newবাংলাদেশের নির্বাসিত লেখিকা তসলিমা নাসরিন জানিয়েছেন, স্বদেশে ফেরার অধিকার অর্জনের জন্য তার লড়াই থামবে না এবং বার বার প্রত্যাখ্যাত হলেও বাংলাদেশি পাসপোর্ট নবায়নের জন্য তিনি চেষ্টা চালিয়েই যাবেন। আর দিন কয়েকের মধ্যেই দেশ থেকে তার নির্বাসনের ২০ বছর পূর্ণ হতে চলেছে। এর প্রাক্কালে বিবিসিকে দেয়া একান্ত সাক্ষাত্কারে তসলিমা নাসরিন অভিযোগ করেন, ধর্মান্ধ একটা ক্ষুদ্র গোষ্ঠীর ভয়েই শেখ হাসিনা, খালেদা জিয়া বা তত্ত্বাবধায়ক সরকার কেউই তাকে এতদিন দেশে ফিরতে দেয়নি। তার ব্যাপারে দিল্লি যাতে ঢাকার সঙ্গে কথা বলে, ভারতের নতুন সরকারের প্রতি তিনি সেই আহবানও জানিয়েছেন।

তসলিমা নাসরিনকে বাংলাদেশ ছাড়তে হয়েছিল ১৯৯৪ সালের মাঝামাঝি। তারপর সুইডেন-আমেরিকা-ফ্রান্স-কলকাতা নানা দেশ, নানা শহর ঘুরে প্রায় বছর-তিনেক হল দিল্লিই তার ঠিকানা। যতদিন বাঁচব ততদিন আমার দেশে ফেরার লড়াই চলবে। হয়তো সেখানে থাকব, হয়তো থাকব না। কিন্তু মত প্রকাশের স্বাধীনতা অর্জনের জন্যই আমি আবার পশ্চিমবঙ্গে ফিরতে চাই, বাংলাদেশে ফিরতে চাই।

দূতাবাস থেকে খালি হাতে ফেরা

আর সেই অধিকার আদায় করার জন্যই এখনো নিয়ম করে কিছু দিন পর পরই মেয়াদ ফুরোনো পাসপোর্ট নিয়ে বাংলাদেশ হাইকমিশনে হাজিরা দেন তিনি। দূতাবাস তাকে বার বার ফিরিয়ে দেয়, লিখিতভাবে কখনো কিছু জানায়ও না কেন তার আবেদন প্রত্যাখ্যাত হচ্ছে। তসলিমার কথায়, দূতাবাসের কর্মীরাও অনেকেই আমার প্রতি সহানুভূতিশীল, কিন্তু সরকারের নির্দেশের বাইরে যাওয়ার এখতিদ্ধয়ার তো তাদেরও নেই! তাকে দেশে ফিরতে না-দেয়ার ব্যাপারে শেখ হাসিনা, খালেদা জিয়া বা তত্ত্বাবধায়ক সরকার সবাই চিরকাল একমত ছিল বলেই তসলিমার বক্তব্য। তাদের মধ্যে হাজারটা বিষয়ে চুলোচুলি থাকতে পারে, কিন্তু আমার ব্যাপারে তাদের মধ্যে কোনও মতভেদ নেই। ঠিক একই রকমভাবে, পশ্চিমবঙ্গেও মমতা ব্যানার্জি যদিও সিপিএমের সব বিষয়ে প্রতিবাদ জানান। কিন্তু তসলিমা নাসরিনের প্রশ্নে সিপিএমের সঙ্গে তার কোনো বিরোধ নেই!

ধর্মান্ধদের ভয়ে হাসিনা-খালেদাও এক

বাংলাদেশে বা পশ্চিমবঙ্গেও কেন প্রধান রাজনৈতিক দলগুলো তার বিরোধিতায় এককাট্টা এর নিজস্ব ব্যাখ্যাও আছে তসলিমা নাসরিনের। আর সেটা হল তিনি মুসলিম মৌলবাদীদের চটিয়েছেন, কাজেই তাকে তাড়িয়ে দিয়ে দলগুলো দুটো বাড়তি মুসলিম ভোট পেতে চায়। অথচ আমায় তাড়িয়ে মুসলিম ভোট মেলে, এমন কিন্তু কোনো প্রমাণ নেই। পশ্চিমবঙ্গ থেকে আমাকে তাড়িয়ে দিয়ে সিপিএম একটাও মুসলিম ভোট বেশি পায়নি। বিদ্রোহী রুশ লেখক আলেকজান্ডার সলঝেনিিসনও দেশে ফিরতে পেরেছিলেন ষোলো বছর পর। কিন্তু তসলিমা নাসরিন অতটা আশাবাদী নন, কারণ তার বিশ্বাস বাংলাদেশে ধর্মান্ধ গোষ্ঠীগুলোর দাপট কমছে না, বাড়ছে। কিন্তু এদের ভয়ে কেন সরকার তাকে দেশে ফিরতে দেবে না, এটাই তার বোধগম্য নয়। এরা দেশকে হাজার বছর পিছিয়ে দিতে চায়। আর শুধু এরা আমার চিন্তাভাবনা অপছন্দ করে বলে সরকার আমাকে তাড়িয়ে দেবে? প্রশ্ন তার।

ভারতে যে নতুন সরকার বিপুল গরিষ্ঠতা নিয়ে ক্ষমতায় এসেছে, তারা যাতে বাংলাদেশ সরকারের কাছে তার দেশে ফেরার বিষয়টি উত্থাপন করেন, বিবিসি-র মাধ্যমে সেই আবেদনও জানিয়েছেন তসলিমা নাসরিন।

শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here