abdul-quaderএকাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধে কাদের মোল্লার বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ আদালতের মৃত্যুদণ্ডাদেশকে ভুল রায় বলে আখ্যায়িত করেছেন তার স্ত্রী সানোয়ারা জাহান।

মঙ্গলবার রাতে এক জামায়াতে ইসলামীর এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, “মহামান্য সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ সংখ্যাগরিষ্ঠের ভিত্তিতে আমার স্বামী আব্দুল কাদের মোল্লাকে মানবতা বিরোধী অপরাধের মিথ্যা অভিযোগে সরকার কর্তৃক দায়ের করা ষড়যন্ত্রমূলক মামলায় মৃত্যুদণ্ড প্রদান করেছেন। এই রায়ে আমরা হতাশ হয়েছি।

“আদালতের প্রতি আমরা সম্পূর্ণ শ্রদ্ধাশীল। কিন্তু আমরা মনে করি, এটি একটি ভুল রায়।”

মুক্তিযুদ্ধকালে মোস্তফা নামের এক ব্যক্তিকে হত্যার অভিযোগে ২০০৭ সালের ১৭ ডিসেম্বর কাদের মোল্লাসহ কয়েকজন জামায়াত নেতার বিরুদ্ধে কেরানীগঞ্জ থানায় একটি মামলা হয়।

এছাড়া ২০০৮ সালে পল্লবী থানায় আরো একটি মামলা হয় কাদেরের বিরুদ্ধে। এ মামলাতেই ২০১০ সালের ১৩ জুলাই জামায়াতের এই নেতাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

২০১১ সালের ১ নভেম্বর কাদের মোল্লার বিরুদ্ধে জমা দেওয়া তদন্ত প্রতিবেদনে হত্যা, খুন, ধর্ষণ ও অগ্নিসংযোগসহ মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগ আনে রাষ্ট্রপক্ষ। এরপর ২৮ ডিসেম্বর অভিযোগ আমলে নেয় ট্রাইব্যুনাল।

গতবছর ২৮ মে ট্রাইব্যুনাল-২ কাদের মোল্লার বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে খুন, ধর্ষণ ও অগ্নিসংযোগসহ মানবতাবিরোধী অপরাধের ছয়টি ঘটনায় তার বিচার শুরুর আদেশ দেন বিচারক।

দুই পক্ষের যুক্তিতর্কের শুনানি শেষে চলতি বছর ১৭ জানুয়ারি ট্রাইব্যুনাল মামলাটি রায়ের জন্য অপেক্ষমাণ রাখে। এর পক্ষকাল পর গত ৫ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল কাদের মোল্লাকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড হয়।

ওই রায় প্রত্যাখ্যান করে দেশব্যাপী আন্দোলনের মধ্যে সরকার আইন সংশোধন করে প্রসিকিউশনের আপিলের সমান সুযোগ তৈরি করে।

রায়ের বিরুদ্ধে উভয় পক্ষ আপিল করলে মঙ্গলবার রায়ে সর্বোচ্চ আদালত আসামির আপিল নাকচ করে প্রসিকিউশনের আপিল গ্রহণ করে মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেয়।

কাদের মোল্লার স্ত্রী সানোয়ারা জাহান বলেন, “এই রায়ের মাধ্যমে ন্যায়বিচার থেকে বঞ্চিত হয়েছি। বিচার বিভাগের ইতিহাসে আমাদের জানামতে নিম্ন আদালতের সাজা বৃদ্ধি করে উচ্চ আদালতের রায় এক নজিরবিহীন ঘটনা।”

সম্পূর্ণ রাজনৈতিক প্রতিহিংসা থেকেই স্বামীর বিরুদ্ধে আওয়ামী সরকার মানবতা বিরোধী অপরাধের মিথ্যা অভিযোগে ষড়যন্ত্রমূলক মামলা দায়ের করেছিল বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

সানোয়ারা জাহান রায়ের পর আইনমন্ত্রী, অ্যাটর্নি জেনারেল ও আওয়ামী দলীয় নেতাদের বিভিন্ন বক্তব্যেরও সমালোচনা করেন।

তিনি অভিযোগ করেন, সংবিধান বর্ণিত অধিকার থেকে বঞ্চিত করে তড়িঘড়ি করে তাকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে দেয়ার বক্তব্যের মাধ্যমে ষড়যন্ত্র এবং চক্রান্ত স্পষ্টভাবে ফুঁটে উঠেছে।

শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here