52cc176e52462-roshanঅবশেষে নির্বাচন প্রশ্নে সব ধরনের ধুম্রজাল ও জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটালো জাতীয় পার্টি (জাপা)। দলটির চেয়ারম্যান এইচএম এরশাদ ‘অনড়’ অবস্থান থেকে আবার ইউটার্ন নিচ্ছেন, দশম সংসদের সদস্য হিসেবে তিনিও শপথ নিতে যাচ্ছেন। আর তারই ‘দোয়া’ নিয়ে সংসদের বিরোধী দলীয় নেত্রী হতে চলছেন স্ত্রী রওশন এরশাদ। এছাড়া জাপা সংসদে প্রধান বিরোধী দল হিসেবে দায়িত্ব পালন করবে। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে আজ বৃহস্পতিবারই এরশাদের নেতৃত্বেই সংসদ ভবনে শপথ নেবেন জাপার নবনির্বাচিত মোট ৩৩ জন সংসদ সদস্য।

৫ জানুয়ারির নির্বাচনে অংশগ্রহণ প্রশ্নে দলের নানা বক্তব্য, বহুধা বিভক্তি এবং নির্বাচনের পর দলীয় এমপিদের, বিশেষ করে এরশাদের শপথ নিয়ে সৃষ্ট অনিশ্চয়তাসহ গতকাল বুধবার সব ধরনের ধুম্রজাল পরিষ্কার করেন জাপার প্রেসিডিয়ামের জ্যেষ্ঠ সদস্য বেগম রওশন এরশাদ। এরশাদ ছাড়া দলের বাকি এমপিদের নিয়ে বিকেলে সংসদ ভবনে বৈঠক শেষে সন্ধ্যায় সেখানকার মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলন করেন রওশন এরশাদ। বৈঠকে রওশন এরশাদ জাপার সংসদীয় দলের নেতা নির্বাচিত হয়েছেন। এরশাদের নির্দেশে ও উত্সাহেই তারা নির্বাচনে গেছেন, যা কিছু করেছেন সবই হয়েছে তার নির্দেশনায়। আর এরশাদের ভাই ও দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য জিএম কাদেরও তাদের সঙ্গেই রয়েছেন বলেও জানান রওশন। জাপাকে নিয়ে গত এক মাস ধরে চলা একের পর এক ‘নাটক’ শেষে রওশন গতকালই প্রথম গণমাধ্যমের সামনে আসেন।

বৈঠকে উপস্থিত থাকা জাপার একাধিক সংসদ সদস্য  নিশ্চিত করেন, ঢাকা সেনানিবাসে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) থাকা এরশাদও তাদের সঙ্গে একত্রে শপথ নেবেন। রওশনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত দলের এমপিদের বৈঠকে এমন সিদ্ধান্ত হয়েছে। একজন এমপি জানান, এরশাদ সরাসরি হাসপাতাল থেকে সংসদ ভবনে যেতে পারেন। আবার আগে হাসপাতাল থেকে বাসায় যেতে পারেন, তারপর শপথ নিতে সংসদ ভবনে যাবেন। উল্লেখ্য, গত ১২ ডিসেম্বর রাত থেকে সিএমইচে রয়েছেন জাপা চেয়ারম্যান এরশাদ।

জাপার নির্বাচনে অংশগ্রহণ প্রশ্নে এরশাদের সম্মতি ছিল কিনা, এমন প্রশ্নের জবাবে রওশন বলেন, ‘আমরা যা করেছি সেখানে ওনারও (এরশাদের) সম্পৃক্ততা ছিল। উনি আমাদের উত্সাহ দিচ্ছেন, নির্দেশ দিচ্ছেন। শরীরটা একটু খারাপ থাকায় উনি সিএমইচে আছেন। শরীরে যাতে চাপ না পড়ে এজন্য তিনি সেখানে আছেন। উনি এখন কিছুটা সুস্থ আছেন। কয়েকদিনের মধ্যেই চিকিত্সকেরা ওনাকে হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দিলে তিনি আমাদের মাঝে ফিরে আসবেন।’

