new

রাজধানীর মগবাজারের ওয়ারলেস গেট এলাকার সোনালীবাগে সন্ত্রাসীদের গুলিতে তিনজন নিহত হয়েছেন। গতকাল বৃহস্পতিবার রাত সোয়া ৮টার দিকে এই ঘটনা ঘটে। স্থানীয় লোকজনের ভাষ্য মতে, শীর্ষ সন্ত্রাসী কালাবাবু’র নেতৃত্বে ৫/৬ জন সন্ত্রাসী সোনালীবাগের চান বেকারীর গলির ৭৮ নম্বর বাড়িতে ঢুকে এলোপাতাড়ি গুলি করে। এতে ঘটনাস্থলেই ওই বাড়ির ভাড়াটিয়া বিল্লাল হোসেন (২২), মুন্না মিয়া (২০), রানু বেগম বৃষ্টি (৩২) ও হূদয় (২০) নামে চারজন গুলিবিদ্ধ হন। দ্রুত তাদের ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নেয়া হলে বিল্লাল হোসেন, মুন্না মিয়া ও রানু বেগম বৃষ্টিকে মৃত ঘোষণা করেন কর্তব্যরত চিকিত্সক। অপর গুলিবিদ্ধ হূদয় একই হাসপাতালে চিকিত্সাধীন রয়েছেন। তার অবস্থাও আশঙ্কাজনক। হূদয় বৃষ্টির ছোট ভাই।

 

ঘটনাস্থল থেকে রমনা থানার উপ-পরিদর্শক জামিনুর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, একটি প্রাচীর নির্মাণকে কেন্দ্র করে বিরোধের জের ধরে এ ঘটনা ঘটেছে। কালাচাঁন নামে এক ব্যক্তি ওই জমিটি দখল করে রেখেছেন। জমির মালিক দখল নিতে গেলে কালাচাঁন সন্ত্রাসী হিসেবে কালাবাবু’কে ভাড়া করে আনেন। কয়েকদিন আগে কালাবাবু ঘটনাস্থলে গিয়ে কয়েকটি ফাঁকা গুলিবর্ষণ করে আশপাশের লোকজনকে হুমকি দিয়ে চলে যায়। গতকাল রাতে কালাবাবু ওই বাড়িতে ঢুকে এলোপাতাড়ি গুলি করে।

 

রমনা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মশিউর রহমান জানান, একটি বাড়ির সীমানা প্রাচীর নির্মাণকে কেন্দ্র করে সন্ত্রাসী কালাবাবু ৭৮ নম্বর সোনালীবাগের বাড়িতে এলোপাতাড়ি গুলি করে। এতে বৃষ্টি ও ওই বাড়ির ভাড়াটিয়া বিল্লাল হোসেন এবং মুন্না গুলিবিদ্ধ হয়। তাদের উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে এলে দায়িত্বরত চিকিত্সক তাদের তিনজনকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। বৃষ্টির ভাই শামীম আহমেদ জানান, গতকাল রাত সোয়া আটটার দিকে ওই চারজন বাসায় বসে কথা বলছিল। এ সময় কালাবাবুর নেতৃত্বে ৫/৬ জন অস্ত্রধারী ঘরে ঢুকে এলোপাতাড়ি গুলি করে।

 

রমনা থানা পুলিশ জানিয়েছে, এই ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ত থাকার সন্দেহে একজনকে আটক করা হয়েছে। তবে পুলিশ তদন্তের স্বার্থে তার পরিচয় জানায়নি। পুলিশ জানায়, খুনিদের ধরতে ইতিমধ্যে অভিযান শুরু হয়েছে। শিগগিরই খুনিরা গ্রেফতার হবে বলে আশা করছে রমনা থানার কর্মকর্তারা।

শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here