জনতার নিউজ

'দেশে বর্তমানে পত্রিকার সংখ্যা ২ হাজার ৮৩৪টি'

‘বর্তমান সরকার গণমাধ্যম ও সাংবাদিক বান্ধব। সরকারের বিগত ৭ বছর মেয়াদে বিগত ২০০৯-২০১৩ মেয়াদে ৭১৬টি পত্রিকার রেজিস্ট্রেশন প্রদান করা হয়েছে।’ তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু আজ সংসদে জাতীয় পার্টির বেগম নুর-ই-হাসনা লিলি চৌধুরীর এক প্রশ্নের জবাবে এ তথ্য জানান।

গণমাধ্যমের বিষয়ে তথ্যমন্ত্রী আরো বলেন, ‘বর্তমানে দৈনিক, সাপ্তাহিক, পাক্ষিক, মাসিক, ত্রৈ-মাসিক ও ষান্মাসিক পত্রিকার সংখ্যা ২ হাজার ৮৩৪টি। এছাড়া তথ্যের অবাধ প্রবাহ নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ৩১টি বেসরকারি স্যাটেলাইট টেলিভিশন চ্যানেলসহ ২৪টি এফএম বেতার ও ৩২টি কমিউনিটি রেডিওর লাইসেন্স প্রদান করা হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘সরকারি খাতে ৩টি টেলিভিশন চ্যানেল এবং বেসরকারি খাতে ২৩টি স্যাটেলাইট টেলিভিশন চ্যানেল সম্প্রচার কার্যক্রম পরিচালনার পাশাপাশি ১৬টি এফএম বেতার এবং ১৬টি কমিউনিটি রেডিও সম্প্রচার কার্যক্রম পরিচালনা করছে।’

মন্ত্রী বলেন, ‘তথ্য মন্ত্রণালয় প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক গণমাধ্যমে কর্মরত সাংবাদিকদের পেশাগত দক্ষতা বৃদ্ধি এবং উৎকর্ষের জন্য বাংলাদেশ প্রেস ইনস্টিটিউট (পিআইবি) এবং জাতীয় গণমাধ্যম ইনস্টিটিউট (এনআইএমসি) প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ প্রদান করছে। পিআইবি ২০০৯ সালের জানুয়ারি থেকে ২০১৫ সালের অক্টোবর পর্যন্ত প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক গণমাধ্যমে কর্মরত সাংবাদিকদের জন্য ৪২৫টি প্রশিক্ষণ কোর্সের আয়োজনসহ ১৪ হাজার ৩১৮ জন সাংবাদিককে এবং জাতীয় গণমাধ্যম ইনস্টিটিউট ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় কর্মরত ১ হাজার ৮৭৫ জন সাংবাদিক ও কলাকুশলীকে প্রশিক্ষণ প্রদান করেছে।’

বিগত ৪টি অর্থবছরে ৬২৩ জন সাংবাদিক ও সাংবাদিক পরিবারের মাঝে সর্বমোট ৩ কোটি ৮০ লাখ টাকার অনুদানের চেক বিতরণ করা হয়েছে। তথ্যমন্ত্রী বলেন, ২০০৯ সালের জানুয়ারি থেকে চলতি বছরের জানুয়ারি পর্যন্ত প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক গণমাধ্যমে কর্মরত ২ হাজার ৮৯৭ জন সাংবাদিকদের অনুকূলে এক্রিডিটেশন কার্ড ইস্যুসহ ৭ হাজার ৯৪টি এক্রিডিটেশন কার্ড নবায়ন করা হয়েছে বলে মন্ত্রী জানান।

শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here