সদ্য নিয়োগ পাওয়া পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী আগামী নির্বাচনের চ্যালেঞ্জ প্রসঙ্গে বলেছেন, পুলিশের চ্যালেঞ্জ প্রতিদিনই। চ্যালেঞ্জ নেওয়াটা আমাদের কাছে কোনো নতুন বিষয় নয়। পুলিশকে সব সময় নতুন নতুন চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হয়। আগামী নির্বাচন শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন করতে যে কোনো চ্যালেঞ্জ গ্রহণে পুলিশ প্রস্তুত। পেশাদারিত্ব, সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে পুলিশ দায়িত্ব পালন করছে। দায়িত্ব পালনের সবার সহযোগিতা কামনা করেন নতুন আইজিপি।

গতকাল বুধবার পুলিশ সদর দপ্তরে বাংলাদেশ পুলিশের সদ্যবিদায়ী মহাপরিদর্শক (আইজিপি) এ.কে.এম শহীদুল হকের বিদায়ী সংবর্ধনা এবং নতুন আইজিপির বরণ অনুষ্ঠান তিনি এ কথা বলেন। এবার জাঁকজমকপূর্ণ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে নতুন আইজিপি দায়িত্বভার গ্রহণ করেন। একই সঙ্গে বিদায়ী আইজিপিকে বিদায় জানানো হয়। অতীতে এমন অনুষ্ঠান দেখা যায়নি। দায়িত্ব গ্রহণের পর নবনিযুক্ত আইজিপি ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারীকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান বিদায়ী আইজিপি একেএম শহীদুল হক। এদিকে নবনিযুক্ত পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারীকে র্যাংক ব্যাচ পরিয়ে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গতকাল সন্ধ্যায় র্যাংক ব্যাচ নিতে গণভবনে যান নতুন আইজিপি। তাকে র্যাংক ব্যাচ পরানোর সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল ও সাবেক আইজিপি একেএম শহীদুল হক। এদিকে পুলিশ সদর দপ্তরের অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে নতুন আইজিপি বলেন, পেশাদারিত্বের মাধ্যমে জনগণের জবাবদিহিতার আওতায় আনা হবে পুলিশকে। বাংলাদেশ পুলিশ সাফল্যের চূড়ান্ত শিখরে পৌঁছাবে।

এদিকে অনুষ্ঠানে এর আগের তিন আইজিপির ভূয়সী প্রশংসা করে জাবেদ পাটোয়ারি বলেন, ‘পুলিশে যে পরিবর্তনটুকু এসেছে তা শুরু হয়েছে আইজিপি নুর মোহাম্মদের সময় থেকে। পরবর্তী সময়ে হাসান মাহমুদ খন্দকারও এই ধারাবাহিকতা বজায় রাখেন। এরপর তিন বছর ধরে সফলতার সঙ্গে একেএম শহীদুল হক কাজ করছেন। তিনি আমার ব্যাচম্যাট। আমরা প্রায় ৩২ বছর ধরে একসঙ্গে কাজ করেছি দেশে এবং দেশের বাইরে। এখানে যেসব বক্তা শহীদুল হক সম্পর্কে বলেছেন আরও যদি সময় পাওয়া যেত তাহলে উনার সম্পর্কে আরও বেশি বেশি ভালো কথা শোনা যেত। নতুন আইজিপি বলেন, আমি আপনাদের সহযোগিতা পেলে সাহস পেলে বাংলাদেশ পুলিশ সাফল্যের চূড়ান্ত শিখরে পৌঁছাবে। আমাদের বিদায়ী আইজিপি পুলিশ থেকে বিদায় নিলেও আমাদের মন থেকে বিদায় নেবেন না। তিনি যেখানে থাকেন না কেন তার সহযোগিতার হাত আমাদের দিকে বাড়িয়ে দেবেন বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে জাবেদ পাটোয়ারী বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু আর বাংলাদেশ সমার্থক শব্দ। বঙ্গবন্ধুর জন্ম না হলে আমরা বাংলাদেশ পেতাম না। তার সুযোগ্য নেতৃত্বের কারণে আজকের বাংলাদেশ দ্রুত এগিয়ে চলেছে।’ তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর অবদান জাতি কোনো দিন ভুলবে না।

বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ধারণ করে এগিয়ে যাওয়ার অঙ্গিকার ব্যক্ত করে জাবেদ পাটোয়ারি বলেন, ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধকালে প্রথম রাজারবাগে আক্রমণ হয়। রাইফেল নিয়ে রুখে দাঁড়ায় পুলিশ। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে বিশ্বাস ও আস্থা আমার ওপর রেখেছেন তা সঠিকভাবে পালন করবো। জাবেদ পাটোয়ারি বলেন, ২০১৩, ২০১৪ ও ২০১৫ সালে বিএনপি-জামায়াতের জ্বালাও-পোড়াও অগ্নিসন্ত্রাস শহীদুল হকের নেতৃত্বে আমরা সফলভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম হয়েছি। অনেক পুলিশ নিহত ও হতাহত হলেও পুলিশের মনোবল ভাঙেনি। তিনি বলেন, পুলিশকে জনগণের কাছাকাছি নিয়ে যাওয়া এবং যে বদনাম আছে তা ঘুচাতে কাজ করব। তিনি বলেন, পুলিশে নিয়োগ, বদলি ও পদোন্নতির ক্ষেত্রে যোগ্যতা, অভিজ্ঞতা ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসীদের অগ্রাধিকার দেওয়া হবে।

আইজিপি হিসেবে বিদায় নেওয়ার ক্ষণে পুলিশকে নির্বাচনের বছরটিতে ধৈর্য ধরে দায়িত্ব পালনের পরামর্শ দিয়ে এ কে এম শহীদুল হক বলেন, মঙ্গলবার যে ঘটনা ঘটেছে, সামনে আরো ঘটবে। নির্বাচনী বছরে অনেক ষড়যন্ত্র হবে। পুলিশকে ধৈর্য ধরে এগুলো মোকাবিলা করতে হবে। অনুষ্ঠানে উপস্থিত নতুন আইজিপি জাবেদ পাটোয়ারীর উদ্দেশে শহীদুল হক বলেন, নির্বাচনী বছরে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখা এবং নির্বাচনের পরিবেশ বজায় রাখা সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ। তিনি বলেন, অনেক ষড়যন্ত্র হবে, অনেক নাটক হতে পারে, এগুলোকে মোকাবিলা করে নির্বাচনের পরিবেশ বজায় রাখা সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ। পুলিশকে ধৈর্যের সঙ্গে এসব ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করে নির্বাচনী পরিবেশ বজায় রাখতে হবে, যেন মানুষ ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারে। বিদায়ী বক্তব্যে আইজিপি একেএম শহীদুল হক বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি। যার জন্ম না হলে একটি স্বাধীন বাংলাদেশ হতো না। প্রধানমন্ত্রীর প্রতি আমি কৃতজ্ঞ, তিনি যখন আমাকে দায়িত্ব দিয়েছেন তখন ছিল একটি কঠিন সময়। সেই সময়ে আমি সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করেছি।

অনুষ্ঠানের শুরুতে বিদায়ী আইজিপিকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান নতুন আইজিপি। পরে নতুন আইজিপি জাবেদ পাটোয়ারীকেও ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান বিদায়ী আইজিপি শহীদুল হক। এ সময় বিদায়ী আইজিপিকে ক্রেস্ট উপহার দেন অতিরিক্ত আইজিপি মোখলেসুর রহমান। পুলিশের অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক (এএন্ডও) মোখলেসুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন র্যাবের মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ, মহানগর পুলিশ কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া, চট্টগ্রামের পুলিশ কমিশনার ইকবাল বাহার, চট্টগ্রাম রেঞ্জে পুলিশের ডিআইজি মনিরুজ্জামান, পুলিশ সদর দপ্তরে অতিরিক্ত ডিআইজি ড. সোয়েব রিয়াজ আলম, অতিরিক্ত ডিআইজি (পিটিসি-টাঙ্গাইল) সালেহ মোহাম্মদ তানভীর, গাজীপুরের এসপি হারুনুর রশীদ, মুন্সিগঞ্জের পুলিশ সুপার জাহেদুল আলম, পুলিশ সদর দপ্তরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মুক্তাধর, পুলিশ সদর দপ্তরের সহকারী পুলিশ সুপার সাদিয়া আরফিন, পুলিশ সদর দপ্তরের ইন্সপেক্টর ফরহাদ হায়দার, পুলিশ সদর দপ্তরের এসআই রাসেল, প্রধান সহকারী আলি হোসেন, মহিলা পুলিশ কন্সটেবল কেয়া।

শেয়ার করুন
  • 19
    Shares

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here