জনতার নিউজঃ

প্রধানমন্ত্রীর প্রশংসামূলক কবিতা লেখায় মাদ্রাসাছাত্রের চুল কর্তন

প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে ফেসবুকে প্রশংসামূলক একটি কবিতা লিখেছিলেন বগুড়ার শাহজাহানপুর উপজেলার ডোমনপুকুর কামিল মাদ্রাসার ছাত্র আবু তালহা। আর একারণেই তার মাথার অর্ধেক চুল কেটে দেওয়ার অভিযোগ ওঠেছে একদল দুর্বৃত্তের বিরুদ্ধে।

এছাড়া, আবু তালহাকে হত্যার হুমকি দেয়ায় পালিয়ে নিজের বাড়ি সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জ উপজেলার মিরের দেউলমুড়া গ্রামে আশ্রয় নিয়েছেন তিনি। আবু তালহা লেখাপড়ার পাশাপাশি বগুড়া সেনানিবাসের গলফ ক্লাবে কেডি (খেলোয়াড়দের ব্যাগ বহনকারী) হিসেবে কর্মরত।

এ ঘটনায় তার পিতা আব্দুল হালিম বগুড়ার শাহজাহানপুর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। সোমবার বিকেলে দায়েরকৃত অভিযোগে তিনি দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি ও তাদের জীবনের নিরাপত্তার দাবি করেছেন।

লিখিত অভিযোগে জানা যায়, গত ১০ আগস্ট আবু তালহা তার ফেসবুকে প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে প্রশংসামূলক একটি কবিতা লেখেন। এই কবিতা পড়ে ওই এলাকার কতিপয় যুবক আবু তালহার উপর ক্ষেপে যায়। ১১ আগস্ট গভীর রাতে ওই যুবকেরা আবু তালহার এক মামাতো ভাই শরিফুল ইসলামকে দিয়ে তাকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যায়।

এরপর বাড়ির পাশে এক নির্জন জায়গায় নিয়ে গিয়ে ফেসবুকে ওই কবিতা লেখার জন্য তাকে গালমন্দ করার পাশাপাশি আবু তালহার চোখমুখ বেঁধে চড়থাপ্পড় ও লাথি মারে এবং মাথার অর্ধেক চুল কেটে দেয়। এবিষয়ে কাউকে কিছু বললে তারা আবু তালহাকে হত্যা করবে বলে হুমকিও দেয়। এতে ভীত হয়ে তালহা ডোমনপুকুর থেকে পালিয়ে নিজ গ্রামে আশ্রয় নিয়েছেন।

মঙ্গলবার দুপুরে আবু তালহা জানান, বগুড়া ছেড়ে আসতে বাধ্য হওয়ায় তার লেখাপড়া ও খণ্ডকালীন কাজ বন্ধ হয়ে গেছে। এ বিষয়ে প্রশাসনের কাছে তার জীবনের নিরাপত্তা ও অপরাধীদের শাস্তির দাবি করেন। শাজাহানপুর থানার ওসি জিয়া লতিফুল ইসলাম অভিযোগ পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ‘অভিযুক্তদের শনাক্ত করে আটক করতে পুলিশ তৎপরতা চালাচ্ছে।’

শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here