গতকাল দলের এমপিদের বৈঠকে রওশন এরশাদ দশম সংসদের বিরোধী দলীয় নেত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন বলেও সিদ্ধান্ত হয়। এ ব্যাপারে রওশন সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘আমাদের দলের চেয়ারম্যান (এরশাদ) বলেছেন, তিনি দেশের রাষ্ট্রপতি ছিলেন, সে কারণে সংসদ নেতা না হয়ে বিরোধীদলীয় নেতা হতে চাচ্ছেন না। উনি আমাকে বলেছেন-তুমিই বিরোধীদলীয় নেত্রী হও। আমার দোয়া ও সাপোর্ট তোমার সঙ্গে থাকলো।’

বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে, যেহেতু দশম সংসদের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের পর জাপাই দ্বিতীয় সর্বোচ্চ (৩৩টি) আসন প্রাপ্ত দল, সে কারণে জাপা প্রধান বিরোধী দল হিসেবে থাকবে। বিষয়টি জানিয়ে রওশন বলেন, ‘বিরোধী দল হিসেবে আমাদের ভূমিকা কী হবে, সে ব্যাপারে আমরা এখনও আলোচনা করিনি। আলোচনা করে আমরা এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবো। তাছাড়া বিরোধী দল বিরোধী দলই, বিরোধী দলের যে ভূমিকা আমরা সেটিই রাখবো।’

জাপার নির্বাচনে অংশ নেয়ার যৌক্তিকতা তুলে ধরে এরশাদ পত্নী বলেন, ‘আমরা নির্বাচনের মাধ্যমেই ক্ষমতা পরিবর্তনে বিশ্বাসী। নির্বাচন ছাড়া সরকার পরিবর্তনের আর কোনো উপায় আমাদের জানা নেই। তাই গণতান্ত্রিক ও সাংবিধানিক ধারাবাহিকতা অক্ষুণ্ন রাখার স্বার্থেই আমরা নির্বাচনে গিয়েছি।’ এ প্রসঙ্গে তিনি আরও বলেন, জাপা সবসময়ই নির্বাচনমুখী দল। অতীতেও নানা প্রতিকূল পরিস্থিতিতেও জাপা নির্বাচন থেকে দূরে থাকেনি। জাপা উন্নয়নে বিশ্বাসী। আমরা গণতন্ত্রকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিতে চাই।

রওশন এরশাদ বলেন, আমরা চাই সব দলকে নিয়ে একটি সুন্দর ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন হোক। সবাই আলোচনার মাধ্যমে সুস্থ সিদ্ধান্তে আসতে পারলে মধ্যবর্তী নির্বাচন হতে পারে। দেশে এভাবে হরতাল ও অবরোধ কারও কাম্য নয়। সবার উচিত জনগণ ও দেশের কথা চিন্তা করা। বিশেষ করে শিক্ষার্থীসহ নতুন প্রজন্ম ও খেটে খাওয়া শ্রমিকদের কথা সবার চিন্তা করতে হবে। শুধু নিজের সন্তানের কথা ভাবলে তো হবে না, সবার সন্তানের কথাই আমাদের ভাবতে হবে। সেজন্য সৃষ্ট সমস্যার একটা সমাধান হওয়া উচিত। প্রধান দুই দলের উচিত আলোচনায় বসা। এ দল তত্ত্বাবধায়ক সরকার চায়, আরেক দল এতে রাজি নয়। সংসদে এনিয়ে আলোচনা হলে সমাধান হতে পারতো। আমি তাদেরকে বলবো- আপনারা একসঙ্গে বসুন, সমাধানের পথ খুঁজে বের করুন।

সংবাদ সম্মেলনে রওশনের বাম পাশে ছিলেন ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ ও জিয়াউদ্দিন আহমদ বাবলু। ডানে ছিলেন জাপা মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার, প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী ফিরোজ রশীদ ও মুজিবুল হক চুন্নু প্রমুখ।

শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here