আগামী দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পরিস্থিতির উপর নির্ভর করে প্রয়োজনে সেনা মোতায়েন করা হবে বলে জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশনার মোঃ শাহনেওয়াজ। মঙ্গলবার শেরেবাংলা নগরে নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, আরপিওতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সংজ্ঞায় সেনা বাহিনী থাকুক আর না থাকুন সব নির্বাচনে আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় সেনাবাহিনী সহযোগিতা করেছে। পরিস্থিতি যদি সেনা বাহিনী প্রয়োজন হয় তাহলে এবারো আমরা তাদের সহযোগিতা নেবো।
মোঃ শাহনেওয়াজ বলেন, এর আগের নির্বাচনগুলোতেও সেনাবাহিনী সহযোগিতা করেছে। এ নির্বাচনেও আশা করি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পাশাপাশি সেনা বাহিনীও সহায়তা করবে। তবে তা নির্বাচনের পূর্ব মুহূর্তের অবস্থার উপর নির্ভর করবে। আইনেও তা বলা আছে। দমশ জাতীয় নির্বাচনের প্রস্তুতি সম্পর্কে তিনি বলেন, নির্বাচনের জন্য আমাদের প্রস্তুতি প্রায় শেষ পর্যায়ে। আমরা আশা করছি, সকল দল নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে।
দেশবাসীকে আশ্বস্ত করে নির্বাচন কমিশনার বলেন, আগামী নির্বাচন সকল দলের অংশগ্রহণে সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এর জন্য যা যা করা দরকার আমরা তাই করবো। আমরা সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত। ইলেকশন ওয়ার্কিং গ্রুপ (ইডব্লিউজি) নামক সংস্থার পরিচালিত একটি জরিপে ৬৫ শতাংশ মানুষ নির্বাচনে সেনা বাহিনী মোতায়েন চায় উল্লেখ করে কমিশনের অবস্থান জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা পরিস্থিতি অনুযায়ী সিদ্ধান্ত নেবো।
বিএনপিসহ কয়েকটি দল কাউন্সিল করার জন্য সময় চেয়ে আবেদন করছে এই ব্যাপারে কমিশনের সিদ্ধান্ত জানতে চাইলে মোঃ শাহনেওয়াজ বলেন, আইন অনুযায়ী সকল দলকে তাদের কাউন্সিল করতে হবে। যে দলগুলো কাউন্সিল করেনি তারা আমাদের কাছে সময় চেয়েছে। তবে আমরা সময় দেবো কিনা এর ব্যাপারে কোনো সিদ্ধান্ত নেয়া হয়নি।
২৫ জানুয়ারির মধ্যে নির্বাচন হবে উল্লেখ করে শাহনেওয়াজ বলেন, সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচনের প্রস্তুতি চলছে। ইতোমধ্যে উপকরণ সংগ্রহ শুরু হয়েছে। ২৫ জনুয়ারির মধ্যে আমরা নির্বাচন করতে প্রস্তুত। তবে তফসিল ঘোষণার বিষয়ে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। বিএনএফকে প্রতীক দেয়ার ব্যাপারে বিএনপির আপত্তি উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমি দৃঢ়তার সঙ্গে বলছি, নিবন্ধিত দলগুলোর প্রতীকের সঙ্গে সাদৃশ্য কোনো প্রতীক অন্য দলকে দেয়া হবে না।EC

শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here