newsঢাকা সফর করছেন ভারতের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী ভি কে সিং। শনিবার তিনি গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাত করেন। সাক্ষাত শেষে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব এ কে এম শামীম চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেন, “প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, শুষ্ক মৌসুমে বাংলাদেশের আরো পানি দরকার। তাই যত দ্রুত সম্ভব তিস্তার পানি বণ্টন চুক্তি করা উচিত। বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী আশাপ্রকাশ করেন, পারস্পরিক বোঝাপড়ার মাধ্যমে শিগগিরই তিস্তার পানি বণ্টন চুক্তি হবে এবং সীমান্ত চুক্তির বাস্তবায়ন হবে।”

সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাতের সময় ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের উন্নয়নের দায়িত্বপ্রাপ্ত এই প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন মেঘালয়ের মূখ্যমন্ত্রী মুকুল সাংমাসহ রাজনীতিবিদ ও ব্যবসায়ীদের একটি প্রতিনিধিদল।

প্রেস সচিব সাংবাদিকদের বলেন, বৈঠকে ট্রানজিট ইস্যু নিয়েও আলোচনা হয়েছে। ভারতের মধ্য দিয়ে ভুটান ও নেপালে বাংলাদেশের ট্রানজিট সুবিধা দেওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভারত সরকারকে অনুরোধ করেছেন। ভারতের ভূমি দিয়ে বাংলাদেশের ট্রানজিটের বিষয়ে ভারতের সম্মতি রয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

দুই প্রতিবেশী দেশের মধ্যে ওয়াটার প্রটোকল শক্তিশালী করার প্রয়োজনীয়তার কথাও তুলে ধরেছেন ভারতের প্রতিমন্ত্রী। এটা নিয়ে আগামী নভেম্বরে দুই দেশের নৌ পরিবহন সচিব পর্যায়ে বৈঠক হবে বলেও তিনি উল্লেখ করেছেন।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফর সম্পর্কে ভি কে সিংকে উদ্ধৃত করে প্রেস সচিব বলেন, “ভারতের প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ সফরে আগ্রহী এবং এটা যে কোনো সময় হতে পারে। এ পরিপ্রেক্ষিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বাংলাদেশের মানুষও ভারতের প্রধানমন্ত্রীকে অভ্যর্থনা জানাতে অপেক্ষা করছে।”

বৈঠকে আরো উপস্থিত ছিলেন ত্রিপুরার শিল্পমন্ত্রী তপন চক্রবর্তী, মেঘালয়ের সংসদীয় সচিব কেনেডি কাইরিয়েম, বাংলাদেশে ভারতের রাষ্ট্রদূত পঙ্কজ সরন এবং ইন্ডিয়া-বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি আবদুল মাতলুব আহমেদ।

রোববার বিকাল ৪টায় ঢাকা ছাড়ার আগে সকাল ৯টায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলীর সঙ্গে বৈঠক করবেন তিনি। এর পর ভারত-বাংলাদেশ বাণিজ্য বিষয়ক বৈঠকে যোগ দেবেন।

শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here