টানা এক মাসের কর্মবিরতি, আন্দোলন, দফায় দফায় সমঝোতা বৈঠক, সংবাদ সম্মেলন, মতবিনিময় করেও সমাধান হয়নি বরিশাল সিটি করপোরেশনের চলমান কর্মবিরতির। গতকাল রবিবার সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবসে মেয়র মোঃ আহসান হাবিব কামাল বিসিসিতে আসতে পারেন এমন সংবাদ পেয়ে আন্দোলনরতরা প্রধান ফটক আটকে বিক্ষোভ করতে থাকে।

পরবর্তীতে মেয়র কিংবা প্রধান নির্বাহী, সচিব কেউই আর আসেননি। আন্দোলনরতরা দিনব্যাপী প্রধান ফটকে তাদের বকেয়া বেতন-ভাতার দাবি ও মেয়রবিরোধী নানান শ্লোগান দিতে থাকে। তারা বকেয়া পরিশোধ না হওয়া পর্যন্ত মেয়রকে বিসিসিতে প্রবেশ করতে দেয়া হবে বলে বক্তব্য দেন।

গতকাল স্থায়ীদের পাশাপাশি অস্থায়ী দৈনিক মজুরি ভিত্তিতে কর্মরত শ্রমিকরা পরিচ্ছন্নতা কাজ বন্ধ রেখে বিসিসিতে অবস্থান করলে নগরীর আবর্জনা রাস্তায় পড়ে থাকে। বিকাল পর্যন্ত আবর্জনা পড়ে থাকায় নগরবাসীর দুর্ভোগ পোহাতে হয়। আন্দোলনকারীরা জানান, সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীরা বিসিসিতে অবস্থান নেয়ায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। তারা জানান বিকালে এ সব আবর্জনা পরিষ্কার করা হবে কিন্তু গতকাল বিকালে নগরীতে দেখা গেছে আবর্জনার স্তূপ।

এক মাসের এ কর্মবিরতি চলাকালে দফায় দফায় সিনিয়র কাউন্সিলররা সমঝোতা বৈঠক এবং মেয়রের দু’বার সংবাদ সম্মেলন ও আন্দোলনরতা দু’বার মতবিনিময় করলেও সমাধান মিলছে না। পাল্টাপাল্টি সংবাদ সম্মেলন ও মতবিনিময় সভায় এক পক্ষ অপর পক্ষের উপর দোষ চাপিয়ে দিয়ে নগরবাসী ও সাংবাদিকদের সহযোগিতা চাওয়ার মধ্যেই সীমাবদ্ধ রয়েছে।

মেয়র বলছেন তাদের দাবি মেনে নেয়া হলেও অদৃশ্য ক্ষমতার জোরে কয়েকজন মিলে এ কর্মবিরতিতে উসকানি দিচ্ছে। অপরদিকে আন্দোলনরত নেতারা মেয়রের বিরুদ্ধে অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ আনছে। ফলে উভয়পক্ষ মান্য করে এমন কেউ বিষয়টি সুরাহা না করলে সমাধান মিলবে না বলে মনে করছেন নগরবাসী।

সচেতন নাগরিক কমিটির সহ-সভাপতি প্রফেসর শাহ সাজেদা বলেন, এক মাস নাগরিকরা বিসিসি’র দাপ্তরিক কোনো সেবা পাচ্ছে না। রবিবার থেকে বাসাবাড়ির আবর্জনা ডাস্টবিন কিংবা রাস্তার পাশ থেকে পরিষ্কার করা হচ্ছে না। এভাবে চলতে থাকলে পরিস্থিতি জটিল আকার ধারণ করবে। তিনি মেয়র ও আন্দোলনকারীদের মধ্যে দ্রুত সমঝোতা করে বিষয়টি নিরসনের দাবি জানান।

আন্দোলনের নেতৃত্বদানকারীদের বিসিসি পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা দিপক মৃধা বলেন, মেয়র আগের আন্দোলনেও প্রতিশ্রুতি দিয়ে রক্ষা করেননি। এবার আগে বেতন নিয়ে পরে কাজে ফিরবেন তারা। তবে নাগরিক জরুরি সেবার বিষয়টি তারা আন্দোলনের বাইরে রাখছেন বলে দাবি করেন তিনি।

শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here