তানভির আহমেদ, মেহেরপুর প্রতিনিধি : জনতার নিউজ।

মেহেরপুর গাংনী শহর থেকে একটি পালসার মোটররসাইকেল নিয়ে পালানোর সময় দুই যুবককে আটক করেছে পুলিশ। সোমবার সন্ধ্যার পর গাংনী-হাটবোয়ালিয়া সড়কের হেমায়েতপুর মোড়ে পুলিশের চেক পোষ্টে তারা ধরা পড়ে। এরা হচ্ছে চৗগাছা গ্রামের শফিকুল আলমের ছেলে তৌফিক আলী (১৯) ও শিশিরপাড়া গ্রামের জালাল উদ্দীনের ছেলে সাগর (১৮)। এসময় মোটর সাইকেলটি উদ্ধার করেছে পুলিশ। মোটর সাইকেল মালিক রিকাত আলী জানিয়েছেন মোটর সাইকেলটি চুরি করে তারা পালিয়ে যাচ্ছিল। মোটর সাইকেল মালিক ও গাংনী থানা সুত্রে জানা গেছে, ভরাট গ্রামের রিকাত আলী বড় ভাই মাদানুল ইসলামের পালসার মোটর সাইকেল (যার নং ঢাকা মেট্রো ল-১৩-৫৪৪১) নিয়ে চৌগাছা হাসপাতাল বাড়ার একটি বাসায় যান। কিছুক্ষণ পরে বাসা থেকে বাইরে এসে দেখতে পান মোটর সাইকেল নেই। তাৎক্ষনিক গাংনী থানায় চুরি খবর দিলে পুলিশ বিভিন্ন সড়কে চেক পোষ্ট বসায়। হাটবোয়ালিয়ার দিকে যাওয়ার সময় হেমায়েতপুর পুলিশ চেক পোষ্টে এএসআই মজনু মোটর সাইকেল সহ তৌফিক ও সাগরকে আটক করেন। রিকাত আলী মোটর সাইকেলটি সনাক্ত করার পর ও দুই যুবককে থানায় নেয় পুলিশ। গাংনী থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাছুদুল আলম জানিয়েছেন, তারা মোটর সাইকেলটি চুরি করে নিরাপদে যাওয়ার সময় আটক করা হয়েছে। মামলার প্রস্তুতি চলছে।
অন্যদিগে   মেহেরপুর সদর উপজেলার বর্শিবাড়ীয়া গ্রামের একটি নার্সারী থেকে ৫টি ককটেল উদ্ধার করেছে পুলিশ। সোমবার সকাল সোয়া আটটার দিকে বারাদি পুলিশ ক্যাম্প সদস্যরা এগুলো উদ্ধার করে ক্যাম্পে নেয়। স্থানীয় ও পুলিশ সুত্রে জানা গেছে, সকালে বর্শিবাড়ীয়া মাঠে কয়েকজন কৃষক আখ কাটতে পায়। এসময় আমিজ উদ্দীনের নার্সারীর মধ্যে ককটেল গুলো পড়ে থাকতে দেখে বারাদি পুলিশ ক্যাম্পে খবর দেয়। বারাদি পুলিশ ক্যাম্পের এএসআই বিশ্বনাথ সঙ্গীয় পুলিশ সদস্যদের নিয়ে ৫টি ককটেল উদ্ধার করেন। পানি-বালি ভর্তি পাত্রে প্রাথমিকভাবে নিষ্কিয় করে ককটেলগুলো ক্যাম্পে রাখা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। অপর দিকে মেহেরপুর শহরে ফাঁকা জায়গায় দুটি ককটেল বিষ্ফোরণ ঘটিয়েছে অজ্ঞাত দুর্বত্তরা। সোমবার সকাল সাতটার দিকে হোটেল বাজার মোড় ও বড় বাজার মোড়ে ককটেল দুটি বিষ্ফোরণ হয়। স্থানীয়রা জানিয়েছেন অজ্ঞাত কয়েকজন ককটেল দুটি নিক্ষেপ করে দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। বিকট শব্দে বিষ্ফোরিত হয়। বিষ্ফোরণ স্থানে ধোয়ায় আছন্ন হয়ে পড়ে ।

শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here