স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল জানিয়েছেন, পুলিশের হামলায় এক শিক্ষার্থীর মৃত্যুর ভুয়া সংবাদ ছড়িয়ে কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনরতদের যারা উত্তেজিত করেছে তাদেরকে শনাক্ত করা হচ্ছে। মঙ্গলবার সচিবালয়ে নিজ দফতরে সাংবাদিকদের  বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।
 
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী  বলেন, ফেসবুকে একজনের মৃত্যু সংবাদ যে ছড়িয়েছে তাকে শনাক্তের চেষ্টা হচ্ছে। অবশ্যই তার বিরুদ্ধে ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্টে মামলা হবে। এই ঘটনা ছাত্রদের উত্তেজিত করেছে। সাংবাদিকরা এসময় ইমরান এইচ সরকারের নাম উল্লেখ করলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, ইমরান এইচ সরকার একা কেন, তার সঙ্গে আরও কারা আছে তাদের শনাক্ত করা হচ্ছে। 
 
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের (ভিসি) বাসভবনে যারা হামলা চালিয়েছে তাদের আইনের আওতায় আনা হবে। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে দুই একদিনের মধ্যেই মামলা হবে। যারা জড়িত তাদের শাস্তি পেতে হবে। তবে হামলাকারীরা ছাত্র কিনা তা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। তিনি বলেন, ছাত্র হলে তারা কেন মুখে কাপড় বেঁধে আসবে।
 
ভিসির বাড়িতে মুখোশধারীদের হামলা কেন ? এমন পাল্টা প্রশ্ন করে- স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমার জানতে বড়ই ইচ্ছে করছে এরা কারা ? ভিসির বাসভবন আক্রান্ত হয়েছে। উপাচার্য পরিবার-পরিজন নিয়ে জীবন বাঁচাতে বাগানে আশ্রয় নিয়েছেন। আমরা এখনো প্রাইমারি স্কুলের একজন শিক্ষককে পেলে পায়ে ধরে সালাম করি। আর সেখানে একজন ভাইস চ্যান্সেলর এভাবে আক্রান্ত হবে এটা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যাচ্ছে না।
 
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, রাত পৌণে ২টায় আমাকে বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন শিক্ষক নেতা ফোন করে জানান, ভিসি আক্রান্ত হয়েছেন। তাকে (ভিসি) বাঁচাতে হলে এখনই ফোর্স পাঠান। আমি সঙ্গে সঙ্গে আইজি এবং র‌্যাবের ডিজিকে ফোন করি। এবং দ্রুত ফোর্স পাঠিয়ে ভিসিকে উদ্ধার করার নির্দেশ দেই। তারা সঙ্গে সঙ্গে ফোর্স পাঠিয়ে ভিসিকে উদ্ধার করেন।
 
তিনি আরও বলেন, যে অরাজক পরিস্থিতি তৈরি করা হয়েছে তা কল্পনাতীত। হামলাকারীরা বাড়ি-গাড়ি সবই ভেঙেছে। সিসিটিভি ভেঙে মনিটর নিয়ে গেছে। ডকুমেন্ট হিসেবে টিভি চ্যানেল থেকে এবং অন্যান্য সোর্স থেকে আমরা প্রচুর ফুটেজ সংগ্রহ করেছি। কোনো সভ্য সমাজ এটা সহ্য করবে না। আমরা ফুটেজে যা দেখেছি, মুখোশ পরে মহিলারা আগে ঢুকেছে। মুখোশ পরা পুরুষরা ঢুকেছেন পরে। শুনেছি তারা নীলক্ষেত দিয়ে এসেছে। আন্দোলনকারী ছাত্ররা মুখোশ পরবে কেন?’
 
রবিবারের ঘটনা প্রসঙ্গে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী প্রথমে রাত ৮টার দিকে পানি ব্যবহার করে তাদের সরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করে। পরিস্থিতি খারাপের দিকে গেলে তারা অভিযানে যায়। এখনো মামলা হয়নি, তবে মামলা হবে এবং দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে নিরীহদের যেন ছেড়ে দেওয়া হয়। এরইমধ্যে তাদের ছেড়েও দেওয়া হয়েছে। 
 
দাবি-দাওয়া নিয়ে ছাত্রদের আন্দোলন হতে পারে মন্তব্য করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, আমরাও ছাত্র আন্দোলন করেছি। আন্দোলনের নামে এই ধরনের অরাজকতা তো কখনো হয়নি। এটি কোন ধরনের আন্দোলন? ছাত্রদের আন্দোলনের ভেতরে বিভিন্ন দলের কর্মীরা থাকতে পারে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সেগুলো খতিয়ে দেখছে। 
 
সাংবাদিকদের অপর এক প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমি অনেকের সঙ্গে কথা বলে জেনেছি, কোনও ধরনের নাশকতার সঙ্গে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা জড়িত নয়। ফেসবুকে ছাত্রলীগের নামে অপপ্রচার চালানো হয়েছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, যে ছেলেটির মৃত্যু সংবাদ ছড়ানো হয়েছে, সেই ছেলেটি পরে ফেসবুকে নিজের নাম পরিচয় দিয়ে ‘আমি মরিনি’ বলে যে স্ট্যাটাস দিয়েছে, এটি একটি ভালো কাজ। এই স্ট্যাটাস দেখার পর অনেকেই শান্ত হয়েছে।
 
শেয়ার করুন
  • 23
    Shares

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here