bender_logo

ঢাকার নিম্ন আদালতের দৈনন্দিন কার্যতালিকা ও মামলা নিষ্পত্তি সংক্রান্ত সব তথ্য এখন মোবাইল ফোন থেকেই জানা যাবে। আজ শনিবার এ সংক্রান্ত একটি মোবাইল অ্যাপসের উদ্বোধন করেছেন প্রধান  বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা।
ঢাকার দায়রা জজ আদালতের জগন্নাথ-সোহেল স্মৃতি মিলনায়তনে এক সেমিনারে এই অ্যাপস উদ্বোধন করা হয়।
সুপ্রিম কোর্ট ও ইউএনডিপি যৌথভাবে ‘জাস্টিস সেক্টর কোঅর্ডিনেশন: চেইঞ্জেস অ্যান্ড অপরচুনিটিজ’ শীর্ষক এই সেমিনারের আয়োজন করে।
জেলা জজ আদালত, মহানগর দায়রা জজ আদালত, মুখ্য মহানগর হাকিম আদালত ও মুখ্য বিচারিক হাকিমের আদালতের জন্য পৃথক অ্যাপস রয়েছে বলে সেমিনারে জানানো হয়।
এতে প্রধান বিচারপতি জেলা আদালতগুলোতে পাহাড়সমান মামলাজট নিরসনের চ্যালেঞ্জ ও সমস্যাগুলো নিয়ে বক্তৃতা করেন। এসময় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন এবং চেক সংক্রান্ত নেগোশিয়েবল ইন্সট্রুমেন্ট (এনআই) আইনে আপসযোগ্য বিধান সংযোজন করা উচিত বলে মন্তব্য করেন তিনি।
তিনি বলেন, এই দুটি আইনে আপসরফার বিধান থাকলে বিচার প্রার্থীরা সুফল পেতেন বলে মনে করেন তিনি।

প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘আমি দৃঢ়ভাবে ঘোষণা করছি, বিচার বিভাগ সম্পূর্ণ স্বাধীন। সারা বাংলাদেশে আমার বিচারকেরা বিচার করতে চুল পরিমাণ হস্তক্ষেপ বরদাশত করবেন না। সুপ্রিম কোর্টের অনুমোদন ছাড়া তাদের কোনো পদোন্নতি ও বদলির আদেশ হয় না। আমি প্রধান বিচারপতি হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার পর কোনো বিচারকের পদোন্নতি ও বদলি সুপ্রিম কোর্টের অনুমোদন ছাড়া হয়নি। বিচার প্রশাসন নিয়ে আপত্তিকর কোনো ধরনের বক্তব্য থেকে বিরত থাকবেন।’

সরকারি আইন কর্মকর্তাদের (পিপি-জিপি) বেতন-ভাতা বাড়ানো দরকার-এমন মন্তব্য করে প্রধান বিচারপতি বলেন, বেতন-ভাতা, পদমর্যাদা না বাড়ালে তাঁদের কাছ থেকে ভালো সার্ভিস পাওয়া যাবে না।

সেমিনারে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ঢাকার মহানগর দায়রা জজ কামরুল হাসান মোল্লা, ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম শেখ হাফিজুর রহমান, ইউএনডিপির প্রধান টেকনিক্যাল অফিসার মি. ক্রিশ্চিয়ান জন এলডন, ঢাকা আইনজীবী সমিতির সভাপতি মাসুদ আহমেদ তালুকদার প্রমুখ।

শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here