তিন বছর আগে মারা গিয়েছেন মা। সেই বৃদ্ধা মায়ের নাড়িভুঁড়ি বের করে তার দেহ তিন বছর ধরে ফ্রিজে রেখে দিয়েছিল ছেলে। বুধবার খোঁজ পেয়ে ফ্রিজ থেকে বীণা মজুমদারের দেহ বের করে পুলিশ। খবর এবেলার।

ছেলে শুভব্রত মজুমদার এলাকায় মেধাবী ছাত্র হিসেবেই পরিচিত ছিল। বিজ্ঞানের ছাত্র হওয়ায় মৃতদেহ সংরক্ষণ করতে তার বেগ পেতে হয়নি। পুরো দেহটি ফরমালিন মাখানো ছিল। তবে দেহে একটি কাটা দাগও রয়েছে।

মৃতদেহটি ইতিমধ্যে ময়নাতদন্তের জন্য নিয়ে গিয়েছে পুলিশ। এরপর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় জেলা প্রশাসক নীলাঞ্জন বিশ্বাস।

তবে পুলিশের ধারণা, মায়ের পেনশন পাওয়ার জন্যই এই কাজ করেছে শুভব্রত। বীণা দেবীর অ্যাকাউন্ট ছিল আলিপুর স্টেট ব্যাঙ্কে। এটিএম থেকে সেই টাকা তুলত শুভব্রত। শুভব্রত লেদার ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ছাত্র ছিল। সে জন্যই সে এত দক্ষতার সঙ্গে কেমিক্যাল লাগিয়েছিল মায়ের দেহে। পাড়া-প্রতিবেশীরা কোনো গন্ধ পায়নি।

পুলিশ জানিয়েছে, সম্প্রতি একটি নতুন ফ্রিজ কিনেছিল শুভব্রত। প্রতিবেশীদের অনুমান, হয়তো বাবার মৃত্যুর পরে তাকেও ফ্রিজে সংরক্ষণ করে রাখার পরিকল্পনা ছিল ছেলের। কারণ তার বাবা অবসরপ্রাপ্ত সরকারি চাকরিজীবী। বাবার পেনশন চালু রাখার জন্য তাকেও ফ্রিজে রাখার কথা হয়তো ভাবছিল শুভব্রত।

 
শেয়ার করুন
  • 20
    Shares

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here