new

ঢাকা সেনানিবাসে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) ‘আটক’ জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদকে বিদেশে পাঠিয়ে দেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে। এ জন্য গতকাল মঙ্গলবার এরশাদ, ছেলে এরিখ এরশাদ, তাঁর ব্যক্তিগত কর্মকর্তা মেজর (অব.) খালেদ আকতার ও ব্যক্তিগত সহকারী আবদুল ওয়াহাবের পাসপোর্ট সরকারের একটি গোয়েন্দা সংস্থা সংগ্রহ করেছে বলে জাপার একাধিক সূত্র জানিয়েছে।
জাপার উচ্চপর্যায়ের একটি সূত্র জানায়, এরশাদকে তাঁর ইচ্ছার বিরুদ্ধে আজ-কালের মধ্যে সিঙ্গাপুর অথবা মালয়েশিয়া পাঠানো হতে পারে। তিনি পাঁচ দিন ধরে সিএমএইচে আছেন।
একতরফা নির্বাচন বর্জন, দলীয় প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের নির্দেশ দেওয়ার পর নানামুখী চাপে পড়েন এরশাদ। এরপর তিনি গত বৃহস্পতিবার দুপুরে নির্বাচন কমিশনে চিঠি দিয়ে জাপার দলীয় প্রতীক ‘লাঙ্গল’ কাউকে বরাদ্দ না দিতে অনুরোধ করেন। ওই দিন মধ্যরাতে র‌্যাবের একটি দল এরশাদকে তাঁর বারিধারার বাসা থেকে তুলে সিএমএইচে নিয়ে যায়। তখন র‌্যাবের পক্ষ থেকে বলা হয়, এরশাদ অসুস্থ, তাই হাসপাতালে নেওয়া হচ্ছে।
এর পরদিন এরশাদ হাসপাতাল থেকে তাঁর বিশেষ উপদেষ্টা ববি হাজ্জাজের মাধ্যমে গণমাধ্যমকে জানান, তিনি অসুস্থ নন, তাঁকে গ্রেপ্তার করার জন্য সিএমএইচে আটকে রাখা হয়েছে।
এরশাদের ভাই ও জাপার সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য জি এম কাদেরও গত শুক্রবার সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, এরশাদ সুস্থ আছেন। তবে তাঁকে আরও দুই দিন হাসপাতালে রাখা হবে।
এরপর শনিবার ববি হাজ্জাজ সংবাদ সম্মেলন করে জানান, এরশাদ নির্বাচন বর্জনের সিদ্ধান্তে অনড় আছেন। ওই সংবাদ সম্মেলনের পর হাজ্জাজকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী একটি বাহিনীর কার্যালয়ে ডেকে নেওয়া হয়। পরে গভীর রাতে তাঁকে ছেড়ে দেওয়া হয়। এরপর সোমবার তিনি দেশ ছেড়ে যুক্তরাজ্য চলে যান।
এ বিষয়ে ববি হাজ্জাজ গতকাল তাঁর ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেছেন, তিনি চাপের মুখে বিদেশে যেতে বাধ্য হয়েছেন। তাঁকে ২০ ঘণ্টার বেশি সময় আটকে রেখে তাঁর সব বিবৃতি প্রত্যাহার করে আড়ালে যেতে বলা হয়েছে। অন্যথায় সরকারের রোষানলের মুখোমুখি হওয়ার হুমকি দেওয়া হয়। তিনি আরও বলেন, এরশাদ মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের আবেদন করলেও দৃশ্যমান কোনো কারণ ছাড়াই তা গ্রহণ করা হয়নি। এ নির্বাচন প্রহসনের। এটা জনগণের মুখে চপেটাঘাত।
ফেসবুকে দেওয়া ববি হাজ্জাজের এই বক্তব্য গতকাল বিকেলে জাপার গবেষণা ও কৌশল নির্ধারণী প্রতিষ্ঠান হিসেবে কাজ করা ‘জাতীয় পার্টির রিসার্চ অ্যান্ড স্ট্রাটেজি উইং’ (জেপিআরএসডব্লিউ) থেকে গণমাধ্যমে পাঠানো হয়। জেপিআরএসডব্লিউর প্রধান হলেন ববি হাজ্জাজ। তিনি গতকাল যুক্তরাজ্য থেকে তাঁর ব্যক্তিগত এক সহকারীর মাধ্যমে এই প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম অনিবার্য কারণে স্থগিত করার ঘোষণা দেন।
আইনি নোটিশ ও পরে প্রত্যাহার: এরশাদকে বেআইনিভাবে আটকাবস্থা থেকে মুক্তি দিতে গতকাল ডাকযোগে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব ও উপসচিব (পুলিশ) বরাবর একটি আইনি নোটিশ পাঠানো হয়। জাপার সাংগঠনিক সম্পাদক মো. বখতিয়ার উদ্দিন খানের পক্ষে জ্যেষ্ঠ আইনজীবী রফিক-উল হক এই নোটিশ পাঠান।
গতকাল বিকেলে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে সংবাদ সম্মেলন করে বখতিয়ার উদ্দিন খান এ কথা জানান। তিনি নোটিশের অনুলিপিও সাংবাদিকদের দেন। এরপর রাত আটটায় যোগাযোগ করা হলে রফিক-উল হক  বলেন, ভুল তথ্যের ভিত্তিতে নোটিশটি পাঠানো হয়েছিল। পরে তা প্রত্যাহার করা হয়েছে।
