জনতার নিউজ ঢাকা

নিজামীর মৃত্যুদণ্ডাদেশ বহাল

ফাঁসিকাষ্ঠে যেতেই হচ্ছে জামায়াতে ইসলামীর আমির মতিউর রহমান নিজামীকে। চূড়ান্ত আইনি লড়াইয়ে তিনি হেরে গেছেন। মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ের আপিল বিভাগের দেয়া মৃত্যুদণ্ডের রায় পুনর্বিবেচনা চেয়ে নিজামীর করা রিভিউ পিটিশন খারিজ করে দেয়া হয়েছে।  প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহার নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগের চার বিচারপতির বেঞ্চ বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টায় এই রায় ঘোষণা করেন।

এর আগে মঙ্গলবার রিভিউ পিটিশনের ওপর শুনানি গ্রহণ করে রায়ের জন্য এ দিন ধার্য করে দিয়েছিলো আপিল বিভাগ।

১৯৭১ সালে বুদ্ধিজীবী হত্যার পরিকল্পনাকারী ও উস্কানিদাতাসহ মানবতাবিরোধী তিনটি অপরাধের দায়ে গত ৬ জানুয়ারি নিজামীর ফাঁসির রায় বহাল রাখে আপিল বিভাগ। এর আগে ২০১৪ সালের ২৯ অক্টোবর যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ নিজামীকে চারটি অপরাধে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছিলো। ওই বছরের ২৩ নভেম্বর ট্রাইব্যুনালের রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেন নিজামী। আপিল বিভাগ তিনটি অপরাধে নিজামীর মৃত্যুদণ্ডের রায় বহাল রাখে।

 

যে তিন অভিযোগে মৃতুদণ্ড বহাল

নিজামীর বিরুদ্ধে আনীত দুই নম্বর অভিযোগে বলা হয়েছে, একাত্তরের ১০ মে পাবনার সাঁথিয়া উপজেলার বাউশগাড়ি গ্রামের রূপসী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে একটি সভা অনুষ্ঠিত হয়। স্থানীয় শান্তি কমিটির সদস্য ও রাজাকারদের উপস্থিতিতে অনুষ্ঠিত ঐ সভায় ছিলেন নিজামী। সভার পরিকল্পনা অনুসারে ১৪ মে দু’টি গ্রামের প্রায় সাড়ে ৪৫০ জনকে পাকিস্তানি সেনারা হত্যা করে। এছাড়া প্রায় ৩০-৪০ জন নারীকে ধর্ষণ করে রাজাকাররা।

ছয় নম্বর অভিযোগে বলা হয়েছে, একাত্তরের ২৭ নভেম্বর ধুলাউড়া গ্রামে ৩০ জনকে হত্যায় নেতৃত্ব ও সম্পৃক্ততা রয়েছে নিজামীর।

১৬ নম্বর অভিযোগে বলা হয়েছে, ১৯৭১ সালে বাংলাদেশে নৃশংসতা চলাকালে মতিউর রহমান নিজামী ইসলামী ছাত্র সংঘ ও স্বাধীনতা বিরোধী সহযোগী বাহিনী আল বদরের সভাপতি ছিলেন। কিন্তু যখন দখলদার পাকিস্তানি বাহিনীর পরাজয় আসন্ন হয়ে ওঠে তখন ছাত্রসংঘ ও আল বদরের সদস্য দেশের বুদ্ধিজীবী নিধনের ষড়যন্ত্র করে। ১৯৬৬ সাল থেকে নিজামী ইসলামী ছাত্র সংঘের সভাপতি ছিলেন। এই ছাত্র সংঘই মুক্তিযুদ্ধের সময় আল বদর বাহিনীতে রুপান্তরিত হয়। ফলে নিজামী আল বদর বাহিনীর প্রধান ছিলেন। বুদ্ধিজীবীদের হত্যায় আল বদর সদস্যদের সহযোগিতা, অনুমোদন, নৈতিক সমর্থন ও তার কর্মের বিষয়ে নিজামী সম্পূর্ণরুপে সচেতন ছিলেন। আল বদর নেতা হওয়ার জন্য অধস্তনদের উপর নিজামীর পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ ছিলো। আল বদর সদস্যদের অপরাধ থেকে নিবৃত্ত না করায় তাদের অপরাধের দায় কোনোভাবেই নিজামী অস্বীকার করতে পারেন না। এই তিনটি অভিযোগে নিজামীকে যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনালের দেয়া মৃত্যুদণ্ড বহাল রাখে আপিল বিভাগ।

শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here