J News
বুধবার বিপিও সামিট উদ্বোধন করবেন সজীব ওয়াজেদ জয়

আউটসোর্সিং খাতে পর্যাপ্ত জনবল তৈরিতে দেশে প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে বিজনেস প্রসেস আউটসোর্সিং (বিপিও) সম্মেলন। বুধবার রাজধানীর প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলে দুই দিনব্যাপী ‘বিপিও সামিট ২০১৫’ উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়।

৯ থেকে ১০ ডিসেম্বর আন্তর্জাতিক এই সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। সম্মেলনটি আয়োজন করেছে সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ এবং বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব কলসেন্টার অ্যান্ড আউটসোর্সিং (বাক্য)।

প্রযুক্তি ব্যবসা পরিচালনা, ব্যবসার উন্নয়ন ও বিনিয়োগের আদর্শ দেশ হিসেবে বাংলাদেশকে বিশ্ব-দরবারে পরিচিত করতে এই সম্মেলনের আয়োজন করা হচ্ছে। এতে সরকারের ভিশন ২০২১ বাস্তবায়ন উপযোগী বিপিও খাতের সরকারী-বেসরকারি যৌথ উদ্যোগের চিত্রও তুলে ধরা হবে।

সোমবার রাজধানীর আগারগাঁয়ের বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল (বেসিস) ভবনের কনফারেন্স রুমে সংবাদ সম্মেলন করে এই সম্মেলনের বিস্তারিত তুলে ধরেন আইসিটি বিভাগ ও বাক্যের প্রতিনিধিরা।

সংবাদ সম্মেলনে আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, বিশ্বে প্রায় ৫০০ বিলিয়ন ডলারের বিপিও বাজার আছে। যেখানে পাশের দেশ ভারত প্রায় ৮০ বিলিয়নের বাজার দখল করেছে। এছাড়াও শ্রীলঙ্কা, পাকিস্তানও বিপিওর একটা বড় বাজার দখল করেছে। এই বাস্তবতায় আমরা ২০১৮ সালের মধ্যে এক বিলিয়ন এবং ২০২১ সালের মধ্যে তিন বিলিয়ন ডলারের বাজার ধরতে চাই।

পলক বলেন, দুই দিনের এই আয়োজনে বিভিন্ন সেক্টরের ব্যক্তিদের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। আশা করছি, সম্মেলনটির মধ্য দিয়ে দেশের তরুণদের একটা অংশকে এই খাতে আগ্রহী করা সম্ভব হবে।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, দেশে ৫৫৪টি বিপিও সেন্টার স্থাপন করা হবে। প্রতি বছর বাংলাদেশে আড়াই লাখ শিক্ষার্থী উচ্চশিক্ষা শেষ করেন। এদের মধ্য থেকে একটা বড় অংশকে বিপিও খাতের উপযোগী করতে উচ্চতর প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করবে সরকার।

সংবাদ সম্মেলনে বাক্যের সভাপতি আহমাদুল হক ববি জানান, দুই দিনের সম্মেলনে মোট ১২টি সেশন থাকছে। যেখানে বিভিন্ন বিষয়ে সেমিনার অনুষ্ঠিত হবে। আর সেশনগুলোতে স্থানীয় ৭৯ জন এবং আন্তর্জাতিক নয় জন বক্তা বক্তব্য রাখবেন।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন বাক্যের সহ-সভাপতি ওয়াহিদ শরীফ, সাধারণ সম্পাদক তৌহিদ হোসেন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মাদ আমিনুল হক, ফাইন্যান্স সেক্রেটারি তানভীর ইব্রাহীম, আইসিটি বিভাগের সচিব শ্যাম সুন্দর সিকদার, অতিরিক্ত সচিব মো. হারুনুর রশীদসহ অনেকে।

সম্মেলন আয়োজনে অংশীদার হিসেবে যুক্ত হয়েছে বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস), বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতি (বিসিএস), বাংলাদেশ আইসিটি জার্নালিস্ট ফোরাম (বিআইজেএফ), বাংলাদেশ ওমেন ইন টেকনোলজি (বিডব্লিউআইটি), সিটিও ফোরাম বাংলাদেশ, ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ই-ক্যাব), ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বারস অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজ (এফবিসিসিআই), আইএসপি অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (আইএসপিএবি) ও বাংলাদেশ মোবাইল ফোন ইমপোর্টারস অ্যাসোসিয়েশন (বিএমপিআইএ)।

শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here