526bcd242f882-khaleda-zia-3
এখন হরতাল প্রত্যাহার করার কোনো সুযোগ নেই বলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে টেলিফোনে জানিয়েছেন বিরোধীদলীয় নেতা খালেদা জিয়া। প্রধানমন্ত্রী হরতাল প্রত্যাহার করার আহ্বান জানানোর পরিপ্রেক্ষিতে তিনি এ কথা বলেন বলে জানিয়েছেন বিরোধীদলীয় নেতার প্রেস সচিব মারুফ কামাল খান।
দুই নেত্রীর টেলিফোন আলাপ শেষে মারুফ কামাল খান গুলশানে বিএনপির চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে ফোনালাপের বিস্তারিত তুলে ধরেন।
মারুফ কামাল জানান, খালেদা জিয়াকে প্রধানমন্ত্রী ফোন করেন। দুই নেত্রীর মধ্যে প্রায় ৪০ মিনিট আলাপ হয়।
মারুফ কামাল বলেন, প্রধানমন্ত্রী সোমবার বিএনপি চেয়ারপারসনকে গণভবনে আমন্ত্রণ জানান। এর উত্তরে বিরোধীদলীয় নেতা বলেন, ‘সেদিন হরতাল আছে, যেতে পারব না। হরতাল শেষ হলে যেকোনো সময় আমন্ত্রণ জানান, আমরা যেতে প্রস্তুত।’
এ সময় প্রধানমন্ত্রী হরতাল প্রত্যাহার করার অনুরোধ জানালে বিরোধীদলীয় নেতা বলেছেন, কর্মসূচি প্রত্যাহারের এখন কোনো সুযোগ নেই। এ বিষয়ে গতকাল ১৮ দলের সভার আগে বা পরে এ কথা বলা হলে সবাইকে নিয়ে সিদ্ধান্ত নিতে পারতেন। কিন্তু এখন ১৮ দলের নেতাদের পুলিশ তাড়া করছে। তাঁরা ঘরে থাকতে পারছেন না। এ অবস্থায় আজ রাতের মধ্যে তাঁদের ডাকা সম্ভব নয়। জোটের শরিকদের সঙ্গে আলোচনা না করে তিনি হরতাল প্রত্যাহার করতে পারেন না। তা ছাড়া তিনি সমাবেশে স্পষ্ট বলেছেন, তাঁরা আন্দোলন এবং সংলাপ একসঙ্গে চালাবেন।

মারুফ কামাল দাবি করেন, ফোনালাপে প্রধানমন্ত্রী অতীত নিয়ে কথা বলার চেষ্টা করেছেন। জবাবে খালেদা জিয়া বলেছেন, বার বার অতীতে যেতে থাকলে সামনে এগোনো যাবে না। অতীত নিয়ে তিক্ত বিতর্ক বাদ দিতে এ সময় তিনি প্রধানমন্ত্রীর প্রতি অনুরোধ জানান।

মারুফ কামাল বলেন, বিরোধীদলীয় নেতা এ সময় অতীত বাদ দিয়ে মানুষের আশা আকাঙ্ক্ষার প্রতিফলনের জন্য যেসব বিষয় আছে, সেসব নিয়ে আলোচনার আহ্বান জানান।

মারুফ কামাল আরও দাবি করেন, প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, তিনি দুপুরে ফোন করেছেন। জবাবে বিরোধীদলীয় নেতা বলেছেন, তাঁর লাল টেলিফোন নষ্ট। দীর্ঘদিন ধরে এটি বিকল হয়ে পড়ে আছে। বারবার অভিযোগ করার পরও এটি ঠিক করা হয়নি। খালেদা জিয়া শেখ হাসিনাকে বলেছেন, মৃত টেলিফোনে দীর্ঘ চেষ্টার চেয়ে তিনি আন্তরিক হলে অন্য অনেক মাধ্যম ছিল আলাপের জন্য। বিকল টেলিফোনে চেষ্টা করা ঠিক হয়নি। যেহেতু তিনি প্রধানমন্ত্রী, তাই অন্তত আগে তাঁর কর্মকর্তারা এসে দেখতে পারতেন ফোন ঠিক আছে কি না।

মারুফ কামাল জানান, খালেদা জিয়া প্রধানমন্ত্রীকে বলেছেন, একজন সরকারি কর্মচারী বলেছেন, খালেদা জিয়ার ফোন সচল আছে। এটি মিথ্যা। ওই কর্মচারীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য বিরোধীদলীয় নেতা প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ করেন।

বিরোধীদলীয় নেতার প্রেস সচিব বলেন, খালেদা জিয়া বলেছেন, তাঁরা আলাপ আলোচনার মাধ্যমে সমস্যার সমাধান চান। প্রধানমন্ত্রী ও বিরোধীদলীয় নেতা যে দুটি প্রস্তাব দিয়েছেন ওই দুটি ফর্মুলার সমন্বয়ে নির্দলীয় সরকারের বিষয়ে একটি জায়গায় পৌঁছানো যাবে।

প্রধানমন্ত্রী তাঁর দেওয়া ফর্মুলার কথা তুলে ধরলে বিরোধীদলীয় নেতা বলেছেন, সেই ফর্মুলা গ্রহণযোগ্য হয়নি। সরকার নীতিগতভাবে নির্দলীয় সরকার মেনে নিলে বিএনপি সব কর্মসূচি স্থগিত করবে।

শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here