাডাররা ছাত্রলীগের তিন জনের রগ কেটেছে। সর্বশেষ গত ৮ অক্টোবর তাদের হামলার শিকার হয় ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শরিফুল ইসলাম সাদ্দাম। সরকারের মেয়াদ শেষ হওয়াকে লক্ষ রেখে এখন আবার শিবির ক্যাডাররা আধিপত্য বিস্তারে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। ক্যাম্পাস দখলের জন্য বড় ধরণের নাশকতার পরিকল্পনা নিয়ে অগ্রসর হচ্ছে শিবির। এক্ষেত্রে তাদের মূল টার্গেট ছাত্রলীগ। ছাত্রলীগ, ছাত্রছাত্রী ও শিক্ষকদের উপর যেকোন সময় হামলা চালাতে পারে শিবির ক্যাডাররা। আধিপত্য বিস্তারে গান পাউডার, অস্ত্রসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে শিবির ক্যাডারদের রাজশাহী আনা হচ্ছে বলে জানা গেছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও ছাত্রছাত্রীরা দীর্ঘদিন যাবত সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের কারণে শিবিরকে নিষিদ্ধের দাবি জানিয়ে আসছে। এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট পুলিশ প্রশাসনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তারা জানায় শিবিরসহ সবধরনের নাশকতা ঠেকাতে পুলিশ তৎপর রয়েছে।

শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here