Cricketমোড়ে মোড়ে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যদের অবস্থান। চারপাশের উঁচু দালানগুলোর ছাদে পুলিশের ঘোরাফেরা। প্রতিটি প্রবেশ পথে নিরাপত্তার জন্য অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি। এসব কিছুই বলে দিচ্ছিল বাংলাদেশের দীর্ঘ ক্রিকেট উত্সব ঘিরে নেয়া হয়েছে নিশ্ছিদ্র নিরপত্তা ব্যবস্থা। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথম টেস্টের ভেতর দিয়ে শুরু হয়ে গেল প্রায় তিন মাসব্যাপী একটার পর একটা আয়োজনের পালা।

কিন্তু যে জন্য এতো আয়োজন, এতো তোড়জোড়; সেই মাঠের খেলার শুরুটা কিন্তু ভালো হলো না। টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানদের কিছু ব্যর্থতা, কিছু বিতর্কিত আম্পায়ারিং এবং শ্রীলঙ্কান বোলারদের দারুণ শৃঙ্খলা মিলিয়ে প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশ অন্তত বলার মতো রান করতে পারেনি। গতকাল ঢাকা টেস্টের প্রথম দিনে ৬৩.৫ ওভার ব্যাট করে মুশফিক ও সাকিবের ফিফটির পরও ২৩২ রানে অলআউট হয়েছে বাংলাদেশ। জবাবে গতকালই ব্যাটিংয়ে নেমে পড়া শ্রীলঙ্কা কোনো উইকেট না হারিয়ে ১৯ ওভারে ৬০ রান তুলে ফেলেছে। দুই ওপেনার কুশল সিলভা ও করুনারত্নে উইকেটে আছেন ২৮ ও ৩০ রান নিয়ে।

দুই বছরেরও বেশি সময় পর ঘরের মাটিতে তিন পেসার নিয়ে খেলতে নেমেছিল বাংলাদেশ। লক্ষ্য ছিল বাউন্সি উইকেটে প্রথম দিনের স্বাভাবিক আর্দ্রতাটাকে কাজে লাগানো। কিন্তু লঙ্কান অধিনায়ক অ্যাঞ্জোলো ম্যাথুস টসে জিতে বাংলাদেশকে ব্যাটিংয়ে পাঠিয়ে শুরুতেই সে পরিকল্পনা এলোমেলো করে দেন।

শুরুতে বোলিং করতে না পারার হতাশা ছাড়া অবশ্য উইকেট বা কন্ডিশন এমন কিছু বিপক্ষে আচরণ করেনি ব্যাটসম্যানদের। খুবই নিয়মিত উচ্চতায় ভালো বাউন্স ছিল উইকেটে। আর সেই বাউন্স দেখেই অভিষিক্ত ওপেনার সামসুর রহমান শুভ শর্ট বলে হুক-পুলের বন্যা বইয়ে দিতে চাইলেন। তিন তিনবার হুক-পুল করতে গিয়ে কোনোক্রমে বেঁচে গিয়ে বাউন্ডারি উপহার পেলেন। শেষ পর্যন্ত অভিষেকেই মুঠোভরে পাওয়া এই সুযোগগুলো কাজে লাগাতে পারেননি; ৩৪ বলে ৩৩ রান করে ফিরে গেছেন। অন্য প্রান্তে তামিম আরও একবার স্বভাববিরোধী ইনিংস গড়ে তোলার চেষ্টায় থেকে ২৮ বলে মাত্র ৬ রান করে ফিরলেন। শুভ আউট হওয়ার আগেই অবশ্য তামিমের পথ ধরে এক বিতর্কিত সিদ্ধান্তের শিকার হয়ে ফিরে গেছেন মার্শাল। আগের সিরিজেই বাংলাদেশের রেকর্ড করে ফেলা মুমিনুলও ৮ রান করে পথ হারিয়ে ফেললেন।

মানে, বিনা উইকেটে ৩৫ রান করা বাংলাদেশ ৫৯ রান তুলতে ৪ উইকেট হারিয়ে ফেললো। এখান থেকে পরিণতি সেই পুরোনো দিনেরই হতে পারতো। তবে রক্ষা করলেন সাকিব ও মুশফিক। দলের সাবেক ও বর্তমান দুই অধিনায়ক ৮৬ রানের এক জুটি করলেন পঞ্চম উইকেটে। কিন্তু দু’জনই কমবেশি সেই বিতর্কিত সিদ্ধান্তের শিকার হয়ে ফিরলেন। একই ভাগ্য নাসিরেরও। লাফ দিয়ে ওঠা বল সামলাতে গিয়ে ‘ক্যাচ’ দিয়েছেন বলে আম্পায়ার মনে করলেন; কিন্তু রিপ্লে দেখে ভিন্ন কথাই মনে হল!

শেষ দিকে আবার এই ধস বংলাদেশকে খাদের কিনারেই নিয়ে গিয়েছিল। তবে আট নম্বরে নামা সোহাগ গাজীর মারকাটারি ৪২ রানে খাদ থেকে উঠতে না পারলেও সম্মান অন্তত কিছুটা রক্ষা করতে পারলো বাংলাদেশ।

শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here