বিক্ষোভে পুলিশের বাধা: এরশাদের মুক্তির দাবিতে জাপার ঘোষিত বিক্ষোভ সমাবেশ গতকাল ঢাকায় পুলিশের বাধার মুখে হতে পারেনি। রাজধানীর কাকরাইলে বেলা তিনটায় জাপার কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে সমাবেশ কর্মসূচি দেওয়া হয়েছিল। এর আগেই বিপুলসংখ্যক পুলিশ কার্যালয়ের সামনে অবস্থা নেয়। পুলিশ নেতা-কর্মীদের রাস্তায় দাঁড়াতেই দেয়নি।
একইভাবে বনানীতে জাপার চেয়ারম্যানের রাজনৈতিক কার্যালয়ের সামনেও পুলিশ অবস্থান নিয়ে নেতা-কর্মীদের ভেতরে ঢুকতে বাধা দেয়।
জাপার সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য কাজী ফিরোজ রশীদ গতকাল বেলা তিনটায় কাকরাইলের কার্যালয়ে আসেন। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, এরশাদের মুক্তির দাবিতে কঠিন কর্মসূচি আসছে। এ সময় রমনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মশিউর রহমান সেখানে উপস্থিত হয়ে কাজী ফিরোজকে জানান যে সভা-সমাবেশের অনুমতি না থাকায় এই এলাকায় কোনো কর্মসূচি পালন করতে দেওয়া হবে না।
পরে কাজী ফিরোজ রশীদ নেতা-কর্মীদের নিয়ে জাপার তোপখানা রোডের কার্যালয়ে যান। সেখানেও পুলিশ নেতা-কর্মীদের সংগঠিত হতে বাধা দেয়। তখন কাজী ফিরোজ রশীদ সাংবাদিকদের বলেন, এ ধরনের সমাবেশ করতে আগে অনুমতি নেওয়ার প্রয়োজন পড়ে না। তিনি বলেন, জাপার সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য জি এম কাদের ও মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদার দলের পরবর্তী কর্মসূচি ঘোষণা করবেন।
এ সময় সাংবাদিকেরা প্রশ্ন করেন—নির্বাচনে যাওয়া না-যাওয়া নিয়ে আপনাদের অবস্থান কী? জবাবে ফিরোজ রশীদ বলেন, ‘পদ্মা ও মেঘনা বাঁধ দিয়ে আলাদা করা যায় না। এরশাদ সাহেব যা বলবেন, রওশন এরশাদও তা-ই করবেন।’
রংপুরে সংঘর্ষ, ৪৮ ঘণ্টার হরতালের ডাক: ‘আটক’ অবস্থা থেকে এরশাদের মুক্তির দাবিতে কেন্দ্রঘোষিত কর্মসূচি পালন করা নিয়ে গতকাল জাপার দুই পক্ষের সংঘর্ষে ২০ জন আহত হন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ কাঁদানে গ্যাসের কয়েকটি শেল ও রাবার বুলেট ছুড়েছে।
এদিকে এরশাদের মুক্তির দাবিতে রংপুর জেলা ও মহানগরে আজ বুধবার সকাল থেকে ৪৮ ঘণ্টার হরতাল ডেকেছে জাপার রংপুর জেলা কমিটি। গতকাল বিকেলে জাপার নতুন জেলা কমিটির আহ্বায়ক করিম উদ্দিন ভরসা ও সদস্যসচিব মোস্তাফিজুর রহমান শহরের নিউ সেনপাড়ায় এরশাদের বাড়িতে সংবাদ সমেঞ্চলন করে এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন। এ সময় এরশাদের ভাতিজা ও স্থানীয় সাংসদ আসিফ শাহরিয়ারও উপস্থিত ছিলেন।
একই দাবিতে সেখানে আজ সকাল-সন্ধ্যা হরতাল ডেকেছে মসিউর রহমান রাঙ্গার নেতৃত্বাধীন সদ্য বিলুপ্ত জেলা কমিটি।
পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্র জানায়, গতকাল দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে রংপুর শহরের শাপলা চত্বর থেকে এরশাদের মুক্তির দাবিতে মিছিল বের করে জাপার নতুন কমিটি। মিছিলটি শহরের পায়রা চত্বরে এলে ধাওয়া দেন জাপার বিলুপ্ত কমিটির সমর্থকেরা। এ সময় ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া ও সংঘর্ষে উভয় পক্ষের ২০ জন নেতা-কর্মী আহত হন।
গত রোববার এক বিবৃতিতে এরশাদ জাপার রংপুরের জেলা ও মহানগর কমিটি বিলুপ্ত করে নতুন কমিটি ঘোষণা করেন। এরপর দলের বিবদমান দুই পক্ষ সক্রিয় হয়ে ওঠে। পরে বিলুপ্ত কমিটির নেতা মসিউর রহমান জানান, এরশাদের মুক্তির দাবিতে তাঁরাও বুধবার (আজ) সকাল-সন্ধ্যা হরতাল পালন করবেন। শহরের সেন্ট্রাল রোডে অবস্থিত জেলা জাতীয় পার্টির কার্যালয় এই অংশের দখলে রয়েছে।

শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here